Templates by BIGtheme NET
Home / কৃষি সমাচার / ব্ল্যাকবেবী তরমুজে আশা জাগছে প্রবাস ফেরত লিজনের

ব্ল্যাকবেবী তরমুজে আশা জাগছে প্রবাস ফেরত লিজনের

মেহেরপুর নিউজ, ১১ জুন:
দক্ষিন কোরিয়ার প্রবাস জীবন ভাল লাগছিল না সাইদুর রহমান লিজনের। এ সেখানেই কৃষিসহ বিভিন্ন ব্যবসা সম্পর্কে জানতে ইন্টারনেটে ঘাঁটাঘাঁটি শুরু করেন। একসময় উপলব্ধি করেন দেশেই ভালো কিছু করতে পারবেন। নেই উপলব্ধি থেকে মাসছয়েক আগে দক্ষিন কোরিয়া থেকে স্থায়ীভাবে দেশে ফিরে আসেন। দেশে এসে প্রথমেই স্থানীয় দুজনকে সঙ্গী করে সাত বিঘা জমি লিজ নিয়ে এবং তিন বিঘা নিজের সহ ১০ বিঘা জমিতে তাইওয়ানের ব্ল্যাকবেবী তরমুজ চাষ শুরু করেন।
পার্শবর্তি চুয়াডাঙ্গা জেলায় ব্ল্যাকবেবী রমুজের চাষ হলেও লিজনের এই চাষ মেহেরপুরে প্রথম। চাষ শুরু করার ৬০ থেকে ৬৫ দিনের মধ্যে ক্ষেতজুড়ে দেখা দেয় গাঢ় সবুজ তরমুজ। বিঘাপ্রতি জমি ভেদে ৫০-৬০ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। তবে তরমুজর ফলন দেখে তিনি আশা করছেন প্রায় দুই লাখ টাকার তরমুজ বিক্রি করতে পারবেন।
গাংনী উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, ব্ল্যাকবেবী জাতের তরমুজ চাষ শুধূ গাংনী উপজেলায় না এটি মেহেরপুর জেলায় প্রথম। রমজান মাসকে লক্ষ্য করেই গাংনী উপজেলার গাঁড়াডোব পুড়াপাড়া মাঠে স্থানীয় আবুল কালাম আজাদ ও সাইফুল ইসলামকে সঙ্গে নিয়ে তরমুজ চাষ করেছেন সাইদুর রহমান লিজন। গ্রীষ্মের রমের মধ্যে রমজান শুরু হওয়ায় ইফতারিতে এখন তরমুজের চাহিদা রয়েছে প্রচুর। আর রমজানের আগে প্রচলিত তরমুজের মৌসুম শেষ হওয়ায় বাজারে স্বল্পমেয়াদি ব্ল্যাকবেবী তরমুজের ভালো দাম পাওয়া যাচ্ছে।
সাইদুর রহমান লিজন বলেন, দক্ষিন কোরিয়ায় যখন ভালো সময় যাচ্ছিল না, তখনই ইন্টারনেটে ব্ল্যাকবেবী তরমুজের তথ্য পাই। খুব অল্প সময়ে স্বল্প খরচে বেশি লাভ করা যায় এ তরমুজে। তাই দেরি না করে দেশে ফিরে এসেই জমি লিজ নিয়ে আবাদ শুরু করি। প্রথমবারেই ভালো লাভ হবে বলে আশা করছি। বিঘায় অন্তত ১৫০ মন ফলন আসতে পারে। স্থানীয় বাজারে এখন ১ হাজার ২০০ টাকা থেকে ১ হাজার ৩০০ টাকা মন বিক্রি হচ্ছে। ঢাকার কারওয়ান বাজারের এক ব্যবসায়ী দেড় হাজার টাকা করে মন হিসেবে বিক্রয়ের জন্য চুক্তি করেছেন বলে তিনি জানান।
তিনি আরো জানান, ব্ল্যাকবেবী তাইওয়ান থেকে আনা ছোট আকারের একটি তরমুজের জাত। গায়ের রঙ গাঢ় সবুজ, কিন্তু পাকলে ভেতরে টকটকে লাল হয়। তিন থেকে পাঁচ কেজি ওজনের তরমুজগুলো পাকলে সুস্বাদু হয়। শীতকাল ছাড়া বছরের বাকি যেকোনো সময় এ তরমুজ চাষ করা যায়।
গাংনী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো: সাহাবুদ্দীন জানান, ব্ল্যাকবেবী জাতের তরমুজ এই প্রথম গাংনী উপজেলায় চাষ হচ্ছে। শীতকাল বাদে বছরের যে কোন সময় এ তরমুজ চাষ করা যায়। স্বল্প মেয়াদি এ তরমুজ চাষের ব্যাপারে কৃষকের আগ্রহ লক্ষ্য করা যাচ্ছে। আগামী বছর থেকে এ তরমুজ মেহেরপুরের অন্যান্য উপজেলায় চাষ হবে বলে আশা করা যায়। চাষীরা যাতে এ ধরনের তরমুজ চাষ করতে আগ্রহী হয়ে উঠেন তাদের সবাত্মক সহযোগীতা করা হবে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.