Templates by BIGtheme NET
Home / সম্পাদকীয় ও উপ সম্পাদকীয় / বঙ্গবন্দ্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে মেহেরপুরবাসীর প্রত্যাশা

বঙ্গবন্দ্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে মেহেরপুরবাসীর প্রত্যাশা

উপসম্প্রাদকীয়
মুহাম্মদ রবীউল আলম:
আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় অগ্রনায়ক বিশ্বনেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনাকে প্রথমেই অবহেলিত মেহেরপুরবাসীর পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করছি। তিনি যে রাষ্ট্রীয় ও আন্তর্জাতিক নানা গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বের শত ব্যস্ততার মাঝে থেকেও ছুটে এসেছেন এই ঐতিহ্যবাহী মুজিবনগর আম্রকাননে, এজন্য আমরা মেহেরপুরবাসী তাঁর প্রতি চিরকৃতজ্ঞ। তাঁর এই আগমন শুভ হোক, কল্যাণ হোক মেহেরপুর তথা দেশবাসীর জন্য।
আমরা জানি আমাদের প্রাণপ্রিয় নেত্রী শেখ হাসিনা মেহেরপুরের মানুষকে গভীরভাবে ভালবাসেন এবং মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সমৃদ্ধ এ অঞ্চলের মানুষের ত্যাগ ও সংগ্রামকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন। তাইতো তিনি ব্যস্ততার নামেও ছুটে আসেন আমাদের আঙ্গিনার। তিনি তাইতো মেহেরপুরের মানুষদের প্রায়ই বলে থাকেন ‘তোমরা মুজিবনগর তথা মেহেরপুরের উন্নয়ন বিষয়টি আমার হাতে ছেড়ে দাও, আমি তোমাদের পাশে আছি থাকবো’। তার এই বাণী আমাদের অনুপ্রাণিত করে, উৎসাহিত করে। আমরা আশাবাদী মানুষ। আমরা আশা করবো জননেত্রী ও বঙ্গবন্ধু কন্যাকে চিরকাল আমাদের মাঝে পাবো এবং এ অঞ্চলের সমস্যাগুলো তিনি গুরুত্ব সহকারে দেখবেন।
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ডাকেই ১৯৭১ সালে আমরা যুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়েছিলাম এবং সেই মহানায়কের নামেই স্বাধীন দেশের প্রথম সরকার গঠিত হয়েছিল এখানে। সেই মহানায়কের নামেই এই আম্রকানন (বদ্দিনাথতলা) এর নামকরণ করা হয়েছিল ‘মুজিবনগর’। এই মুজিবনগরকে কেন্দ্র করেই পাক হানাদারদের বিরুদ্ধে সেদিন রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ পরিচালিত হয়েছিল। এই মুজিবনগরেই দেশের প্রথম রাজধানী গঠিত হয়েছিল। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে এই মুজিবনগর তথা মেহেরপুরবাসীর অবদান স্বর্ণাক্ষরে লিখিত রয়েছে। এ অঞ্চলের সর্বস্তরের মানুষকে সেদিন দেখেছি মুক্তিযুদ্ধে জীবনবাজি রেখে ঝাপিয়ে পড়তে। আজ আমরা শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করি মেহেরপুরসহ এ অঞ্চলের সেই নাম জানা অজানা শহীদ ও আহত মুক্তিযোদ্ধা এবং সেইসব বীর মুক্তিযোদ্ধা যারা বীরের মত সংগ্রাম করে বিজয়ের পতাকা হাতে স্বাধীন দেশে বীরের বেশে প্রবেশ করে দেশ গড়ার কাজে নিয়োজিত আছেন। শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করি এ অঞ্চলের আওয়ামীলীগসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নিবেদিত প্রাণ নেতাকর্মীদের, যারা সহপরিবারে দুঃখ দুর্দাশা সহ্য করে ভারতের মাটিতে কষ্ট করে স্বাধীন দেশের বিজয়কে এগিয়ে নিয়ে গেছেন।
মনে পড়ে, ১৯৭০ সালের নির্বাচনের প্রাক্কালে প্রচারকাজে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেহেরপুরে এসেছিলেন। সামসুজ্জোহা পার্কে তিনি বক্তব্য দিয়ে ছিলেন। মঞ্চের সামনে বসে সেই মিটিং শোনার সৌভাগ্য আমার হয়েছিলো। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের ভাষণের কথা এখনো মনে পড়ে। সেদিন তিনি পূর্ব পাকিস্তান ও পশ্চিম পাকিস্তানের বৈষম্যের কথা বলেছিলেন। তিনি দুই ভাইয়ের মধ্যে গরুভাগের কাহিনীও সেদিন বর্ণনা দিয়েছিলেন। ছোট ভাই গরুকে খাওয়ায় আর বড় ভাই গরুর দুধ পায়। তিনি বলেছিলেন এ অবস্থা চলতে দেওয়া যায় না। ৭০ সালের নির্বাচনে মেহেরপুর আসন থেকে জাতীয় পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন জননেতা মোহাম্মদ সহিউদ্দিন। মেহেরপুরের তৎকালীন মেহেরপুরের মহকুমা প্রশাসক তৌফিক-ই-এলাহী চৌধুরী, আওয়ামীলীগ নেতা মোহাম্মদ সহিউদ্দিন ও নুরুল হক সহ অন্যান্য ব্যক্তিদেরকে আমরা শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করি। আমার বড় চাচা শেখ নঈম উদ্দিন সেসময় মেহেরপুর পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। মেহেরপুর আওয়ামীলীগের অধিকাংশ মিটিং আমাদের বাড়ীর ছাদের উপরে হতো। ৭১ সালে তিনি ভারতে গিয়ে সীমাহীন কষ্টের মধ্যে পড়েছিলেন।
