Templates by BIGtheme NET
Home / বর্তমান পরিপ্রেক্ষিত / বসুন্ধরা খাতা- কালের কণ্ঠ বিতর্কে মেহেরপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় জেলা চ্যাম্পিয়ন

বসুন্ধরা খাতা- কালের কণ্ঠ বিতর্কে মেহেরপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় জেলা চ্যাম্পিয়ন

মেহেরপুর নিউজ, ০৫ মে:
“জিপিএ ৫ পাওয়া মানেই প্রকৃত মেধাবী নয়” এই বিষয়ে তর্ক যুদ্ধে অংশ নিয়ে বসুন্ধরা খাতা-কালের কণ্ঠ জাতীয় স্কুল বিতর্ক প্রতিযোগিতায় জেলা চ্যাম্পিয়ন হয়েছে মেহেরপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়। রানার্স আপ হয়েছে মেহেরপুর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়। প্রতিযোগিতায় শ্রেষ্ঠ বক্তার উপাধি পায় চ্যাম্পিয়ন দলের মাহবুবা রহমান রোজা।
‘যুক্তিতে আলোকিত হও’ শ্লোগানে গতকাল শনিবার দিনব্যাপী ব্যাপক উৎসব মুখর পরিবেশে মেহেরপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় মিলনায়তনে এ প্রতিযোগিতা ফাইনাল পর্ব অনুষ্ঠিত হয়। সম্পূর্ণ সনাতনি পদ্ধতিতে এ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।
সকালে মেহেরপুর পৌরসভার মেয়র মাহফুজুর রহমান রিটন প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বিতর্ক প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন। জেলা কালের কণ্ঠ-শুভ সংঘ’র সভাপতি অধ্যক্ষ একরামুল আযীমের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন মেহেরপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এটিএম সোলাইমান হোসেন, মেহেরপুর জেলা প্রেস ক্লাবের সভাপতি তোজাম্মেল আযম, বাড়িবাকা সীমান্ত মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শ্বাশত নিপ্পন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন কালের কণ্ঠ’র মেহেরপুর প্রতিনিধি ইয়াদুল মোমিন।
বিতর্ক প্রতিযোগীতায় প্রধান বিচারকের দায়িত্ব পালন করেন দুদুক আয়োজিত জাতীয় বিতর্ক প্রতিযোগিতার চ্যাম্পিয়ন তিন বিতার্কিক ফাতেমা ফারজানা নির্জনা, জারিন তাসনিম রোজা,, কামিনী ইসলাম। অন্যদের মধ্যে বিচারকের দায়িত্ব পালন করেন মেহেরপুর জেলা প্রেসক্লাবের সহসভাপতি মাহাবুব চান্দু, মাহবুবুল হক মন্টু, মেহেরপুর প্রতিদিনের সম্পাদক মাহবুবুল হক পোলেন,বার্তা সম্পাদক মিজানুর রহমান।
প্রতিযোগিতার বিভিন্ন রাউন্ডে প্রতিযোগিরা তুমুল যুক্তি ও তর্কযুদ্ধে লিপ্ত হয়। বক্তাদের যুক্তি আর তর্কে মিলনায়তনে মুহুর্মুহ করতালিতে উৎসব মূখর পরিবেশ তৈরি হয়।
প্রতিযোগিতা পরিচালনায় সহযোগিতা করেন জেলা কালের কণ্ঠ-শুভ সংঘ’র সাধারণ সম্পাদক মান্নাফ মান্না, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক আল ইকরাম সোহাগ, কোষাধাক্ষ আফসানা বিশ্বাস তিথি, পৌর কলেজ শাখার সাধারণ সম্পাদক সাব্বির আহমেদ মুন্না, সদস্য আর এস শাওন, আসিফ ইকবাল, সাব্বির হায়ত, দিনার আহমেদ, দিপু হোসেন।
প্রচন্ড রোদ ও গরমকে উপেক্ষা করে অংশগ্রহণকারীরা নির্ধারিত সময়ের মধ্যে অনুষ্ঠান স্থলে হাজির হয়। প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারীদের সনদপত্র, বসুন্ধরা খাতা, অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানকে ক্রেষ্ট এবং প্রতিটি দলের সেরা বক্তাদের পুরস্কার হিসেবে বসুন্ধরা খাতা উপহার দেওয়া হয়।
প্রতিযোগিতার ১ম পর্বে জেলার ৮টি বিদ্যালয় অংশ নেওয়ার কথা থাকলেও তিনটি দল অংশগ্রহণ করেনি। ফলে বিপরীত তিনটি দল মেহেরপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, মেহেরপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও গাংনী পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয় ওয়াকওভার পেয়ে সরাসরি ২য় রাউন্ডে যাবার সুযোগ লাভ করে। ১ম রাউন্ডে শুধুমাত্র একটি প্রতিযোগিতায় গাংনী পাইলট মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়কে পরাজিত করে জিনিয়াস ল্যাবরেটরি স্কুল এন্ড কলেজ ২য় রাউন্ডে যাওয়ার সুযোগ লাভ করে। ২য় রাউন্ডে মেহেরপুর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় পরাজিত করে গাংনী পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়কে এবং মেহেরপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় পরাজিত করে জিনিয়াস ল্যাবরেটরি স্কুল এন্ড কলেজ। চুড়ান্ত রাউন্ডে মেহেরপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় পরাজিত করে মেহেরপুর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়কে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.