Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / বাংলাদেশের অস্থায়ী সরকারের গার্ড অব অনার প্রদানকারী জীবিত ৪ আনসার সদস্য অভাব অনটনের মধ্য দিয়ে দিন পার করছে।। মৃত্যুর আগে রাষ্ট্রীয় খেতাব পেতে চায় জীবিত আনসার সদস্যরা

বাংলাদেশের অস্থায়ী সরকারের গার্ড অব অনার প্রদানকারী জীবিত ৪ আনসার সদস্য অভাব অনটনের মধ্য দিয়ে দিন পার করছে।। মৃত্যুর আগে রাষ্ট্রীয় খেতাব পেতে চায় জীবিত আনসার সদস্যরা

পলাশ খন্দকার:
১৭ এপ্রিল মেহেরপুরের মুজিবনগর আম্রকাননে(তৎকালিন বৈদ্যনাথতলায়) বাংলাদেশের  অস্থায়ী সরকার কে গার্ড অব অনার প্রদানকারী ১২ জন মুক্তিযোদ্ধা আনসারের মধ্যে জীবিত ৪ আনসার সদস্যরা বর্তমান সরকারের কাছি একটাই দাবী শুধূ আনসার সদস্য হিসেবে নয়, তাদেরকে রাষ্টীয় খেতাবে ভূ’ষিত করা হউক। বয়সের ভারে নুয়ে পড়া এসব বীর আনসার সদস্যরা রাষ্ট্রীয় খেতাব নিয়ে মরতে চায়। সরকারের সহযোগীতায় পরিবার থেকে দুর করতে চায় সকল অভাব অনটন।
আনসার সদস্যরা জানান,তারা অভাব অনাটনের মধ্য দিয়ে দিন পার করছে। সরকারের দেওয়া সামন্য ভাতা দিয়ে তাদের কিছুই হয়না। নুন আনতে পান্তা ফুরানোর মত অবস্থার সৃষ্টি হয়। আর্থিক অনটনের কারনে স্কুলে লেখা পড়ার খরচ চালাতে পারছেনা পরিবারের সদস্যদের। বয়স বেশি হয়ে যাওয়ায় কেউ কাজ না নেয়ায় তারা বর্তমানে বেকার জীবন যাপন করছে।
আনসার সদস্য মো: আজিমুর্দ্দিন শেখ বলেন,১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল বাংলাদেশের অস্থায়ী সরকারের গার্ড অব অনার প্রদানকারী একজন আনসার সদস্যে হিসেবে স্বাধীনতার ৪০ বছরে সরকার থেকে তেমন কোন অনুদান পায়নি। মাত্র মাসিক ১৫’শ টাকা ভাতা পাই। এটা খুবই নগ্ন। এত কম টাকা দিয়ে সংসসারের খরচ চালানো দুরহ ব্যাপার।স্বাধীনতার পক্ষের সরকারের কাছে জীবনের শেষ সময়ে এসে একটাই দাবী রাষ্ট্রীয় খেতাব নিয়ে যেন মরতে পারি।
৪০ বছর আগে ১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল শনিবার বেলা ১১ টার দিকে মেহেরপুরের বৈদ্যনাথতলার আম্রকাননে(বর্তমানে মুজিবনগর) এক অনাড়ম্বর পরিবেশে অনুষ্টিত হয়েছিল স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম অস্থায়ী সরকারের শপথ গ্রহন। শপথ অনুষ্ঠানে পাঠ করা হয় স্বাধীনতার ঘোষনা পএ। বাংলাদেশের প্রথম অস্থায়ী সরকারের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে অস্থায়ী সরকারের প্রধানকে গার্ড অব অনার প্রদানকরে মেহেরপুরের ১২ জন আনসার সদস্যে। ১২ জন আনসার সদস্যের মধ্যে জীবিত রয়েছে ৪ জন আনসার সদস্যে। জীবিত আনসার সদস্যরা হলেন,সিরাজুল ইসলাম,মো: আজিমুর্দ্দিন শেখ,মো: লিয়াকত আলী এবং হামিদুল হক। জীবিত থাকলেও এসব আনসার সদস্যেরা পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে। সরকারের দেওয়া ১৫’শ টাকা ভাতা দিয়ে চলেনা তাদের সংসার।