এদেশের স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব, জাতীয় পতাকা, জাতীয় সংগীত সবই মুজিবনগর সরকারের অর্জন। দেশের ক্রান্তিকালে মুজিবনগরে উদিত হয়েছিল স্বাধীনতা সূর্য। তাই মুজিবনগরকে স্বাধীনতার সূতিকাগার বলা হয়। অথচ দুঃখজনক হলেও সত্য যে এই মুজিবনগরকে তার যথাযোগ্য মর্যাদা দেওয়া হয়নি। রাষ্ট্রীয়ভাবে দিবসটি উদযাপিত হয়নি। মুজিবনগর কোন দলের বা গোষ্ঠীর নয়। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার মানেই মুজিবনগর। মুজিবনগর মানেই বাংলাদেশ। মুজিবনগরকে অবজ্ঞা করার অর্থই হলো বাংলাদেশ সরকারকে অবজ্ঞা করা।
১৯৭২ সাল থেকে ১৯৭৪ সাল পর্যন্ত ১৭এপ্রিল ছিল ‘জাতীয় শপথ দিবস’। তখন এই দিবসটি রাষ্ট্রীয়ভাবে পালিত হয়েছিল। প্রতিবছর তৎকালীন প্রভাবশালী ৫/৬ মন্ত্রী এখানে আসতেন এবং এখানে ব্যাপক অনুষ্ঠান হতো। সে সময় এখানে শিল্প ও বাণিজ্য মেলা হয়েছে। পরবতীকালে রাজনৈতিক পট পরিবর্তনের ফলে এই দিবসটি অবহেলিত হয়ে পড়ে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী শক্তি ক্ষমতায় আসে এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ভুলন্ঠিত করে। তারা মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে বিকৃত করে। তারা জাতির জনক শেখ  মুজিবের নাম পর্যন্ত মুখে উচ্চারণ করেনি।
আজ দেশের ক্ষমতা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী ও বঙ্গবন্ধুর আওয়ামীলীগের হাতে। জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ উন্নতির দিকে এগিয়ে চলেছে। মেহেরপুরবাসীর বিশ্বাস জননেত্রী শেখ হাসিনা মুজিবনগরবাসীর দুঃখ দুর করতে এগিয়ে আসবেন। আমরা চাই ১৭ এপ্রিল মুজিবনগর দিবস নয়, ১৭ এপ্রিলকে জাতীয় শপথ দিবস হিসাবে রাষ্ট্রীয়ভাবে যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপিত হোক। এই দিনটি থাকবে সরকারী ছুটির দিন। দেশের প্রথম রাজধানী মুজিবনগরের সম্মানার্থে এখানে বছরে একাধিকবার সরকারের মন্ত্রী পরিষদের বৈঠকের ব্যবস্থা করতে হবে এবং মুক্তিযুদ্ধের রাজধানী হিসাবে বিশেষ মর্যাদা দিতে হবে। সেই সাথে এখানে মুক্তিযুদ্ধের জাদুঘর প্রতিষ্ঠা করতে হবে । মেহেরপুরের মানুষের একান্ত প্রত্যাশা মেহেরপুরের ঘরে ঘরে গ্যাসের লাইন সংস্থাপন করা হোক এবং  বিদ্যুৎ সমস্যা দূর করার উদ্দেশে এখানে ১০০ মেগাওয়াট ক্ষমতার একটি  বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন করতে হবে।
মেহেরপুরবাসীর দীর্ঘদিনের প্রত্যাশা হিসেবে এখানে স্থলবন্দর দ্রুত চালু করা হোক। মেহেরপুরে দেশের বৃহৎ ৩টি কৃষি ফার্ম রয়েছে। এই ৩টি ফার্মই পাশাপাশি অবস্থিত। এই ফার্ম ৩টিকে কেন্দ্র করে এখানে একটি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করতে হবে। কুষ্টিয়ার মীরপুর থেকে গাংনী-মেহেরপুর- মুজিবনগর হয়ে দর্শনা পর্যন্ত রেললাইন স্থাপন করতে হবে। মেহেরপুরের ভৈরব নদ পূনঃখনন করে জেলার কৃষি বিষয়ে ব্যাপক পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে।
মুজিবনগরের আজকের অনুষ্ঠান সফল হোক, স্বার্থক হোক এবং জননেত্রী শেখ হাসিনার সুস্বাস্থ্য ও উজ্জল ভবিষ্যৎ কামনা করছি। সেই সাথে তিনি যে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার সূচনা করেছেন তা সফল বাস্তবায়নে আমরাও সক্রিয় অংশীদার।
লেখকঃ সাংবাদিক ও গবেষক

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful