Templates by BIGtheme NET
Home / বর্তমান পরিপ্রেক্ষিত / মন খারাপ করে বাড়ি ফিরলো ৩য় শ্রেণীর ৯হাজার শিক্ষার্থী

মন খারাপ করে বাড়ি ফিরলো ৩য় শ্রেণীর ৯হাজার শিক্ষার্থী

মেহেরপুর নিউজ,০১ জানুয়ারী:
বছরের প্রথম দিন রবিবার সকাল থেকে মেহেরপুরের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে নতুন বই। তবে জেলায় চাহিদা তুলনায় দেড় লক্ষাধিক বিতরণ করা হয়নি। এর মধ্যে মাধ্যমিক পর্যায়ে প্রায় ৩৬ হাজার এবং প্রাথমিক পর্যায়ে ১লাখ ১৮ হাজার। তবে শিক্ষা কর্মকর্তারা বলছেন ওই বইগুলো না পৌছানোই বিতরণ করা সম্ভব হয়নি। তবে সপ্তাহ থানেকের মধ্যে বাকি বইগুলো শিক্ষার্থীরা পেয়ে যাবে।
জেলার সদর উপজেলার ঝাউবাড়িয়া গ্রামের রফিকুল ইসলাম তার ভাইয়ের ছেলে ৩য় শ্রেণীর ছাত্র আনাম উদ্দিন (৮) কে নিয়ে গিয়েছিলেন শহরের চাইল্ড এডুকেয়ার স্কুলে। কিন্তু সেখানে তাকে শুধু মাত্র ধর্মশিক্ষা বই দেওয়া হয়। বাকি বই না পেয়ে সে মন খারাপ করে বসে থাকে।
তার চাচা রফিকুল ইসলাম বলেন, ছেলে বই না পাওয়ায় মন খারাপ করে বাড়ি ফিরছে। স্কুলের শিক্ষকরা জানান ৩য় শ্রেণীর বাকি বই শিক্ষা অফিস থেকে দেওয়া হয়নি। তাই দেওয়া সম্ভব হলো না। পরে দেওয়া হবে। একই ভাবে হাসিখুশি মন নিয়ে স্কুলগুলো বই নিতে গিয়ে না পেয়ে মন খারাপ করে বাড়ি ফিরেছে মেহেরপুর সদর ও মুজিবনগর উপজেলার ৩য় শ্রেণীর ৯ হাজার ১৩৫জন শিক্ষার্থী। জেলা শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, জেলার তিন উপজেলায় ৬৯ হাজার ৩৩৫ জন শিক্ষার্থীর অনুকুলে বইয়ের চাহিদা ছিল ১০ লাখ ৫৪১টি বইয়ের। তার বিপরীতে বই না পাওয়ায় বিতরণ করা হয়নি৩৫ হাজার৫৬৭টি। এর মধ্যে মাধ্যমিক শাখায় ৮লাখ ৭০ হাজার ৩১২টি চাহিদা স্থলে বিতরণ করা হয়নি ৩৪ হাজার ৮৮৪টি বই। দাখিল শাখায় ৭২হাজার ২৯টি বইয়ের চাগিদা সবগুলো বিতরণ করা হয়েছে। এবতেদায়ী শাখার ৪০ হাজার ১৭৮টি চাহিদা সবুগলো বিতরণ করা হয়েছে। এসএসসি ভকেশনাল শাখায় ১৮ হাজার ২২টি বইয়ের চাহিদার বিপরীতে ঘাটতি ছিল ৬৮৩টি ডেগুলো বিতরণ করা হয়নি।
জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, জেলার তিন উপজেলার ৮৭ হাজার ৫৫৩ জন শিক্ষার্থীর জন্য বইয়ের চাহিদা ছিল ৪লাখ১৪ হাজার ৫২৮টি। তার বিপরীতে বিতরণ করা হয়েছে ২লাখ ৯৬ হাজার ১৫টি। সদর ও মুজিবনগর উপজেলার ