Templates by BIGtheme NET
Home / বর্তমান পরিপ্রেক্ষিত / বিজয় দিবসে মেহেরপুর হাসপাতালে নিম্ম মানের খাবার পরিবেশনের অভিযোগ

বিজয় দিবসে মেহেরপুর হাসপাতালে নিম্ম মানের খাবার পরিবেশনের অভিযোগ

মেহেরপুর নিউজ,১৬ ডিসেম্বর:
মহান বিজয় দিবসে উন্নতমানের খাবার পরিবেশনের কথা থাকলেও মেহেরপুর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ন্মি¥মানের এবং পরিমাপে কম দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।
নিয়ামানুযায়ী জাতীয় দিবস উপলক্ষে রোগী প্রতি ৩০০ গ্রাম খাসির মাংস হিসেবে ৭৪ কেজি দেওয়ার কথা থাকলেও ৫৯ কেজি পাঠির মাংস দেওয়া হয়েছে। চিকন চালের বদলে দেওয়া মোটা চালের ভাত। এছাড়াও দই মিষ্টি দেওয় হয়েছে দুর্ঘন্ধযুক্ত।
মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে মেহেরপুর পৌর মেয়র ও জেলা যুবলীগের আহবায়ক মাহফুজুর রহমান রিটন প্যানেল মেয়রসহ দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে হাসপাতালে পরিদর্শনে যান। এসময় হাসপাতালে ভর্তি রোগী মোসলেম উদ্দীন, রহিমা খাতুন, মিজানুর রহমান জানান তাদের যে খাবার সরবরাহ করা হয়েছে তার মান ভালো নয়। বিশেষ করে যে ভাত দেয়া হয়েছে তা তারা খেতে পারেছেন না। রোগীদের অভিযোগের কথা শুনে খাবারের মান যাচাইয়ের জন্য পৌর মেয়র হাসপাতালের রন্ধনশালায় গিয়ে নিম্ম মানের টাউল, বাসি দই মিষ্টিসহ পাঠি ছাগলের মাংস দেখতে পান।
পরিদর্শনের সময় পৌর মেয়রের সাথে অন্যদের মধ্যে প্যানেল মেয়র শাহিনুর রহমান রিটন, কাউন্সিলর জাফর ইকবাল, জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক শহিদুল ইসলাম পেরেশান, মেহেরপুর শিল্প ও বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আরিফুল এনাম বকুল উপস্থিত ছিলেন।
পৌর মেয়র মাহফুজুর রহমান রিটন জানান, মহান বিজয় দিবসে উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করার কথা রয়েছে। কিন্তু রোগীদের জন্য যে খাবার আনা হয়েছে সেগুলোকে কিছুতেই উন্নত বলা যায় না। আবার পরিমানেনও কম। তিনি বলেন, খাসির মাংশ দেওয়ার কথা থাকলেও নেওয়া হয়েছে পাঠির মাংস। শুধু তাই নয় ৭৪ কেজি মাংসের পরিবর্তে নেওয়া হয়েছে ৫৯ কেজি। চিকন চালের পরিবর্তে মোটা চাল এবং যে দই মিষ্টি নেওয়া হয়েছে তা দিয়ে দুর্ঘন্ধ বের হচ্ছে।
পৌর মেযর আরো বলেন, এভাবে হাসপাতাল চলতে পারে না। এখন থেকে প্রতিদিন মেহেরপুর পৌর পরিষদের একজন প্রতিনিধি হাসপাতালের কিচেনে উপস্থিত থাকবে। খাদ্য সরবরাহের তালিকা ধরে প্রতিটি খাবার বুঝে নেওয়া হবে। দুর্নীতি বাজদের হাত যতই শক্তিশালী হোক তাদের মুল উৎপাটন করা হবে।
হাসাপাতালের ঠিকাদার লাল মিয়া জানান, ৫/৬ বছর ধরে মামলা চলছে। মামলার কারনে পুরাতন দামে খাবার সরবরাহ করতে হচ্ছে। যার কারণে লস হচ্ছে। তবে তিনি স্বীকার করেন আওয়ামীলীগের লোকজন ৫ বছর আগে তাকে সিডিউল ড্রফ করতে না দেওয়ায় তিনি এ মামলা করেন। তখন থেকে তিনি এভাবে ব্যবসা পরিচালনা করে আসছেন।
মেহেরপুর শিল্প বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আরিফুল এনাম বকুল বলেন, সকালে হাসাপাতালে গিয়ে উন্নতমানের খাবার পরিবেশনে যাতে কোন অনিয়ম নাকরার জন্য বলে গিয়েছেলিন। তার পরও ঠিকাদার খাবারের মান ভাল করেনি। ঠিকাদার লাল মিয়া একটি পাতানো মামলা করে বছরের পর বছর হাসপাতালের খাবার সরবরাহের নামে লুটপাট করছে। তাকে মামলা মিটিয়ে হাসপাতালের ঠিকাদারি ছেড়ে দেওয়ার জন্য বারবার অনুরোধ ও করেছি। কিন্তু তিনি তাতে কর্ণনপাত করেননি।
হাসপাতালের খাবার বুঝে নেওয়ার দায়িত্ব নিয়োজিত রয়েছেন ডা. সুমাইয়া আকতার। তিনি বলেন, বিষয়টা হাসপাতালের তত্ত¡াবধায় ডা. মিজানুর রহমান নিজে দেখভাল করেন। তাই এ ব্যাপারে তাঁকে জিজ্ঞাসা করতে বলেন তিনি।
হসপাতালের তত্ববধায়ক ডা. মিজানুর রহমান বলেন, গতকাল শনিবার যে খাবার সরবরাহ করা হয়েছে তা নিম্ম মানের । এ খাবার ঠিকাদারকে পরিবর্তন করে দিতে হবে। তবে তিনি সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন পূর্বে যে খাবার পরিবেশন করা হয়েছে তার মান সঠিক ছিল।

 

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful