Templates by BIGtheme NET
Home / আইন-আদালত / বাবলু বিশ্বাসের দায়ের করা কোটি টাকার মানহানি মামলায় জামিন পেলেন সাংবাদিক পোলেন

বাবলু বিশ্বাসের দায়ের করা কোটি টাকার মানহানি মামলায় জামিন পেলেন সাংবাদিক পোলেন

Polen-id-1-287x300-horzমেহেরপুর নিউজ, ১৮ জুলাই:
গম সংগ্রহ নিয়ে দূর্নীতির সংবাদ প্রকাশ হওয়ায় জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও পিরোজপুর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুস সামাদ বাবলু বিশ্বাসের করা কোটি টাকার মানহানি মামলা থেকে জামিন পেলেন সাংবাদিক মাহাবুবুল হক পোলেন।
সোমবার দুপুরে মেহেরপুর চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিট্রেট মোঃ নাহিদুজ্জামানের আদালতে জামিনের আবেদন করলে উভয় পক্ষের শুনানী শেষে বিজ্ঞ বিচারক তার জামিন মঞ্জুর করেন।
মামলার বিবরণে জানা গেছে, গত ১৮/০৫/১৬ তারিখে প্রকাশিত বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকার শেষ পাতায় “বাজার থেকে গম কিনে গুদামে দিচ্ছেন ক্ষমতাশীন নেতারা” শীর্ষক শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ হওয়ায় জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও পিরোজপুর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুস সামাদ বাবলু বিশ্বাস ২২ মে ২০১৬ ইং তারিখে
মেহেরপুরের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট-২ আদালতে কোটি টাকার মানহানি মামলা দায়ের করেন।
2মামলায় সাক্ষী করা হয় সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও আমঝুপি ইউপি চেয়ারম্যান রোরহান উদ্দিন চুন্নুকে ১ নম্বর এবং মুজিবনগর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও মহাজনপুর ইউপি চেয়ারম্যান আমাম হোসন মিলু ২ নম্বর সাক্ষী করা হয়।
মামলায় বাদি পক্ষে অ্যাড. খন্দকার আব্দুল মতিনের নেতৃত্বে ৪ সদস্যার আইনজীবি প্যানেল এবং আসামী পক্ষের জেলা আইনজীবি সমিতির সভাপতি অ্যাড. মারুফ আহামেদ বিজন ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. ইয়ারুল ইসলামের নেতৃত্বে ২০ সদস্যার আইনজীবী প্রতিনিধি শুনানিতে অংশ গ্রহন করেন। আসমী পক্ষে অন্য আইনজীবীদের মধ্যে আউনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. কামরুল হাসান, আসাদুল আজম খোকন, অ্যাড. মনিরা হাসান মিলি, একেএম শফিকুল আলম, আব্দুল আলিম, আফরোজা বেগম ফাতেমা, মোস্তাফিজুর রহমান, নুরুজ্জামান, মিজানুর রহমান, এহান উদ্দিন মনা, আলমগীর হোসেন, রনি প্রমুখ।
বাংলাদেশ প্রতিদিনের যে সংবাদের কারণে এই মামলা পাঠকদের জন্য তা হুবুহু তুলে ধরা হলো:

