Templates by BIGtheme NET
Home / বর্তমান পরিপ্রেক্ষিত / বহিস্কৃত হচ্ছেন প্রধান শিক্ষক মতিনুল ইসলাম !

বহিস্কৃত হচ্ছেন প্রধান শিক্ষক মতিনুল ইসলাম !

Motinul123মেহেরপুর নিউজ, ১৬ জুলাই:
টিউশন ফির নামে কর্তন করে উপবৃত্তির টাকা আত্মসাত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে মেহেরপুর সদর উপজেলার রাধাকান্তপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক মতিনুল ইসলামের বিরুদ্ধে। এ অভিযোগে স্খানীয় জনতা ও অভিবভাবকরা প্রধান শিক্ষককে বিদ্যালয়ের অফিস কক্ষে অবরুন্ধ করে রাখে। শনিবার বিকাল সাড়ে ৪ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।
এর আগেও বেতন স্কেল ফিক্সেশন করার নামে উপজেলার শিক্ষকদের কাছে থেকে ২৫০ টাকা করে ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ রয়েছে প্রধান শিক্ষক মতিনুল ইসলামসহ ছয়জন শিক্ষকের বিরুদ্ধে। সেই বিষয়টি নিয়ে বিভাগীয় তদন্ত হলেও টাকার বিনিময়ে তদন্ত প্রতিবেদন আটকিয়ে রাখারও অভিযোগ রয়েছে মতিনুল গংদের বিরুদ্ধে।
এ ঘটনায় রবিবার সকালে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে এক জরুরী বৈঠকে অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক মতিনুল ইসলামকে সাময়িক বহি:স্কার এবং তার বিরুদ্ধে মামলা করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা এস এম তৌফিকুজ্জামান, সহকারী জেলা শিক্ষা অফিসার সেলিনা আজহার, সদর উপজেলা শিক্ষা অফিসার আপিল উদ্দিন, সহকারী উপজেলা শিক্ষা শিক্ষা অফিসার ওলিয়ার রহমান বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, শনিবার রাধাকান্তপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের মাঝে উপবৃত্তির টাকা দেওয়ার দিন ছিলো। সেই হিসেবে স্কুলের ৪শ ২০ শিক্ষার্থীদের মাঝে সাড়ে ৩শ টাকা করে উপবৃত্তির টাকা দেওয়া শুরু করে। কিন্তু অভিভাবকরা খোজ নিয়ে জানতে পারে জন প্রতি প্রাক প্রাথমিকে এক বছরে ৬শ টাকা এবং প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের ১২’শ টাকা হারে উপবৃত্তির টাকা পাবে। কিন্তু প্রধান শিক্ষক টিউশন ফির নামে টাকা জন প্রতি সাড়ে ৩’শ থেকে ৫’শ টাকা করে কেটে নিচ্ছেন। উপবৃত্তির টাকা দেয়ার সময় একজন ব্যাংক কর্মকর্তা উপস্থিত থেকে টাকা দেয়ার কথা থাকলেও প্রধান শিক্ষক নিজেই টাকা দেয়া শুরু করেন। তাই প্রধান শিক্ষকের দূর্নীতির প্রতিরোধ করার জন্য স্কুলের অভিভাবক ও গ্রামের লোকজন একহয়ে স্কুলে প্রবেশ করে প্রধান শিক্ষক মতিনুল ইসলামকে অবরুদ্ধ করে রাখে।
1111পরে খবর পেয়ে সহকারী উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার ওলিয়ার রহমান, আসাফ উদ দৌলা ও জয়নুল ইসলাম বিদ্যালয়ে গিয়ে অভিভাবকদের সাথে কথা পরিস্থিতি স্বাভাবিক করে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিলে এবং উপবৃত্তির পুরো টাকা দেয়া শুরু করলে অভিভাবকরা প্রধান শিক্ষককে মুক্তি দেন। কিছুক্ষন পর সন্ধ্যা হয়ে গেলে পরদিন রবিবার বাকি শিক্ষার্থীদের টাকা দেয়া হয় বলে জানানো হয়।
এদিকে রবিবার সকালে বিদ্যালয়ে পরিদর্শনে গিয়ে দেখা যায়, বাকি শিক্ষার্থীদের মাঝে উপবৃত্তির পুরো টাকা বিতরণ করা হচ্ছে। সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার আসাফ উদ দৌলা, জেলা যুবলীগের সদস্য সাজিউর রহমান সাজু ও জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জুয়েল রানা টাকা বিতরণের সময় উপস্থিত ছিলেন।
বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্র নাইম ইসলাম জানান, আমি এবছর মাত্র দুই দিন অসুস্থ্য থাকার কারনে স্কুলে আসতে পারেনি। তাই হেড স্যার আমাকে ৩’শ টাকা বাড়িতে পৌছে দিয়ে ১হাজার ২’শ টাকা সিটে সাক্ষর করে নিয়েছেন।
অভিভাবক নাজমা খাতুন জানান, আমার ছেলে দুই দিন স্কুলে না য্ওায়ায় তার এক হাজার টাকা পাওয়ার কথা। কিন্তু প্রধান শিক্ষক তিনশত টাকা ছেলের হাতে তুলে দিয়েছে। অথচ, প্রতিটি শিক্ষার্থী অভিভাবকের কাছ থেকে ১২শত টাকার শিটে স্বাক্ষর করে নিয়েছেন প্রধান শিক্ষক।
স্কুলের ৪র্থ শ্রেণীর ছাত্রী ইয়াসমিন আক্তার জানান, দুপুরে স্কুল শেষে প্রধান শিক্ষক আমাকে পাঁচশত টাকা হাতে ধরিয়ে দেয়। গত বছর আমি ১২শ টাকা পেয়েছিলাম। ইয়াসমিনের পিতা জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আমার মেয়ে দুপুরে বাড়িতে গিয়ে আমাকে উপবৃত্তির ৫শত টাকা দেয়। একথা শুনে তিনি স্কুলে এসে প্রধান শিক্ষককের কাছে জানতে চাইলে প্রধান শিক্ষক উপবৃত্তির ১২শত টাকার স্থলে ৫শত টাকা দিয়েছেন বলে স্বীকার করেন। এবং কোচিং ফি তিনশত টাকা এবং অন্যন্য ফি বাবদ দুইশত মোট ৫শ টাকা কর্তনের কথা জানান।
একাধিক অভিভাবক অভিযোগ করে বলেন, স্কুলের প্রধান শিক্ষক উপবৃত্তির টাকা আত্মসাৎ করছেন। তাদের অভিযোগ, টাকা বিতরণের সময় ব্যাংক কর্মকর্তা উপস্থিত থাকলে এই দুর্নীতি হতো না।
তবে অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক মতিনুল ইসলাম অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণীর শিক্ষার্থীরা এক বছরের টাকা পেলেও প্রাক প্রাথমিকের শিক্ষার্থীরা ৬ মাসের টাকা পাবে। কিন্তু অভিভাবকরা ভুল বুঝে তাদেরও এক বছরের টাকা দাবি করে। তবে প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের কেন ৩’শ টাকা দেয়া হচ্ছে এমন প্রশ্নের জবাব তিনি দিতে পারেননি।
রাধাকান্তপুর সরকারী প্রাাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ইসমাইল হোসেন বলেন, উপবৃত্তির টাকা বিতরণ হয়েছে এটা আমি জানি না। বিকালের দিকে জানতে পারি প্রধান শিক্ষক টাকা আত্মসাৎ করার জন্য আমাকে না জানিয়েই উপবৃত্তির দেয়ার তারিখ নির্ধারণ করেছেন।
সদর উপজেলার সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আসাফ উদ দৌলা বলেন, উপবৃত্তির টাকা কম দেওয়ার অভিযোগে অভিযোগে অভিভাবকরা প্রধান শিক্ষককে অবরুদ্ধ করে রেখেছেন এমন খবর পেয়ে আমরা তিন কর্মকর্তা শনিবার বিকেলে স্কুলে যায়। সেখানে গিয়ে অভিভাবকদের সাথে কথা প্রধান উপবৃত্তির টাকা পুরো দেয়ার ব্যবস্থা করলে তারা প্রধান শিক্ষককে মুক্ত করে দেয়। পরে কয়েকজনকে টাকা দেয়ার পরপরই সন্ধ্যা হলে রবিবার বাকি শিক্ষার্থীদের টাকা দেয়া হবে জানিয়ে আমরা ফিরে আসি।
এ ব্যাপারে সদর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আপিল উদ্দিন রবিবার সকালে মেহেরপুর নিউজকে বলেন, বিষয়টি নিয়ে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তার সাথে জরুরী মিটিংয়ে বসা হয়েছে। প্রধান শিক্ষক মতিনুল ইসলামের বিরুদ্ধে উপবৃত্তির টাকা আত্মসাৎ’র চেষ্টার সত্যতা পাওয়া গেছে। আমারা তাকে সাময়িক বহি:স্কার ও বিভাগীয় মামলার সুপারিশ করে অধিদপ্তরে চিঠি পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.