Templates by BIGtheme NET
Home / ফিচার / প্রধানমন্ত্রীর ঘোষনার রেলপথ কবে হবে?

প্রধানমন্ত্রীর ঘোষনার রেলপথ কবে হবে?

মুজাহিদ মুন্না, ০৬ জানুয়ারী
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘোষনা দেওয়ার প্রায় ৬ বছর হয়ে গেলেও এখনও মেহেরপুর সদর থেকে শুরু করে মুজিবনগর হয়ে দর্শনা পর্যন্ত ৫৩ কিলোমিটার নতুন রেলপথ নির্মান এখন পর্যন্ত আলোর মুখ দেখেনি।
রেলপথ নির্মাণের প্রাথমিক সমীক্ষা শেষ হলেও সরেজমিন সম্ভাব্যতা যাচাই কাজ না হওয়ায় গতি পাচ্ছে না প্রকল্পটি।
২০১১ সালের ১৭ এপ্রিল ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উপলক্ষে মুজিবনগরের জনসভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মেহেরপুর সদর থেকে মুজিবনগর হয়ে চুয়াডাঙ্গার দর্শনা পর্যন্ত নতুন রেলপথ নির্মাণের ঘোষণা দিয়েছিলেন। পরে রেল মন্ত্রনলয়ের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে রেলপথ বিভাগের একটি টেকনিক্যাল টিম সরেজমিন মেহেরপুরে এসে প্রধানমন্ত্রী-ঘোষিত উল্লিখিত নতুন ব্রডগেজ রেলপথ নির্মাণের প্রাথমিক সমীক্ষার কাজ শেষ করে গেছে প্রায় তিন বছর আগে।

সংশ্লিষ্ট সুত্র জানায়, প্রস্তুত করা প্রাথমিক সমীক্ষা রিপোর্টে প্রস্তাবিত এই ৫৩ কিলোমিটার দীর্ঘ রেলপথটিতে মোট ছয়টি রেলস্টেশন ও তিনটি ব্রিজ নির্মাণের কথা বলা হয়েছে। প্রস্তাবিত রেলস্টেশনগুলো হলো, মেহেরপুর জেলার সদর, মোনাখালি, মুজিবনগর এবং চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুড়হুদা উপজেলা সদর, হাতিভাঙ্গা ও চন্দ্রবাস।

সমীক্ষা রিপোর্টের ওই প্রস্তাবনায় মেহেরপুর জেলার মুজিবনগর উপজেলার বল্লভপুর পয়েন্ট, চুয়াডাঙ্গার মাথাভাঙ্গা নদীর ওপর দামুড়হুদা উপজেলার চিৎলা পয়েন্ট ও ভৈরব নদের ওপর দামুড়হুদা উপজেলার কানাইডাঙ্গাতে ভিন্ন ভিন্ন তিনটি ব্রিজ নির্মাণের কথা বলা হয়েছে।

প্রস্তাব অনুযায়ী মেহেরপুর সদর থেকে মুজিবনগর উপজেলা স্টেশন হয়ে গাইদঘাট ও জয়রামপুর স্টেশন থেকে দুটি নতুন লাইন মিলিত হবে যা দামুড়হুদা হয়ে দর্শনা স্টেশনে পৌছাবে।
সমীক্ষা রিপোর্টের ওই প্রস্তাবনায় ছয়টি স্টেশনসহ ৫৩ কিলোমিটার রেলপথ নির্মাণের জন্য মেহেরপুর সদর, মুজিননগর উপজেলা এবং চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলায় মোট ৫৪০ একর কৃষি জমি অধিগ্রহণের কথা বলা হয়েছে।
খোজ নিয়ে জানাগেছে, রেলপথ বিভাগের উচ্চ পর্যায়ের টেকনিক্যাল টিমের সরেজমিন সম্ভাব্যতা যাচাই কাজ শেষ না হওয়ায় প্রধানমন্ত্রী-প্রতিশ্রুতির গুরুত্বপূর্ন এই রেলপথ নির্মাণ প্রকল্পটি গতি পাচ্ছে না।

মেহেরপুরের সিনিয়র সাংবাদিক তুহিন আরন্য প্রধানমন্ত্রীর ঘোষনার দ্রুত বাস্তবায়নের দাবি করে বলেন, ঐতিহাসিক মুজিবনগর কেন্দ্রীক মেহেরপুর একটি সুবিধা বঞ্চিত জেলা। জেলার অবকাঠামো উন্নয়নের জন্য রেলপথের বাস্তবায়ন করা ছাড়াও বিশ্ববিদ্যায়ল ও স্থলবন্দরের দাবি করেন। তিনি বলেন, রেল সংযোগ চালু হলে মেহেরপুরের মুজিবনগরে পর্যটকদের সংখ্যা বেড়ে যাবে। যা মেহেরপুরের অর্থনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা রাখবে।
জাগো মেহেরপুরের মুখোপাত্র শোয়েব রহমান বলেন, মেহেরপুর কৃষি নির্ভর এলাকা। মেহেরপুরের সবজি সারা দেশের চাহিদার অনকেটাই পূরন করে। কিন্তু শুধুমাত্র যোগাযোগ ব্যাবস্থার কারনে অনেক সময় এলাকার কৃষকরা তাদের উদপাদিত সবজির ন্যায মূল্য পাইনা। তাই তিনি দ্রুত রেল পথের বাস্তবায়ন দাবি করেন।
মেহেরপুরের ইডেন কলেজে পুড়ুয়া শিক্ষার্থী রেজওয়ানা ইসলাম দিসা বলেন, মেহেরপুরে রেলপথের বাস্তবায়ন হলে নিশ্চিন্তে খুব সহজে ও কম খরচে আমরা যাতায়াত করতে পারব। তিনি বলেন এখন মেহেরপুরে ২০ হাজারের বেশি শিক্ষার্থী ঢাকার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অধ্যায়নরত রয়েছে। রেলপথ হলে সকল শিক্ষার্থীরাই উপকার হবে। তাই তিনিও দ্রুত রেলপথের বাস্তবায়ন চান।

এই বিষয়ে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে বাংলাদেশ রেলপথ মন্ত্রানালয়ের অতিরিক্ত সচিব (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) শশী কুমার সিংহ বলেন, প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া রেলপথ নির্মাণ প্রকল্পটির বিষয়ে আমরা সজাগ আছি। এটি একটি বৃহৎ প্রকল্প। বর্তমানে প্লানিং চলছে। সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের জন্য রেল বিভাগের উচ্চ পর্যায়ের একটি টেকনিক্যাল টিম খুব শিগগিরই মেহেরপুরে যাবে। সাম্ভব্যতা যাচাইয়ের রিপোর্ট পাওয়া গেলে, সেটি চুড়ান্ত অনুমোদনের পর কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হবে।

এবিষয়ে মেহেরপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ফরহাদ হোসেন বলেন, রেলপথ নির্মানের জন্য সকল প্রস্তুতি প্রায় সম্পন্ন হয়েছে। সরকার ও রেল মন্ত্রনালয়ের উচ্চ পর্যায়ে নিয়মিত যোগাযোগ করছি। আশা করি এই সরকারের বাকি সময়ের মধ্যেই রেলপথের বাস্তবায়ন করা সম্ভব হবে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful