Templates by BIGtheme NET
Home / রাজনীতি / মঞ্চ যারা ভেঙ্গেছে তাদের ঘরবাড়ি এতক্ষণ জালিয়ে পুড়িয়ে ছারখার করে দিতাম ——-জেলা আঃলীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডঃ মিয়াজান আলী

মঞ্চ যারা ভেঙ্গেছে তাদের ঘরবাড়ি এতক্ষণ জালিয়ে পুড়িয়ে ছারখার করে দিতাম ——-জেলা আঃলীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডঃ মিয়াজান আলী

নিউজ ডেস্ক
যারা সংবর্ধনা মঞ্চ ও তোরণ ভাংচুর করেছে আমি তাদের বাড়িঘর এতক্ষনে জ্বালিয়ে পুড়িয়ে ছারখার করে দিতাম। মন্ত্রী আমাকে নিষেধ করায় তারা এ যাত্রায় রক্ষা পেল। আজ সনদ্ধ্যায় হাকি আলা ছাফা চাইনীজ রেষ্টুরেন্টের সামনে ফুটপাথের ওপরে সংবর্ধনা বক্তব্য দিতে গিয়ে মেহেরপুর জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও পাবলিক প্রসিকিউটর এ্যাডভোকেট মিয়াজান আলী এসব কথা বলেন। তিনি মেহেরপুর-১ আসনের আওয়ামীলীগের এমপি জয়নাল আবেদীনকে উদ্দেশ্য করে বলেন, এমপি সাহেব যদি আপনি আমাদের চেয়ে বেশি শক্তিশালী হন তাহলে সামনা সামনি আসুন। আপনার একটা হাত থাকলে আমার দুটো হাত আছে।
আজ সনদ্ধ্যায় মেহেরপুর কোর্ট সড়কের হাকি আলা ছাফা চাইনীজ রেষ্টুরেন্টের সামনে ফুটপাথের ওপরে অনুষ্ঠিত সংবর্ধনা সভায় সভাপতিত্ব করেন মেহেরপুর সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি গোলাম রসুল। প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রীর সফর সঙ্গী হিসেবে চীন থেকে মেহেরপুরে ফেরা মেহেরপুর জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এ্যাডভোকেট মিয়াজান আলী।
এ্যাডভোকেট মিয়াজান আলী উপস্থিত জনতার উদ্দোশ্য বলেন,আপনারা আমার লোকজনদের হাতে লাঠি রড দেখতে পাচ্ছেন। এই লাঠি রড লোকজন পরিস্থিতি মোকাবেলার আত্মরক্ষার জন্য এনেছেন। মারামারি করার জন্য না।
তিনি মেহেরপুর সদর থানার অফিসার ইনচার্জ রবিউল ইসলামকে উদ্দ্যেশ্য করে বলেন, এমপি’র ভেড়োয়া দালাল। আপনাকে চামচামি করার জন্য সরকার চাকরী দেয়নি। আমি পাবলিক প্রসিকিউটার। আমি ইচ্ছা করলে ৫মিনিটে আপনার চাকরী শেষ করে দিতে পারি। চামচামি ছেড়ে দিন।
সভাপতির বক্তব্যে সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ গোলাম রসুল বলেন, এমপি সাহেব ক্ষমতা থাকলে আসুন কার কত শক্তি আছে পরীক্ষা হয়ে যাক। হুসিয়ারী উচ্চারণ করে বলেন যারা সংবর্ধনার তোরণ,মঞ্চ ভাংচুর করেছে তাদের ক্ষমা করা হবে না।
গোলাম রসুল সদর থানার ওসিকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ওসি সাহেব এমপির চামচামী করবেন না। চামচামী করলে আপনাকে ক্ষমা করা হবে না। তিনি সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে বলেন যুবলীগ ছাত্রলীগের কতিপয় উচ্ছশৃংখল কর্মীরা এই মঞ্চ ভাংচুর করে জননেত্রী শেখ হাসিনাকে অপমান করেছে। যারা এ কাজ করেছে তারা কখনও আওয়ামীলীগের লোক হতে পারেনা। আপনারা এ কথাটি পত্রিকায় লিখুন।
এদিকে সংবর্ধনাকে কেন্দ্র করে মেহেরপুর জেলা আওয়ামীলীগের দু’পক্ষের লোকজনেরা মুখোমুখি অবস্থান নেয়। দুপুরে লাইব্রেরী চত্বরে সংবর্ধনার জন্য নির্মিত তোরন ও মঞ্চ ভাংচুর করে ১০/১২ জনের একটি সশস্ত্র দল। পাল্টা জবাব দিতে রড,কাঠের বাটাম সহ বিভিন্ন ক্ষতিকর সামগ্রী হাতে নিয়ে প্রকাশ্যে মোটরসাইকেল শোডাইন করে গোলাম রসুলের লোকজন দরবেশপুরে অতিথিকে রিসিভ করতে যায়। এঘটনার পরপরই অবস্থা আবার খারাপের দিকে যায়। পরিস্থিতি মোকাবেলায় ম্যাজিষ্ট্রেট শেখ আসলামের নেতৃত্বে জেলার পুলিশ বাদেও পাশ্ববর্তী চুয়াডাঙ্গা জেলা থেকে আইন শৃংখলা বাহিনীর সদস্যদের মেহেরপুরে আনা হয়। মেহেরপুর জেলার বিভিন্ন থানার আমর্ড পুলিশ, র‌্যাব এবং আনসার ব্যাটালিয়ান এর সদস্যরা মেহেরপুর শহরের গুরুত্বপুর্ন স্থানে অবস্থান গ্রহণ করেন এবং মহড়া দিতে থাকে। সনদ্ধ্যার পরপরই মোটরসাইকেল ও রড লাঠি শোভাযাত্রা সহ বড়বাজার হয়ে মেহেরপুর কোর্ট সড়কের হাকি আলা ছাফা চাইনীজ রেষ্টুরেন্টের সামনে এসে পৌছে এবং সেখানে অনদ্ধকারের মধ্যে সংবর্ধনা সভা শেষ করে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.