Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / বিপুল কে যারা হত্যা করেছে তারাই নিজেদেরকে বাঁচাতে আমার স্বামী রিপনকে হত্যা করেছে———স্ত্রী রনি

বিপুল কে যারা হত্যা করেছে তারাই নিজেদেরকে বাঁচাতে আমার স্বামী রিপনকে হত্যা করেছে———স্ত্রী রনি

বিশেষ প্রতিবেদন

নিহত রিপনের ফাইল ফটো

নিহত রিপনের ফাইল ফটো

আবু আক্তার,মেহেরপুর নিউজ ২৪ ডট কম,০৬ এপ্রিল:
বিপুল কে যারা হত্যা করেছে তারাই নিজেদেরকে বাঁচাতে আমার স্বামী রিপনকে হত্যা করেছে। কারণ বিপুল ছিল রিপন হত্যা কান্ডের রাজ স্বাক্ষী তাই তাকে হত্যা করেছে রিপনের হত্যাকারীরা। বিপুলের হত্যাকারীকে আটক করতে পারলে রিপন হত্যাকান্ডের সাথে কারা জড়িত সেটা বেরিয়ে আসবে। হত্যাকারীরা জানে যে রাজ স্বাক্ষীকে মেরে দিলে রিপন হত্যা মামলাটি নষ্ট হয়ে যাবে।তাই তারা পরিকল্পিতভাবে এ ঘঁনাটি ঘটিয়েছে।
সন্ত্রাসীদের বোমা হামলায় নিহত শহর যুবলীগের সাধারন সম্পাদক ও পৌরসভার প্যানেল মেয়র রিপনের স্ত্রী রনি রিপনের ২য় মৃত্যুবার্ষিকী পালনের আগ মূহূর্তে মেহেরপুর নিউজের সাথে একান্ত সাক্ষাতকারে এসব কথা বলেন।
রিপনের স্ত্রী কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন,রিপন হত্যার ২ বছর পার হলেও আমরা এখনও কোন বিচার পায়নি। বরঞ্চ রিপনের ছোট ভাই রিটনের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে তাকে সহ পরিবারের লোকজনকে হয়রানি করা হচ্ছে।

রিপনের স্ত্রী ও সন্তানদের ফাইল ফটো

রিপনের স্ত্রী ও সন্তানদের ফাইল ফটো

তিনি বলেন,রিপন মৃত্যুকালিন জবান বন্দীতে মেয়র মতু, গোলাম রসুল ,মিয়াজান আলী সহ বিপুলের নাম করে যায়। কিন্তু পুলিশ শুধু বিপুল কে আটক করে। পুলিশ আজও রিপন হত্যার প্রধান আসামীকে আটক করতে পারেনি। আমি চায় মোতাছিম বিল্লাহ মতু, হাজি গোলাম রসুল, এ্যাডঃ মিয়াজান আলী কে আটক করুক পুলিশ ।
তিনি অভিযোগ করেন,মামলা টি পুলিশের কাছ থেকে সিআইডির কাছে দেওয়া হয়। কিন্তু সিআইডি এই ৩ জনের নাম বাদ দিয়ে ফাইনাল রিপোর্ট কোর্টে পাঠায়। কিন্তু আমরা তা না মেনে কোর্টে নারাজি দিয়েছি। আমি আমার স্বামী হত্যার বিচার চাই।
নিহত রিপনের এক মাত্র ছেলে মুশফিকুল রহমান রিয়াদ বলেন, বাবার কথা তার খুব মনে পড়ে। যখন তার  স্কুলের  বন্ধু বান্ধবরা বাবার সাথে স্কুলে আসে। তখন বাবাকে খুব মিস করি।
মেয়ে রোজা জানান, বাবার ইচ্ছা ছিল আমি বড় হয়ে ডাক্তার হবো। আমি বাবার ইচ্ছা পূরন করবো।
নিহত রিপনের স্ত্রী রনি আরো জানান, আমি ছেলে মেয়ে নিয়ে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। আমার ছেলে মেয়ে কে আমি একা স্কুলে বা বাজারে পাঠাতে পারিনা। তাদের সব সময় গৃহবন্ধি করে রাখি মাঝে মাঝে তাদের কে সঙ্গে করে বাড়ির পিছনে খেলতে নিয়ে যায় তারা যতক্ষন খেলে ততক্ষন আমি তাদের পাহারা দিই। আমি ছেলে মেয়ে নিয়ে সব সময় মৃত্যু আশংকায় থাকি।

রিপনের ছোট ভাই রিটন

রিপনের ছোট ভাই রিটন

এদিকে আগামী ৮ এপ্রিল শহর যুবলীগের সাধারন সম্পাদক ও পৌর সভার প্যানেল মেয়র মিজানুর রহমান রিপনের ২য় মৃত্যুবার্ষিকী পালনের লক্ষে পরিবার ও যুবলীগের পক্ষ থেকে নেওয়া হয়েছে নানা কর্মসূচি।
পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ৮ এপ্রিল সকালে নিহত রিপনের কবর জিয়ারত, মসজিদে মসজিদে দোয়া মাহাফিল ও জাগ্রত তরুন সম্প্রদায় ক্লাবে স্মরনসভার আয়োজন করা হয়েছে।
যুবলীগের পক্ষ থেকে যুবলীগের কার্ষালয়ে দোয়া মাহফিল ও সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছে।
নিহত রিপনের পিতা আব্দুল হালিম মেহেরপুর নিউজ কে বলেন, আমার ছেলে হত্যার বিচার এষনও পাইনি। আবার আমার ছোট ছেলে রিটন এর নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে তাকে বাড়ি ছাড়া করেছে। কারন রিটন রিপন হত্যার বিচার চেয়ে সব সময় লড়ে যাচ্ছে তাই তাকে দূর্বল করে দিতে তার নামে মামলা করেছে রিপন হত্যা মুল আসামীরা।
রিপন হত্যার আসামীরা ষড়যন্ত্র করে রিটনের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে আমাদের পরিবারকে রাস্তায় বসাতে চাচ্ছে। এবং ওরা বিপুল কে মেরে রিপন হত্যার মামলাটা নষ্ট করতে চাচ্ছে। আমি আমার স্বামী হত্যার বিচার চায়।
নিহত রিপনের ছোট ভাই মাফুজুর রহমান রিটন মেহেরপুর নিউজ কে জানান, আমার নামে একটি মিথ্যা মামালা দিয়ে আমাকে হয়রানি করছে। আমাকে বিভিন্ন মহল থেকে রিপন হত্যার মামলাটা তুলে নেওয়ার জন্য চাপ সৃষ্টি করছে। তাহলে আমার নামে দেওয়া মামলাটি তারা তুলে নেবে । এতে বোঝা যায় বিপুল কে কারা হত্যা করেছে এবং আমার নামে কেনো তারা মামলা দিয়েছে।
তিনি আরো  বলেন, আমার নামে মামলা দিয়ে আমাকে আর্থিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করতে চাচ্ছে। আমি আমার ভাইয়ের সঠিক বিচার চাই যতদিন বিচার না হবে আমি ততদিন লড়ে যাবো।
অন্যদিকে রিপনের ২য় মৃত্যুবার্ষিকী সামনে রেখে বিভিন্ন সংগঠন মেহেরপুর শহরের বিভিন্ন শ্লোগান সম্বলিত ব্যানার আর ফেসটুনে ভরে দিয়েছে। তাদের একটায় দাবী রিপন হত্যার বিচার চায়।
উল্লেখ্য,১এপ্রিল ২০১১ তারিখে রাতে রিপনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে বোমা হামলা চালায় সন্ত্রাসীরা। বোমা হামলায় মারাত্নক আহত হয় মেহেরপুর পৌরসভার প্যানেল মেয়র রিপন। ঢাকার এ্যাপোলো হাসপাতালে সপ্তাহব্যাপী মুত্যু’র সাথে পাঞ্জা লড়ে অবশেষে ৮ এপ্রিল সে মারা যায়।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.