Templates by BIGtheme NET
Home / আইন-আদালত / ফলোআপ :: ইমাম ও তরুণীকে গাছে বেঁধে নির্যাতন :: ৫ মাতবরের বিরুদ্ধে মামলা

ফলোআপ :: ইমাম ও তরুণীকে গাছে বেঁধে নির্যাতন :: ৫ মাতবরের বিরুদ্ধে মামলা

এভাবে গাছের সাথে বেঁধে নির্যাতন করা হয় তাদের

মেহেরপুর নিউজ, ১৮ জুলাই:
অনৈতিক সম্পর্কের অভিযোগ এনে মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার মথুরাপুর গ্রামে মসজিদের ইমাম ও তরুণীকে গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতনের ঘটনার আদালতে ৫ মাতবরের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।
রবিবার বিকালে মেহেরপুরের আমলী আদালত ও দ্রুত বিচার আদালতে এ মামলা দায়ের করেন ইমাম নাজুমুল হোসেনের পিতা দেলোয়ার হোসেন। মামলায় মথুরাপুর গ্রামের ৫ মতবরকে আসামি করা হয়েছে। আসামিরা হলেন- মথুরাপুর গ্রামের ইমান আলী শেখের ছেলে মোকাদ্দেস হোসেন, মোমিনুল ইসলাম, আব্দুল কুদ্দুসের ছেলে বাদল হোসেন, লাল চাঁদের ছেলে রিপন আলী ও ওয়াজেল হোসেনের ছেলে কালু হোসেন। আসামি সকলেই আওয়ামীলীগের কর্মী।
মামলাটি আমলে নিয়ে আদালতের বিচারক মো: ছানাউল্ল্যাহ গাংনী থানাকে মামলাটি ফার্ষ্ট ইনফরমেশন রিপোর্ট (এফআইআর) দেওয়ার নির্দেশ দেন।
মামলার এজাহারে জানা গেছে, গত ১ জুলাই তরুণীর খালা রমেলা খাতুন আল কোরআনের একটি সূরা সংক্রান্ত বিষয়ে জানার জন্য মোবাইল ফোনের মাধ্যমে মথুরাপুর গ্রামের তার নিজ বাড়িতে ডেকে নেন ইমাম নাজমুল হোসেনকে। ওই ইমামের সাথে রমেলা খাতুনের বোনের মেয়ের অবৈধ সম্পর্ক রয়েছে এমন অভিযোগ তুলে বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে যায় স্থানীয় মাতবর মুকাদ্দেস আলী, মোমিনুল , রিপন হোসেন, বাদল হোসেন ও কালু সহ তাদের সহযোগীরা। পরে রাস্তা থেকে ওই তরুণীকেও তারা আটক করে। পওে দুজনকে সড়কের পাশে একটি গাছের সাথে বেঁধে নির্যাতন করে এবং জোর করে তাদের বিয়ে দিয়ে দেয়। বিয়ের পরপরই একটি ফাঁকা ষ্টাম্পে স্বাক্ষর করিয়ে নেন তারা।
এদিকে নির্যাতনের চিত্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হলে এলাকায় আলোচনা সমালোচনার ঝড় উঠে। এ নিয়ে গত ১১ জুলাই কালের কন্ঠ’র প্রিয় দেশ পাতায় ‘গাছে বেঁধে ইমাম ও তরুণীকে নির্যাতন’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ হয়।
তবে ইমাম নাজমুল হোসেন পিতা দেলোয়ার হোসেন গাংনী থানায় মামলা করার জন্য অভিযোগ জমা দিলেও থানা মামলা না নিয়ে অভিযোগ পাইনি বলে চালানো চেষ্টা করে। অবশেষে ঘটনার দুই সপ্তাহ পর রবিবার মেহেরপুরের আমলী আদালত ও দ্রুত বিচার আদালতে মামলা দায়ের করেন।
মামলায় বাদি পক্ষের আইনজীবী কামরুল হাসান বলেন, মামলার এজাহারের সাথে পেপার কাটিং ও নির্যাতনের ছবি দিয়ে আবেদন করায় বিজ্ঞ বিচারক মামলাটি আমলে নিয়ে গাংনী থানাকে এফআইআর এর নির্দেশ দিয়েছেন।
গাংনী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেন কালের কন্ঠকে বলেন, আদালতের আদেশ এখনো থানায় এসে পৌছাইনি। আদেশ পেলে সাথে সাথে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.