Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / বিএসএফ মেহেরপুর শোলমারী সীমান্ত থেকে ৪ বাংলাদেশী কিশোরকে অপহরণ করেছে।। ২ ঘন্টার পতাকা বৈঠক বিফল।।১০ দিনে তাদের ভাগ্যে কি ঘটেছে তা জানা যায়নি

বিএসএফ মেহেরপুর শোলমারী সীমান্ত থেকে ৪ বাংলাদেশী কিশোরকে অপহরণ করেছে।। ২ ঘন্টার পতাকা বৈঠক বিফল।।১০ দিনে তাদের ভাগ্যে কি ঘটেছে তা জানা যায়নি

মেহেরপুর নিউজ ২৪ ডট কম,১৬ মে:
মেহেরপুর জেলা সদরের শোলমারী সীমান্ত থেকে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) ৪ বাংলাদেশী কিশোরকে অপহরন করে নিয়ে গেছে। ঘটনার এক ঘন্টার মধ্যে এক শিশু ফিরে এসে বাড়িতে খবর দেয়। এঘটনায় বিজিবি-বিএসএফ’র মধ্যে পতাকা বৈঠক হলেও ফেরত পাওয়া যাযনি আটকে পড়া ৩ বাংলাদেশী কিশোরকে। গত ১০ দিনে তাদের ভাগে কি ঘটেছে তা জানা যায়নি। এ ঘটনায় অবশেষে মেহেরপুর সদর থানায় একটি জি ডি হয়েছে।
এলাকাবাসী জানায়, গত ৬ মে দুপুরের দিকে মেহেরপুর সদর উপজেলার শোলমারী পাঠান পাড়া গ্রামের আজাদ আলীর ছেলে মাসুদ(১৫) ও হাসিবুল(১২), একই গ্রামের মোশারফ হোসেনের ছেলে হারিবুর রহমান(১৪) ও ফজেল আলীর ছেলে মিলন (১৫) পার্শ্ববর্তী হাজরাগাড়ীর মাঠে ঘাস কাটতে যায়। এক পর্যায়ে তাদের পানি পিপাসা লাগলে তারা ভারতের তার কাটার সীমান্ত ঘেঁষা টিউবওয়েলে পানি পান করতে যায়। ওই সময় ভারতের নদীয়া জেলার করিমপুর থানার ইলশিমারী ক্যাম্পের বিএসএফ তাদের অপহরন করে নিয়ে যায়। এর কিছুক্ষনের মধ্যে হাসিবুল বিএসএফ’র চোখকে ফাঁকি দিয়ে পালিয়ে বাড়ি ফেরে এবং সব ঘটনা খুলে বলে।
এ ঘটনায় অপহৃত কিশোরদের অভিভাবকরা শোলমারী বিজিবি ক্যাম্পের জওয়ানদের জানায়। তারা কিশোরদের ফিরিয়ে এনে দেবে বলে শান্তানা দিয়ে ঘটনার কথা পুলিশ, আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে ও সাংবাদিকদের বলতে নিষেধ করে। কিশোরদের ফিরে আনতে বিজিবি’র উদ্যোগের অভাব দেখা দিলে গ্রামবাসির মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। পরে গ্রামবাসীর চাপের মুখে বিজিবি পতাকা বৈঠকের জন্য বিএসএফকে অনুরোধ জানায়। শেষ পর্যন্ত ১০ দিনের ব্যবধানে শনিবার দুপুরে মেহেরপুর সীমান্তের ১২৮ নং মেইন পিলারের কাছে বিজিবি-বিএসএফ’র মধ্যে পতাকা বৈঠক হয়। পতাকা বৈঠকে বাংলাদেশের পক্ষে শোলমারী বিওপি’র সুবেদার জামাত আলী ও ভারতের পক্ষে ইলিশিমারী ক্যাম্পের সুবেদার রামপাল নেতৃত্ব দেন। ২ ঘন্টার পতাকা বৈঠক অবশেষে অমিমাংশিত ভাবে শেষ হয়।
ঘটনার পর রোববার মেহেরপুর সদর থানায় একটি জিডি এন্টি হয়েছে। এদিকে গত এক পক্ষকালে ৩ কিশোরের ভাগ্যে কি ঘটেছে তারা জানা যায়নি।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.