Templates by BIGtheme NET
Home / বিনোদন / প্রাণ পেলো শিল্পকলার যাত্রা উৎসব

প্রাণ পেলো শিল্পকলার যাত্রা উৎসব

Meherpur, Jatra Picইয়াদুল মোমিন, ১২ জানুয়ারী:
একটা সময় ছিল শীত মৌসুম এলেই জেলার বিভিন্ন এলাকায়, পাড়ায় মহল্লায় হতো যাত্রা পালা। সারাদিন ক্ষেতখামারে, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে কাজ শেষে বিনোদনপ্রেমীরা ছুটতো নির্মল বিনোদনের উদ্দ্যেশে নিজ এলাকা বা আশেপাশের গ্রামে অনুষ্ঠিত কোনো যাত্রা পালায় । অপসংসস্কৃতির কড়াল গ্রাাসে নির্মল বিনোদনের উৎস সেই যাত্রা শিল্প আজ ধ্বংসের পথে। অশ্নিল নৃত্য আর অসাধু শ্রেণীর ব্যবসায়ীক চিন্তার প্রতিফলেন সভ্য সমাজের রুচিশীল দর্শক আজ যাত্রা বিমুখ।
বিলুপ্ত যাত্রাশিল্পকে বাঁচাতে “শেকড়ের শুদ্ধ উৎসবে প্রাণের আনন্দ” এই শ্লোগানে ৫ রাত ব্যাপী যাত্রা উৎসবের ব্যতিক্রম উদ্যোগ গ্রহণ করেছে মেহেরপুর জেলা শিল্পকলা একাডেমি । সেই উদ্যোগের অংশ হিসেবে গত শুক্রবার রাত থেকে মেহেরপুর শহীদ সামসুজ্জোহা পার্কে চলছে ৫ রাত ব্যাপী যাত্রা উৎসব। যাত্রা উৎসবে প্রতিদিন জড়ো হচ্ছে হাজার হাজার বিনোদন মুখী মানুষ। স্ত্রী সন্তানসহ পরিবারের সকলে নিয়ে যাত্রা উপভোগ করতেও দেখা গেছে অনেককে। বিনোদনপ্রেমী মানুষের কাছে নতুন এক প্রাণ সঞ্চার করেছে শিল্পকলার এ যাত্রা উৎসব।
শুক্রবার উদ্বোধনী রজনীতে মঞ্চস্থ হয় জেলা শিল্পকলা একাডেমীর পরিবেশনায় শ্রী ভৈরব গঙ্গোপাধ্যায় রচিত মশিউজ্জামান বাবু ও আব্দুল ওয়াদুদের নির্দেশনায় যাত্রাপালা ‘দেবি সুলতানা’ । পরদিন ৯ জানুয়ারী শনিবার মঞ্চস্থ হয় সীমান্ত নাট্য গোষ্ঠির পরিবেশনায় যাত্রাপালা ‘স্বমীর চিতা জলছে’। যাত্রাটি রচনা করেছেন শ্রী উদয় ভানু পরিচালনায় রয়েছেন আবু হানিফ। ১০ জানুয়ারী রবিবার প্রান্তিক নাট্য গোষ্ঠির পরিবেশনায় মঞ্চস্থ ‘জেল থেকে বলছি’। যাত্রাটি রচনা করেছেন শ্রী উদয় ভানু এবং যৌথভাবে পরিচালনা করেছেন তমিজউদ্দিন ও লাল্টু । ১১ জানুয়ারী সোমবার রায়পুর জাগরনী ক্লাবের পরিবেশনায় 5555যাত্রাপালা ‘হাসির হাটে কান্না’। যাত্রাটি রচনা করেছেন শ্রী কমলেশ ব্যানার্জী পরিচালনায় রয়েছেন মোঃ হাইদার আলী এবং আজ ১২ জানুয়ারী মঙ্গলবার শেষ রজনিতে মঞ্চস্থ হবে রাধাকান্তপুর চাষী ক্লাবের পরিবেশনায় যাত্রাপালা ‘অনুসন্ধান’। রচনা করেছেন শ্রী রঞ্জন দেবনাথ এবং পরিচালনায় রয়েছেন আব্দুল খালেক।
শুক্রবার রাতে মেহেরপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য ফরহাদ হোসেন এ উৎসবের উদ্বোধন করেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে শিল্পকলা একাডেমীর সহসভাপতি নুরুল আহমেদের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংরক্ষিত মহিলা আসন-৭ (মেহেরপুর ও চুয়াডাঙ্গা) সংসদ সদস্য সেলিনা আকতার বানু। সাংস্কৃতিক কর্মী নিশান সাবেরের সঞ্চালনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন জেলা শিল্পকলা একাডেমীর সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান। পরে যাত্রা চলাকালীন সময়ে সেখানে উপস্থিত হন জেলা প্রশাসক ও শিল্পকলা একাডেমীর সভাপতি মো: শফিকুল ইসলাম, জেলা পরিষদের প্রশাসক অ্যাড. মিয়াজান আলী।
সোহেল আহমেদর নামের এক দর্শক বলেন, আমরা পরিবার নিয়ে যাত্রা দেখছি, আগে শুনেছি যাত্রা খারাপ কিন্তু, এখন দেখছি যাত্রা এখনো অনেক ভালো আছে, আমরা এ রকম যাত্রা, পরিবার নিয়ে দেখতে চাই।
নারী দর্শক কুলসুম খাতুন বলেন, আগে যে যাত্রা ছিল খুবই ভালো, মাঝে এই যাত্রাটা খারাপ হয়ে গেছে। পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিয়ে এক সাথে যাত্রাপালা দেখা যেত না। এই উৎসবে বোঝা যাচ্ছেযাত্রা কখনো খারাপ হয় না কিছু মানুষ এই যাত্রাকে খারাপ করেছে।
যাত্রা শিল্পি এম এ মুহিত বলেন, সাংস্কৃতির প্রধান বাহন হিসেবে যাত্রাপালাকে ধরা হয়। কিছু মানুষের কারনে এই যাত্রাপালায় অশ্লীলতা ঢুকে যাওয়ার কারনে এই যাত্রা পালা হারিয়ে গিয়েছিল। প্রায় এক যুগ পর আজ আবারো অসংখ্য দর্শক যাত্রাপালা উপভোগ করছে। যাত্রা মরে যায় নি যাত্রা বাঙালির সবার মধ্যে রয়েছে।
44444এ বিষয়ে মেহেরপুর সরকারী কলেজের সহযোগী অধ্যাপক ও সাহিত্যিক আবদুল্লাহ আল আমিন বলেন, যাত্রপালার শুরু দিকে মেহেরপুর জেলায় গড়ে উঠেছিল অসংখ্য নাট্য দল। যারা একসময় যাত্রাপালার মধ্যে দিয়ে গ্রামীন সমাজের সব বয়সের মানুষদের মাতিয়ে রাখতো। তার মধ্যে সাহারবাটির নবকল্লল অপেরা, মেহেরপুরের মিলোনি অপেরা, প্রগতি পরিমেল অন্যতম । কিন্তু কালের বিবর্তনে যাত্রাপালা আজ বিলুপ্ত প্রায়। পাঁচ দিন ব্যাপি যাত্রাপালার প্রথম দিনে মঞ্চায়িত হয়েছে যাত্রাপালা দেবী সুলতানা, এর মাধ্যমে সমাজে হিন্দু মসুলমানদের মধ্যে বিভেদের কারণ, অত্যাচারের বিভিন্ন দৃশ্য সহ যাত্রাপালার শেষ অংশে এসব দ্বন্দ নিরশনের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেছেন শিল্পিরা।
শিল্পকলা উদ্যোগ প্রসঙ্গে সাহিত্যিক আবদুল্লাহ আল আমিন বলেন, যাত্রা হচ্ছে আমাদের লোকসংস্কৃক্তির সবচেয়ে ঐতিহ্যবাহী শিল্প মাধ্যম এবং এটা লোক শিক্ষারও বাহন। জেলা শিল্পকলা যে উদ্যোগ নিয়েছে তাতে ঐতিহ্যবাহী এই শিল্প ধারাটি বাঁচবে, অশ্নিলতা হাত থেকে আমাদের সংস্কৃতি রক্ষা পাবে এবং অশ্নিলতা রোধ পাবে। অশ্নিলতার কারণে এ শিল্প নষ্ট হতে চলেছিলো। এর সাখে যে সকল শিল্পিরা জড়িত তাদেরও জীবীকার পথ বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছিলো। বিশাল একটি জনগোষ্টী এ শিল্পর মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহ করতো। শিল্পকলার এ উদ্যোগে সে সকল শিল্পিরা তাদের জীবন জীবীকা নির্বাহের একটি পথ খুজে পাবে এবং শিক্ষার মাধ্যম হিসেবেও যাত্রাকে আমরা কাজে লাগাতে পারবো।
উৎসবের মূল উদ্যোক্তা জেলা শিল্পকলা একাডেমীর সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান বলেন, সারাদেশের ন্যায় মেহেরপুরেও যাত্রা শিল্প আজ ধ্বংসের পথে বা মৃতপ্রায়। এটাকে পূন:জ্জীবীত ও প্রেরণা দেয়ার জন্য আমাদের এই উন্মুক্ত যাত্রা উৎসব। জেলার বিভিন্ন স্থানে যাত্রার নামে নগ্ন নৃত্য ও অশ্নিলতা প্রদর্শনি করা হয়। এই নগ্নতা যেন না হয়। যাতে পরিবারের সকলে মিলে যাত্রাকে উপভোগ করতে পারে সেকারণের আমাদের এই আয়োজন। আমাদের এ ইতিমধ্যে উদ্যোগে সফল হয়েছে। বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ যাত্রা দেখার জন্য যাত্রা উৎসবে যোগ দিচ্ছেন এবং তারা আমাদের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানাচ্ছেন। প্রতিদিন রাত জেগে হাজার হাজার দর্শক আমাদের এই যাত্রা উপভোগ করছেন। তিনি আরো বলেন, এই উৎসবের মাধ্যমে জেলা শিল্পকলা একাডেমীর পক্ষ থেকে অশ্নিলতার বিরুদ্ধে উদ্যোগে নেয়া হয়েছে। জেলার যে কোনো স্থানে অশ্নিল যাত্রার সংবাদ পেলেই তা আমরা ভেঙ্গ দেব এবং তাদের বিরুদ্ধে জনমত গড়ে তুলবো।
জেলা প্রশাসক ও শিল্পকলা একাডেমীর সভাপতি মো: শফিকুল ইসলাম যাত্রার এই সমৃদ্ধিকে ধরে রাখার জন্য আমরা এই আয়োজনটি করেছি। যাত্রা বিলুপ্তির পথে চলে যাচ্ছে। ভবিষ্যতে এই ধরনের আয়োজন অব্যহত থাকবে এবং অপসংস্কৃতির বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।
শিল্পকলার এ উদ্যোগকে যুগপোযগী উল্লেখ করে মেহেরপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য ফরহাদ হোসেন বলেন, যাত্রা একটি শক্তিশালী বিনোদন মাধ্যম। এ মাধ্যম সমাজকে ভালো মন্দের নির্দেশনা দেয় । অথচ এই যায়গা থেকে গ্রাম বাংলার সাধারণ মানুষ বঞ্চিত হচ্ছিল। অপসংস্কৃতির বানিজ্যিকিকরণ করার মধ্যে দিয়ে এই শিল্পটিকে নষ্ট করা হয়েছিল। রুচিশীল দর্শকরা এখান সরে যাচ্ছিল। তিনি বলেন, মানুষের সামাজিক নিরাপত্তা বেড়েছে, ক্রয় ক্ষমতা বেড়েছে কিন্তু বিনোদনের মাধ্যম নেই। সরকারের পৃষ্ঠপোষকতাতাই সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার মাধ্যমে নির্মল বিনোদণের এই যাত্রা শিল্পকে এগিয়ে নেয়ার জন্য দলীয় নেতাকর্মীসহ সকল শ্রেণীর পেশার মানুষকে সুস্থ ও পরিচ্ছন্ন পরিবেশে যাত্রাপালা আয়োজন করার তাগিদ দেয়া হচ্ছে। অশ্লিল যাত্রা আয়োজন প্রসঙ্গে সংসদ সদস্য বলেন, অশ্নিলতার কোনো যাত্রা আয়োজনের খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তা প্রশাসনের মাধ্যমে বন্ধ করে দেয়া হবে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful