Templates by BIGtheme NET
Home / অতিথী কলাম / বিনা মূল্যের পাঠ্য পুস্তকঃ একটি পর্যালোচনা

বিনা মূল্যের পাঠ্য পুস্তকঃ একটি পর্যালোচনা

হাসনাইন জাহিদ:
বাধ্যতামূলক প্রাথমিক শিক্ষার অংশ হিসেবে পাঠ্য পুস্তক বিনা মূল্যে বিতরণ শুরু হয় আশির দশক থেকে। তখন পাঠ্য পুস্তক পরিবহণ বাবদ ২/৩ টাকা নেয়া হতো শিক্ষার্থীর কাছ থেকে। নতুন শ্রেনিতে উত্তীর্ন হতে না পারলে নতুন বই পেতে বেগ পেতে হতো। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ দ্বিতীয় মেয়াদে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আরোহণ করার পর ২০০৯ সালে মাধ্যমিক পর্যায়েও বিনা মূল্যে পাঠ্য পুস্তক দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয় যা ছিল এক বিশাল কর্ম যজ্ঞ। প্রাথমিক ও মাধ্যমিক মিলে প্রায় বিশ কোটি পাঠ্যপুস্তক সময় মত সরবরাহ করা ছিল দুরূহ ব্যাপার, যদিও শেষ পর্যন্ত সরকার সফল হয়। বাংলাদেশের গ্রাম গঞ্জের শিক্ষার্থীরা যারা অধিকাংশ গরিব ও সুবিধা বঞ্চিত এবং বছরের প্রথমে বই পেতনা তাদের জন্য এটি ছিল আশীর্বাদের মত । দীর্ঘ এক দশক পর বিভিন্ন ঘটনা ও ইতিবাচক/ নেতিবাচক প্রভাবের কারণে বিষয়টি পর্যালোচনা করার সময় এসেছে।
বছরের প্রথমেই ভর্তি পুরোপুরি সম্পন্ন হবার পুর্বেই এন সি টি বি থেকে আগামী বছরের জন্য পাঠ্যপুস্তকের চাহিদা নেয়া হয়। প্রতিষ্ঠান প্রধানগণ আনুমানিক একটি চাহিদা দেন যাতে কোন সংকটে পড়তে না হয়। এই হিসেবে তাঁরা গড়ে প্রতি শ্রেণিতে পাঁচ সেট বেশি চাহিদা দেন। তাহলে কি দাড়াচ্ছে ? আঠারো হাজার পাঁচশত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পাঁচ শ্রেণিতে পাঁচ সেট করে বেশি, অর্থাৎ ১৮৫০০*৫*৫=৪,৬২,৫০০ সেট। এই অতিরিক্ত সেট বই অব্যবহৃত থেকে যায় যার অধিকাংশ নষ্ট হয়ে যায় অথবা পরবর্তী বছরে বিতরণ করা যায় না। প্রতি সেটে গড়ে ১০ টি বই ধরে মুদ্রণ খরচ ২০০/= টাকা ধরলে মোট খরচ হয় ৪,৬২,৫০০*২০০=৯,২৫,০০,০০০ /= অর্থাৎ ৯,২৫,০০,০০০ /= অপচয় হয়। এই অপচয়টি হচ্ছে অতিরিক্ত চাহিদার কারণে । প্রতিষ্ঠান প্রধানরা এটি যে ইচ্ছাকৃত করেন তা নয়, তাঁরা ভবিষ্যতে কোন ঝামেলায় পড়তে চান না। তাছাড়া পুস্তক পরিবহণ বাবদ পুস্তক প্রতি খরচ দেয়া হয় যা নেহায়েত কম নয়। এটা শুধু মাত্র মাধ্যমিকের হিসাব, প্রাথমিকের ৬৮ হাজার বিদ্যালয়ের জন্য হিসাব টা আরও বড়। উপরোক্ত বিষয় গুলির আলোকে কিছু বিষয়ের উপর আলোকপাত করা যায়…।

প্রথমতঃ পাঠ্যপুস্তকের ক্ষেত্রে সমস্যা ছিল মূলত সঠিক সময়ে বই না পাওয়া ও গাইড বই না কিনলে কিনলে মূল বই বিক্রি করা হতো না । প্রথম সমস্যাটা সমাধান হলেও দ্বিতীয় সমস্যাটা এখনো রয়ে গেছে। কেননা প্রতিটি শিক্ষার্থীকে ব্যকরন ও গ্রামার বই দুটি কিনতে বাধ্য করা হয়। এ দুটি বইয়ের দাম গড়ে এক হাজার টাকা যা গ্রামের গরিব অভিভাবকের জন্য কষ্টকর হয়ে পড়ে।
দ্বিতীয়তঃ যে বিশাল অংকের বই অতিরিক্ত চাহিদা দেয়া হয় টা কমানো সম্ভব শুধুমাত্র সেট প্রতি একটি টোকেন মূল্য নির্ধারন করে। শ্রেণী ভেদে সেট প্রতি ২০০/৩০০ টাকা যেকোন অভিভাবকের পক্ষে প্রদান করা সম্ভব । টাকাটা যেহেতু অভিভাবকের কাছ থেকে নিয়ে প্রতিষ্ঠানকে পরিশোধ করতে হবে সেহেতু প্রতিষ্ঠান প্রধান অযোক্তিক চাহিদা দিবেন না। অনেক প্রতিষ্ঠান প্রধান এই মতটি জোরালো ভাবে প্রকাশ করেন । কিন্ডার গার্টেন বা এই ধরনের প্রতিষ্ঠান প্রধানদের খামখেয়ালিপনা চাহিদা দেয়া বন্ধ হবে।
তৃতীয়তঃ বই কম পড়লে তখন কি হবে- এটিই অধিকাংশ প্রতিষ্ঠান প্রধানদের চিন্তার কারণ হয়ে দাড়ায়। এক্ষেত্রে সিদ্ধান্ত হতে হবে যে, মোট চাহিদার ৯০/৯৫ শতাংশ বই সরবরাহ করা হবে। যারা পরবর্তী শ্রেণিতে উত্তীর্ন হয়ে প্রথম দিকে থাকবে তাঁরা নতুন বই পাবে। এতে করে শিক্ষার্থীদের মধ্যে প্রতিযোগিতা বৃদ্ধি পাবে। শ্রেণিতে শারীরিক শাস্তির অনুপস্থিতিতে এটি পড়াশোনায় গতি আনবে। নতুন বই না পাওয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা শ্রেণি ভেদে ২/৩ জনের বেশি হবে না। পুরাতন বই থেকে এই চাহিদা মেটানো যাবে।
চতুর্থতঃ অনেক অসাধু কর্ম কর্তা ইচ্ছাকরে চাহিদা বেশি দেন। প্রকাশকরা তাদেরকে অনৈতিক প্রস্তাব দেন এভাবে যে প্রকৃত চাহিদা সরবরাহ করা হবে এবং অতিরিক্ত চাহিদার বিপরীতে নগদ অর্থ প্রদান করা হবে। এভাবে অনেক অসাধু কর্মকর্তার কারণে চাহিদা বেশি হয়।
পঞ্চমতঃ পাঠ্যপুস্তক পরিবহণ বাবদ পুস্তক প্রতি একটি খরচ প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কে প্রদান করা হয়। অভিযোগ আছে, অনেক সময় সেটি প্রদান করা হয় না। যদি স্থানীয় ভাবে বইয়ের দাম পরিশোধ করা হয় তবে স্থানীয় ভাবেই পরিবহণ ব্যয় মেটানো সম্ভব। উপজেলা পর্যায়েও এ রকম হার নির্ধারন করা যেতে পারে।
ষষ্ঠতঃ কিছু কিছু গ্রামীণ এলাকায় এম পি ও বিহীন বিদ্যালয় গুলোতে প্রশাসনের অগোচরে শিক্ষার্থীদের নিকট হতে সেট প্রতি ৩০০-৪০০ টাকা নেয়ার অভিযোগ পাওয়া যায়। কিন্তু শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন কারণে গোপন করে। ফলে প্রমান করা যায় না।
বিধায় সরকারী অর্থের অপচয় ও ব্যবস্থাপনার স্বার্থে বিষয়টি পর্যালোচনার দাবি রাখে।

লেখক: উপজেলা একাডেমিক সুপারভাইজার, মুজিবনগর,মেহেরপুর । ইমেইল: [email protected]

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.