বাজার থেকে কিনে গুদামে গম বিক্রি করছেন নেতারা
2016-05-18_12মেহেরপুর প্রতিনিধি, বাংলাদেশ প্রতিদিন, শেষ পাতা, ১৮ মে ২০১৬
গেল বছর চাষি সেজে জেলার খাদ্য গুদামগুলোয় গম সরবরাহ করেছিল ক্ষমতাসীন দলের নেতা-কর্মীদের সিন্ডিকেট। এবারও সেই একই কৌশলে সরকারি গুদামে গম সরবরাহ করছেন দলের নেতা-কর্মীরা। সরকারি ঘোষণা অনুযায়ী ২৪ এপ্রিল মেহেরপুরে আনুষ্ঠানিকভাবে গম সংগ্রহ অভিযান শুরু হয়েছে। তবে এখনো কোনো কৃষক গম দিতে পারেননি। গম সংগ্রহ অভিযান শেষ হবে ৩১ মে। কেজিপ্রতি গমের সরকার নির্ধারিত মূল্য ২৮ টাকা। অন্যদিকে বাজারে ১৭-১৮ টাকা। সরকার নির্ধারিত মূল্য কেজিতে ১০-১১ টাকা বেশি হওয়ায় ক্ষমতাসীন দলের সিন্ডিকেটগুলো গম দিতে সক্রিয় হয়ে উঠেছে। জেলা ও উপজেলায় গম ক্রয় কমিটি বৈঠক করলেও কবে গম কেনা শুরু হবে তা চাষিদের জানানো হয়নি। তবে সিন্ডিকেট ইতিমধ্যে গুদামে গম ঢোকাতে শুরু করেছে। খোলা বাজার থেকে কম দামে কিনে বেশি দামে সরকারি গুদামে গম দিয়ে যে বিপুল পরিমাণ লাভ আসবে তা ভাগাভাগি হবে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ বিভিন্ন নেতা-কর্মীর মধ্যে। তবে লভ্যাংশের বেশির ভাগটি যাবে এমপিদের পকেটে। মূলত জেলার এমপিরাই সিন্ডিকেটের নেপথ্যে থেকে কলকাঠি নাড়ছেন। কেন্দ্রীয় গম সংগ্রহ কমিটির একজন সদস্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, গত বছর এমপি ও তার স্বজনরা যেভাবে গমের লাখ লাখ টাকা পকেটে ভরেছেন একইভাবে এবারও ভরবেন। খাদ্য অধিদফতর থেকে জানা গেছে, চলতি বছর ৫ হাজার ৯৬০ মেট্রিক টন গম সংগ্রহ করা হবে। খাদ্য সংগ্রহ নীতিমালা অনুযায়ী উপজেলায় গমের বরাদ্দকৃত কোটা ইউনিয়ন ভিত্তিতে ভাগ হবে। উপজেলা ও ইউনিয়ন কৃষি কর্মকর্তারা গম চাষি শনাক্ত করবেন। শনাক্ত হওয়া চাষিরা জাতীয় পরিচয়পত্র ও কৃষি উপকরণসহায়ক কার্ড দেখিয়ে গম দিতে পারবেন। একজন চাষি সর্বনিম্ন ১০০ কেজি ও সর্বোচ্চ ৩ টন পর্যন্ত সরকারি গুদামে গম দিতে পারবেন। নীতিমালায় আরও বলা আছে, প্রকৃত কৃষক ছাড়া আন্যের কাছ থেকে গম কেনা যাবে না। কিন্তু মেহেরপুর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক শহিদুল ইসলাম পেরেশান বলেন, আমঝুপি গুদামের প্রকৃত গম চাষিদের গম দিতে দেওয়া হচ্ছে না। পিরোজপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুস সামাদ বাবলু বিশ্বাস, আমঝুপি ইউনিয়নের বোরহান উদ্দিন চুন্নু ও মহাজনপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আমাম হোসেন মিলুর পছন্দের লোক ছাড়া কেউ গম দিতে পারছে না। জেলার খাদ্য গুদামে এদের স্বাক্ষরিত স্লিপ নিয়ে গম সরবরাহ করতে হচ্ছে। কোনো কৃষক গম নিয়ে গেলে পেটোয়া বাহিনী তাদের মারধর করে তাড়িয়ে দিচ্ছে। আমঝুপি গ্রামের কৃষক আমানুল্লাহ বলেন, ‘গত মঙ্গলবার আমঝুপি খাদ্য গুদামে গম দিতে গেলে বোরহান উদ্দিন চুন্নুর স্লিপ না থাকায় তার লোকজন আমাকে ও অন্য কৃষক জুয়েলকে মারধর করেন। এ বিষয়ে খাদ্য গুদামের কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ করেও কোনো ফল পাইনি।’ গাংনী উপজেলার চাষি রাসেল বলেন, ‘ক্ষমতাসীন এমপি ও নেতাদের কারণে গুদামের সামনেই যাওয়া যাচ্ছে না।’ সদর উপজেলার কৃষক রাইহানুর বলেন, ‘চাষিরা কৃষি উপকরণসহায়তা কার্ড নিয়ে গিয়েও গম দিতে পারছেন না।’ এদিকে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে চাষিদের মাঝে গম কেনার ব্যাপারে কোনো প্রচার-প্রচারণাও চালানো হচ্ছে না। ফলে অনেক গম চাষি এখনো জানেন না সরকারিভাবে গম কেনার কথা। গুদামের গেটে বসানো হয়েছে পুলিশ প্রহরা, কোনো কৃষক গম নিয়ে গেলে পুলিশ দিয়ে তাদের ফিরিয়ে দেওয়া হচ্ছে। কৃষি উপকরণসহায়তার কার্ড নিয়ে গেটের সামনে কৃষকের বিক্ষোভেও কোনো লাভ হয়নি। এদিকে ক্ষমতাসীন দলের চক্রগুলো নিজেরাই বাজার থেকে গম কেনা শুরু করেছে। আবার কেউ কেউ সিন্ডিকেট গুদামে গম সরবরাহের টোকেন পাইকারি ও বেপারিদের কাছে বিক্রি করে দিচ্ছে। মেহেরপুর জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তা আবদুল ওয়াহেদ বলেন, কৃষি উপকরণসহায়তা কার্ড ও ব্যাংক হিসাব দেখেই চাষিদের কাছ থেকে গম নেওয়া হচ্ছে। কোনো ব্যক্তির স্লিপে গম নেওয়া হচ্ছে বলে তিনি জানেন না।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful