Templates by BIGtheme NET
Home / অতিথী কলাম / বাজেট ও আমার ভাবনা

বাজেট ও আমার ভাবনা

এম এ এস ইমন:
অনেকে মন্তব্য করেন, কর বা ভ্যাট বাড়লে সব টাকা রাজনীতিবিদদের পকেটে যায়। কিভাবে? করের টাকা থাকে রাষ্ট্রীয় কোষাগারে, ব্যয় হয় দেশের উন্নয়নে। প্রতিবারের মতো এবারও ওই গদবাধা কথা। উচ্চাভিলাষী বাজেট, জন দুর্ভোগ বাড়বে। নিজেকে দিয়ে বিচার করুন তো বিএনপির আমলে কেমন ছিলেন। এখন দেশে মংজ্ঞা আছে কিনা? যার বাড়িতে অভাব ছিল তার বাড়িতে টিভিসেট, ফ্রিজ, মোটরবাইক দেখা যায় কিনা? না খেয়ে ছেড়া জামা পরে কয়জনকে দেখা যায়?
মানুষের জীবনযাত্রার মান বেড়েছে কিনা?

আর কিছুক্ষেত্রে বাড়তি কর না নিলে দেশের উন্নয়নকাজ কিভাবে হবে? মনে আছে, বিদেশ বিদেশ ভিক্ষার থলি নিয়ে ঘুরেও পদ্মা ব্রিজ করতে পারি নি। এখন নিজ টাকায় করছি। ওই সময় বলা হয়েছিল নিজ টাকায় সেতু। সব না খেয়ে মরবে। তা কিন্তু হয় নি। তাছাড়া যে সব মেগা প্রকল্প এর কাজ চলছে, তা বাস্তবায়ন করতে গেলে কিছুটা সহ্য করতেই হবে। বাজেট নিয়ে যখন দেশ বিদেশের অর্থনীতিবিদ, বিশ্বব্যাংক সবাই প্রশংসা করেন তখন কিছু গোষ্ঠী গদবাধা কথা নিয়ে হাজির।

এবার প্রশ্নঃ এবারের বাজেট কয়জন পড়েছেন?

জানেন কি? নিত্যপণ্য ক্রয়ে কোন ভ্যাট থাকছে নাঃ- প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী প্রস্তাবিত বাজেটে ১২৭ পণ্য ও সেবা খাতে ভ্যাট অব্যাহতি সুবিধা থাকছে। এছাড়া প্রায় ১২শ’ নিত্যপণ্য ক্রয়ে কোন ভ্যাট থাকছে না। ভ্যাট অব্যাহতিপ্রাপ্ত মৌলিক খাদ্যপণ্যের মধ্যে রয়েছেÑ চাল, ডাল, ডিম, ফল, তরল দুধ, ভোজ্যতেল, পেঁয়াজ, রসুন, হলুদ, মরিচ, মাংস, মুড়ি, চিঁড়া, আলুসহ সব ধরনের সবজি।

সকল প্রকার কৃষিজ পণ্য, হাঁস-মুরগি, গবাদিপশু, পশুর মাংস, মাছ, ফলমূল, শাকসবজি, ভোজ্যতেল, চিনি, গুড়, লবণ, তুলা, পাট, রেশম সুতাসহ ৫৪৯টি পণ্য মূসকের আওতার বাইরে রাখা হয়েছে। ৯৩ ধরনের জীবন রক্ষাকারী ওষুধ, গণপরিবহন সেবা, জনস্বাস্থ্য, চিকিৎসাসেবা, শিক্ষা ও প্রশিক্ষণের ওপর ভ্যাট অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।
বাংলাদেশের অভ্যন্তরে সব অস্থায়ী হোটেল ও রেস্তরাঁয় খাদ্যদ্রব্য সরবরাহকে অব্যাহতি প্রদান করা হয়েছে। অর্থাৎ সাধারণ মানুষ যেসব হোটেলে খাওয়া-দাওয়া করে, তাতেও ভ্যাট হবে না। এছাড়া বাণিজ্য সুরক্ষার জন্য আমদানি পর্যায়ে ১ হাজার ৬৬৬টি এইচএস লাইনের আওতায় বিদ্যমান সব পণ্যে সম্পূরক শুল্কারোপ করা হয়েছে। এছাড়া কৃষি, গবাদিপশু ও মৎস্য চাষ খাত সংশ্লিষ্ট ৪০৪টি ক্ষেত্রে ভ্যাট অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। প্রসঙ্গত, ভ্যাট আদায়ের মাধ্যমে ৯১ হাজার ১৭৬ কোটি টাকা রাজস্ব আদায়ের আশা করছেন মুহিত, যা এনবিআরের মাধ্যমে তার ২ লাখ ৪৮ হাজার ১৯০ কোটি টাকা রাজস্ব আহরণ পরিকল্পনার ৩৬ দশমিক ৮ শতাংশ।

