Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / বাবার চেয়ে বড় ডাক্তার হওয়ার স্বপ্ন পূরণ হলো না সেতুর।। মঙ্গলবার সেতুর কলেজে শোক র‌্যালী

বাবার চেয়ে বড় ডাক্তার হওয়ার স্বপ্ন পূরণ হলো না সেতুর।। মঙ্গলবার সেতুর কলেজে শোক র‌্যালী

বিশেষ প্রতিবেদন

মুজাহিদ মুন্না,মেহেরপুর নিউজ ২৪ ডট কম,২৫মার্চ:
ছোট থেকে স্বপ্ন ছিলো বড় হয়ে বাবার চেয়ে বড় ডাক্তার হবে। সেবার মনোভাব নিয়ে দাঁড়াবে গরীব ও অসহায় মানুষের পাশে। এমন আসা নিয়ে মেহেরপুর ছেড়ে কুষ্টিয়া সরকারি মহিলা কলেজে একাদশ শ্রেণীর বিজ্ঞান বিভাগে ভর্তি হয়েছিল হাবীবা খন্দকার সেতু। গত মঙ্গলবার ছুটিতে বাড়ি এসেছিল সে। কিন্তু তার আর কুষ্টিয়ায় ফিরে যাওয়া হলোনা।
গত বৃহস্পতিবার রাতে নিজ বাড়িতে বাবাকে বাঁচাতে গিয়ে সন্ত্রাসীদের ছোঁড়া বোমার আঘাতে প্রাণ দিতে হল তাকে। এর আগে বাবা হামিদুর রহমান হেলাল কে কুপিয়ে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। দুই মেয়ে ও এক ছেলের সংসার পলি­ চিকিৎসক ও মুজিবনগর উপজেলা বিএনপির যুগ্ন সম্পাদক হামিদুর রহমান হেলালের। বড় মেয়ে হিতু ঢাকা আমেরিকা-বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটিতে বিবিএতে ৪র্থ সেমিষ্টারে পড়েন। ছোট্ট ছেলে শাওন কুষ্টিয়া আব লরিয়েটস স্কুল এন্ড কলেজের এর ৭ম শ্রেণীর ছাত্র। মেজ মেয়ে সেতু ২০১২ নাটু দা সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়ে পাশ করে। বাবার ডাক্তারী পেশা দেখে তারও স্বপ্ন জাগে বড় হয়ে একজন নামকরা ডাক্তার হবে। মানুষকে সেবা দেবে। দুঃস্থ মানুষের পাশে দাঁড়াবে। তার এ স্বপ্নের প্রতি গুরুত্ব দিয়ে বাবা তাকে ভর্তি করে কুষ্টিয়া সরকারি মহিলা কলেজে। বিজ্ঞান বিভাগে একাদশ শ্রেণিতে পড়ছিল সে। ছুটি পেয়ে গত মঙ্গলবার বাড়ি আসে।
বৃহস্পতিবার সন্ধায় বাবার সাথে বসে ভাত খাওয়ার অপেক্ষায় ছিল সেতু। বাবা পল্লী চিকিৎসক বিএনপি নেতা হামিদুর রহমান হেলালেরও  বাড়ি ফিরে মেয়ের সাথে ভাত খাবার কথা ছিল। সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টার দিকে বাবা বাড়ি ফিরে আসে। পাশের ঘরে বসে  পড়ালেখা করছিল সেতু। পড়া শেষ করে বাবাকে নিয়ে রাতের খাবার খাবে। কিন্তু সে আশা পূরণ হলো না বাবা ও মেয়ের।
সন্ধা পৌনে ৭ টার দিকে বাবা হেলাল ও ছোট মেয়ে সেতু সন্ধ্যায় একসাথে বসে গল্প করছিল। এ সময় ঘরের দরজায় কড়া নাড়ে কয়েক জন যুবক। তারা ডাক্তার দেখাবার জন্য তাকে বেরিয়ে আসতে বলে। শব্দ পেয়ে ঘরের দরজা খোলে হেলাল উদ্দিন। এ সময় ৫/৬ জন অস্ত্রধারী ঢুকে পড়ে তাকে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে। বাবাকে বাঁচাতে ছুটে যায় পাশে দাঁড়িয়ে থাকা মেয়ে সেতু। তাকেও ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে সন্ত্রাসীরা। বাবা প্রাণ বাঁচাতে বাড়ি থেকে বেরিয়ে রাস্তায় চলে যায়। সেখানে অবস্থান নেয়া আরও কয়েকজন সন্ত্রাসী তাকে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে। তাতে তার মৃত্যু হয়। মেয়ে সেতুও বাবার পিছন পিছন ছুটে যায়। এতে ক্ষুব্ধ সন্ত্রাসীরা তাকে লক্ষ্য করে তিনটি বোমা ছুঁড়ে মারে। বোমার স্প্রিন্টারে মাথায় আঘাত পেয়ে গুরুতর যখম হয়ে সে। তাকে মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। টানা পাঁচ ঘন্টা মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে চলে যায় সে না ফেরার দেশে। শুক্রবার সকালে বাবা ও মেয়ের ময়না তদন্ত সম্পন্ন করেছে পুলিশ।
সেতুর মা সন্ধা রানী খন্দকার বলেন, তার স্বমীর কোন শত্র ছিল না। কি কারণে তার স্বামীকে ও তার মেয়ে  হত্য করা হয়েছে তাও জানাতে পারেনি তিনি।
সেতুর বান্ধবি ও হোষ্টেলের রুমমেট সুমাইয়া জাহান শখি বলেন সেতু আমার খুব কাছের বান্ধবি ছিলো সে সব সময় দেশ ও দশের জন্য ভাবতো বড় ছোট সকলের সাথে মিশতো আমরা বিশেষ করে আমি তাকে খুব মিছ করছি কারণ সে বাড়ি জাবার সময় আমাকে দেখে শুনে থাকতে বলে যায় কারণ দেশের রাজনৈতিক অবস্তা ভালো না কিন্তু সে আজ আমাদের সকলকে ছেড়ে নাফেরার দেশে চলে গেলো এটা আমি কিছুতেই মেনে নিতে পারছিনা।
কুষ্টিয়া মহিলা কলেজের বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক ও হল সুপার সাইদুল ইসলাম বলেন সেতু কলেজের বেগম রোকেয়া হোষ্টেলের ১০৬ নং রুমে থাকতো সে এই কলেজে ভর্তি হবার পর এই প্রথম দুই দিনের জন্য বাড়িতে বেড়াতে যায় কিন্তু সে যাওয়াই তার শেষ যাওয়া  বে তা ভাবিনি। সে খুবই শান্ত শিষ্ট ছিলো সে সব সময় বড় মাপের ডাক্টার হওয়ার স্পন দেখতো কিন্তু সে আশা সত্রাসীরা পুরোন হতে দিলো না। কুষ্টিয়া সরকারি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ ড.জমির উদ্দিন বলেন সেতুর মূত্যতে আমরা আমাদের কলেজ থেকে এক জন মেধাবিকে হারালাম তার মূত্যর আমাদের কলেজের সকলকে ব্যাথিত করেছে। আমরা সেতু ও তার বাবা হত্যার বিচার চাই। আগামি কাল মঙ্গলবার কলেজে সেতুর আত্বার মাগফেরাত কামনায় কলেজে দোয়া মাহাফিল ও শোক র‌্যালি করবো।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.