এছাড়াও মুজিবনগর সরকারকে গার্ড অব অনার প্রদানকারী মৃত ৮ জন মুক্তিযোদ্ধা আনছার সদস্য ও তাদের পরিবার পরিজনের দিন কাটছে অর্ধারে-অনাহারে। স্বাধীনতার ৪০ বছরের চাওয়া-পাওয়ায় মাঝে কোন সুখ খুজে পায়নি তারা। এপ্রিল মাস এলেই তাদের তাড়া করে ফেরে ১৭ এপ্রিলের সেই ক্ষনের স্মৃতি। সরকারের দেওয়া মাসিক ১৫’শ টাকা মুক্তিযোদ্ধার ভাতা দিয়ে কোন রকম চলছে তাদের সংসার। বিভিন্ন সময় পত্র-পত্রিকায় লেখালেখির কারণে ১৯৯৫ সালে তৎকালীন জেলা প্রশাসক ফার“ক আহমেদ ভ‚মিন্ত্রণালয়ের অনুমোদন নিয়ে পিসি ইয়াদ আলীকে ৫৬, ফকির মোহাম্ম,কে ৬৪, নজর“ল ইসলামকে ৬১, মফিজ উদ্দিনকে ৬৬ , কিসমত আলীকে ৪৫, মহিউদ্দিন কে ২৫, আজিমদ্দিন শেখ কে ৫১ , সাহেব আলী কে ৪১ , সিরাজুল ইসলামকে ৬১ , হামিদুল ইসলাম কে ৫৬ , লিয়াকত আলী কে ৭২ ও অস্থির মলি­ক কে ৫০ শতাংশ খাস জমি বরাদ্দ দেন এবং দলিল হস্তান্তর  করেন। কিন্তু জমি বরাদ্দ পেলেও কেউ কেউ পায়নি দখল।
আনসার সদস্য মো: সিরাজুল ইসলাম বলেন, ১৯৬৮ সালে আনসার বাহিনী থেকে ট্রেনিং প্রাপ্ত হই। ১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল মুজিবনগরে অস্থায়ী সরকারকে গার্ড অব অনার প্রদান করি আমরা ১২ জন আনসার সদস্য। ১২ জন আনসারের মধ্যে জীবিত রয়েছি ৪ জন। সরকার থেকে আমাদের জমি দিয়েছিল কিন্তু আমরা সকলে পায়নি। মাত্র ৪ জন জমি পেয়েছে। বাকী ৮ জন আনসার সদস্য জমি পায়নি। জমি না পাওয়া ৮ জন আনসার সদস্যকে জমি দেওয়ার জন্য সরকারের কাছে অনুরোধ করছি। সরকারের কাছে আমাদের অনুরোধ যারা জীবিত আছে তারা যেন সুচিকিৎসা পায় তার ব্যবস্থা নিবেন বর্তমান সরকার। বাংলাদেশের মানচিত্রের সামনে নির্মিত মুক্তিযুদ্ধ ভাস্কর্যে গার্ড অব অনার প্রদানকারী ১২ জন আনসারের মধ্যে মাত্র ৮ জনের ভাস্কর্য রয়েছে। সরকারের কাছে জোরদাবী আরোও ৪ জন আনসারের ভাস্কর্য তৈরী করা হউক। সংযুক্ত করা হউক গার্ড অব অনার প্রদানের নেতৃত্বদানকারী ক্যাপ্টেন মাহাবুবের ভাস্কর্য।
স্বাধীনতার ৪০ বছরে আনসার বাহিনী কিছুটা মূল্যায়ন করলেও সরকারিভাবে ততটা আমাদের মূল্যায়ন করা হয়নি। সরকারিভাবে মাসিক ভাতা দেওয়া হয় মাত্র ১৫’শ টাকা । যা দিয়ে সংসার চলেনা। খুব কষ্টে দিনযাপন করছি। সরকারিভাবে আমাকে বারিবাকা গুচ্ছ গ্রামে ৬১ শতক জমি দেয়। জমির দখলতো দুরের কথা বরঞ্চ জমির মামলা চালাতে গিয়ে জমির দামের চেয়ে বেশি টাকা খরচ হয়ে গেছে। বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকারের কাছে দাবী আমাদের কে রাষ্ট্রীয় খেতাবে ভুষিত করা হউক। রাষ্ট্রীয় খেতাব নিয়ে যেন মরতে পারি।
বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকারের কাছে দাবী আমাদের কে রাষ্ট্রীয় খেতাবে ভুষিত করা হউক। রাষ্ট্রীয় খেতাব নিয়ে যেন মরতে পারি। পাশাপাশি বঙ্গবন্দ্ধু কন্যা শেখ হাসিনার কাছে দাবী,১৭ এপ্রিলকে জাতীয়করন করে ছুটির দিন ঘোষনা করা হউক।
গার্ড অব অনার প্রদানকারী ১২ আনসার সদস্যের মধ্যে মৃত পিসি ইয়াদ আলী ও আনসার সদস্য মৃত ফকির মোহম্মদের পরিবার সরকারি মাসিক ১৫’শ টাকা ভাতা সহ কোন সরকারি কোন সাহায্য পায়না।
আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর জেলা কমান্ড্যান্ট বলেন,পিসি ইয়াদ আলী মুক্তিযোদ্ধা সনদ পত্র সহ অন্যান্য কাগজাদি জমা দিতে না পারায় এবং আনসার সদস্য ফকির মোহাম্মদ ও তার স্ত্রী দু’জনের মৃত্যুজনিত কারনে মাসিক ভাতা পাচ্ছেননা।
মুজিবনগর সেই জায়গা যে জায়গায় থেকে বাংলাদেশ পুন:জীবন লাভ করে। বর্তমান সরকারের কাছে আমাদের অনুরোধ এই দিনটিকে জাতীয়করন করা হউক। কারন এদেশে  সপ্তাহে দু’দিন ছুটি। অথচ এমন একটা দেশ,এদেশ যেখান থেকে জন্ম পেলো সে জায়গায় কোন মূল্যায়ন দেয় নাই। সে জায়গাটাকে জাতীয়করন করলো না। এটা আমাদের জন্য সবচেয়ে
দু:খ জনক বিষয়। আমরা ১২ জন আনসার ১৭ এপ্রিল অস্থায়ী সরকারকে গার্ড অব অনার প্রদান করি। তার মধ্যে ৮ জন মারা গেছে। জীবিত আছি আমরা ৪ জন আনসার। বর্তমানে আমাদের সকলের শারীরিক অবস্থা খুবই খারাপ। আমরা সুচিকিৎসা পায়না। সরকারের কাছে আমাদের অনুরোধ সরকার যদি আমাদের সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করে তাহলে আমরা উপকৃত হবো। যে সময় আমরা গার্ড অব অনার দিয়েছি ৭১’ সালে মুক্তিযোদ্ধা ছিলনা আজ তারা দেশে ফিরে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে দাবী করে অনেক কিছু করেছে। সরকারের কাছে অনেক সুবিধা নিচ্ছে। কিন্তু আমরা যে কাজ করেছিলাম,যদি বাংলাদেশ স্বাধীন না হতো তাহলে আমাদের এই ১২ জনের বংশচর কাউকেই বাঁচিয়ে রাখতো না। তারা ফিরে এসে নানা অজুহাতে নিজেদের কে বাঁচাতে পারতো কিন্তু আমাদের লোকানোর কোন উপায় ছিলোনা। বিশ্ববাসীর কাছে ১৭ এপ্রিলের ঘটনার প্রমান ছিল। এতবড় জীবনের ঝুকি নিয়ে কাজ করলাম কিন্তু প্রতিদানে সরকার কি করলো।
কষ্টের বিষয় হচ্ছে ১২ জন আনসার সদস্য গার্ড অনার প্রদান করলেও বাংলাদেশের মানচিত্রের সামনে তৈরী মুক্তিযুদ্ধ ভাস্কর্যে ৮ জন আনসার সদস্য স্থান পেলেও অদৃশ্য কারনে বাদ পড়েছে ৪ জন আনসার সদস্য। এটা আমাদের অত্যন্ত কষ্টের। সরকার আমাকে জমি দিয়েছে বসন্তপুর মৌজায়। যা আমার বাড়ি থেকে ২০/২২ কি:মি: দুরে অবস্থিত। না পারছি চাষ করতে, না পারছি বর্গা দিতে পারছিনা। সরকার যদি জমিটি  কাছিকাছি নিয়ে এনে দিতো তাহলে উপকার হতো।
তিনি বলেন,১২ জন আনসারের মধ্যে ৪ জন বেঁচে আছি। সরকার যদি শেষ বয়সে রাষ্ট্রীয় খেতাবে ভুষিত করতো তাহলে গর্বের সাথে পৃথিবী থেকে বিদায় নিতে পারতাম।
আনসার সদস্য মো: হামিদুল হক বলেন,বাংলাদেশের মানচিত্রের সামনে নির্মিত মুক্তিযুদ্ধ ভাস্কর্যে গার্ড অব অনার প্রদানকারী ১২ জন আনসারের মধ্যে মাত্র ৮ জনের ভাস্কর্য রয়েছে। সরকারের কাছে জোরদাবী আরোও ৪ জন আনসারের ভাস্কর্য তৈরী করা হউক। পাশাপাশি গার্ড অব অনার প্রদানকারী আনসার সদস্যেদের বীরশ্রেষ্ট খেতাবে ভুষিত করা হউক।
বাংলাদেশের অস্থায়ী সরকারকে গার্ড অব অনার প্রদানকারী জীবিত ৪ আনসার সদস্যের এক দাবী তাদের কে রাষ্ট্রীয় খেতাবে ভুষিত করা হউক। তৈরী করা হউক বাদ পড়া আরোও ৪ আনসার সদস্যের ভাস্কর্য।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.