জীবন রক্ষাকারী প্রায় সব ওষুধে মূসক অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। সমাজকল্যাণ কার্যক্রমকে মূসকের আওতার বাইরে রাখা হয়েছে। প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা কার্যক্রমের জন্য পাঠ্যপুস্তক সরবরাহ কার্যক্রমে ৫ শতাংশ ভ্যাট অব্যাহতি। কৃষিকাজে ব্যবহৃত উপকরণ, যেমন ঃ বীজ, সেচ সেবা, কীটনাশক, যন্ত্রপাতি মূসকের আওতার বাইরে। ডেইরি, ফাউড্রি, পাটশিল্পের কাজে ব্যবহৃত সব যন্ত্রপাতিতে মূসক অব্যাহতি সব ধর্মীয় ও সাংস্কৃতিক কর্মকা- ভ্যাটের আওতার বাইরে রাখা হয়েছে।

দাম কমবেঃ-
বাজেটে শুল্কহার হ্রাস ও কর রেয়াতির প্রস্তাব করায় বেশ কিছু পণ্য ও যন্ত্রপাতির দাম কমতে পারে। এরমধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে চাল, ডাল, ডিম, ফল, মাছ, মাংস, মধু, তরল দুধ, লবণ ভোজ্যতেল, পেঁয়াজ, রসুন, হলুদ, মরিচ, মাংস, মুড়ি, চিঁড়া, চিনি, আলুসহ সব ধরনের শাক সবজিসহ প্রায় ৫৪৯টি পণ্যের উপর ভ্যাট অব্যাহতির প্রস্তাব করা হয়েছে। এছাড়া কলা, খেজুর, ডুমুর, আনারস, পেয়ারা, আম, গাব, লেবুজাতীয় ফল, আঙ্গুর, তরমুজ, আপেল, নাশপাতিসহ যেকোন ফল, গোলমরিচ, ভ্যানিলা, দারুচিনি, লবঙ্গ, জায়ফল, জৈত্রী, এলাচ, মৌরী, ফেনেল, ধনিয়া, জিরা, আদা, জাফনার, হলুদ, তেজপাতা, কারি, মসলা, গম, মেসলিন; রাই, বার্লি, জই, ভুট্টা, ধান, সব ধরনের চাল, মুড়ি, সোরঘাম শস্য, বাজরা, ক্যানারাই বীজও ভ্যাট অব্যাহতিপ্রাপ্ত পণ্যের তালিকায় রয়েছে। ভ্যাট না থাকায় খরচ বাড়বে না দেশের মধ্যে (সরবরাহ) এ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস, শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত যানবাহনের মাধ্যমে পরিবহন সেবা, ভাড়াকৃত পরিবহন ছাড়া ট্যাক্সি, বাস, মিনিবাস, লঞ্চ, স্টিমার, ফেরির মাধ্যমে পরিবহন সেবারও। এয়ারলাইন্স (চার্টার্ড বিমান ও হেলিকপ্টার ভাড়া প্রদানকারী সংস্থা ব্যতীত) ও খাদ্যশস্য পরিবহন সেবাদাতাদেরও বাড়বে না খরচ। কৃষি পণ্যের মধ্যে বীজ, সব ধরনের সেচ সেবা, বীজ সংরক্ষণ সেবা, মৎস্য, জলজপ্রাণী ও জলজ সম্পদ আহরণ ও সংরক্ষণ সংক্রান্ত সেবা। সিলিন্ডার ক্যাপাসিটি ভেদে কমবে হাইব্রিড গাড়ির দাম। এছাড়া তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি খাতে স্থানীয় সংযোজন ও উৎপাদনকে উৎসাহিত করতে যন্ত্রাংশ ও কাঁচামালের উপর কর ও শুল্ক ছাড় দেয়া হয়েছে। এর ফলে দেশে সংযোজিত ও উৎপাদিত কম্পিউটার, ল্যাপটপ, ট্যাব ও ফোনের দাম কমবে। প্রস্তাবিত বাজেটে কম্পিউটার, ল্যাপটপ ও ট্যাব উৎপাদনে ব্যবহার হয় এমন প্রায় ৫০টি পণ্যে আমদানি শুল্ক কমিয়ে অভিন্ন ১ শতাংশ করা হয়েছে। এছাড়া ৯৩ ধরনের জীবন রক্ষাকারী ওষুধ এবং গণপরিবহন সেবা, জনস্বাস্থ্য ও চিকিৎসা সেবা, শিক্ষা, ও প্রশিক্ষণের ওপর ভ্যাট অব্যাহতির প্রস্তাব করা হয়েছে। এছাড়া দেশীয় শিল্পের বিকাশ এবং প্রতিযোগিতামূলক রফতানি বাণিজ্যের লক্ষ্যে রেফ্রিজারেটর ও ফ্রিজ, এসি, পাম ওয়েল, সয়াবিন তেল ও এলপিজি সিলিন্ডার স্থানীয়ভাবে উৎপাদনে ২০১৯ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত ভ্যাট অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। ফলে এসব পণ্যের দাম কমবে।

লেখক: সদস্য, প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক উপকমিটি, বংলাদেশ আওয়ামীলীগ ও পরিচালক, পেট্রবাংলার অধিনস্ত রুপান্তরিত প্রাকৃতিক গ্যাস কো. লি:

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.