Templates by BIGtheme NET
Home / জাতীয় ও আন্তর্জাতিক / প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা সত্ত্বেও মুজিবনগর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স বেহাল দশা

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা সত্ত্বেও মুজিবনগর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স বেহাল দশা

ভ্রাম্যমান প্রতিনিধি, মুজিবনগর থেকে :
মুজিবনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মঙ্গলবার সকাল নয়টায় গিয়ে একজন মাত্র চিকিৎসকের দেখা মেলে। ১৫জন চিকিৎসকের পদ থাকলেও ৪জন চিকিৎসক দিয়ে চলছে এই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেটি। রোগীদের অভিযোগ সময় মত চিকিৎসক কে পাওয়া যায় না । দীর্ঘক্ষন দাঁড়িয়ে থেকে সেবা নিতে হয়। সরকারী ঔষধ না পাওয়ার কথাও জানান তারা।
এই হাসপাতালটিতে মঙ্গলবার সরজমিনে গিয়ে সকাল সাড়ে দশটার দিকে বেশীর ভাগ চিকিৎসকের চেম্বার ফাঁকা ও তালাবদ্ধ দেখা যায়। সাংবাদিকদের ক্যামেরা দেখে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ দ্রুত বাইরে থেকে লোক নিয়ে এসে তালা ভাংতে শুরু করেন। হাসপাতালের দায়িত্বে থাকা উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার রুমে গিয়ে তাকে পাওয়া যায়নি। পরে সাংবাদিক আসার খবর পেয়ে তিনি হাসপাতালে প্রবেশ করেন। এই হাসপাতালের শুরু থেকে অপারেশন থিয়েটারটি বন্ধ রয়েছে। এছাড়াও এক্সরে, আল্ট্রাসনো সহ বেশীর ভাগ রোগ নিন্নয়নের মেশিন গুলো নষ্ট হয়ে পড়ে আছে।

মুজিবনগর হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা বাগোয়ান গ্রামের নজরুল ইসলাম জানান, পেটের ব্যাথা নিয়ে সকাল নয়টার দিকে হাসপাতালে আসেন। ডাক্তার না আসায় টিকিট দেননি কাউন্টার থেকে। দশটার পর ডাক্তার আসলে টিকিট দেওয়া হবে বলে জানান।
একাধিক রেগীর স্বজনরা জানান, হাসপাতালে ঠিকমত ডাক্তার বসে না। ডাক্তার বসলেও ১ থেকে ২ ঘন্টার বেশী পাওয়া যায়না। বেশীর ভাগ রোগী ডাক্তার না পেয়ে ফিরে যান।
স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেন ডাক্তার আসার কথা সকাল নয়টায়। আসে ১১টায়। বেশীর ভগ রোগীকে মেহেরপুর রেফার্ড করে দেওয়া হয়। ঠিক মত ঔষধ দেওয়া হয়না। ইমারজেন্সি রোগী আসলেও ডাক্তার পাওয়া যায়না। ডাক্তারদের কাছে গেলে আগে বলে নির্ধারিত ল্যাবে গিয়ে বিভিন্ন টেস্ট করে নিয়ে আসতে।

হাসপাতালের বেশীর ভাগ রোগ নির্নয়ের মেশিন গুলো নষ্ট হয়ে পড়ে রয়েছে দীর্ঘদিন।এছাড়াও হাসপাতালের শক্তিশালী জেনারেটর টি দীর্ঘ দিন ধরে বিকল হয়ে রয়েছে। বিদ্যুৎ না থাকলে অন্ধকারে থাকতে হয় হাসপাতালের রোগীদের।

মুজিবনগর হাসপাতাল দায়িত্বে থাকা কমকর্তা ডাঃ এইচ এম আনোয়ারুল ইসলাম ডাক্তার না থাকার কথা স্বীকার করে বলেন, চারজন ডাক্তারের মধ্যে একজন প্রশিক্ষনের জন্য বাইরে আছে। একজন ব্যক্তিগত সমস্যার জন্য আসেননি। এক জন ডাক্তার সকালে এসে ওয়ার্ডে ভর্তি রোাগীদের চিকিৎসা দিচ্ছে। আপনি কেন এত দেরি করে আসলেন এমন প্রশ্নে তিনি জানান, আমি রাস্তার মধ্যে ছিলাম। প্রতিদিন এই হাসপাতালে ৪০০ জন রোগী চিকিৎসা নিয়ে থাকেন। ৪০ জনের বেশী রোগী হাসপাতালটিতে ভর্তি থাকেন বলে জানান তিনি। তিনি আরো বলেন হাসপাতাল চালুর পর এখন পর্ষন্ত অপারেশন থিয়েটার চালু হয়নি। এখানে শুধু মাত্র নরমাল ডেলিভারি করানো হয়। মেশিন গুলো নষ্ট হয়ে পড়ে রয়েছে। প্রতি মাসে উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে চিঠি দেওয়া হয়। এতেও কোন কাজ হয়না।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.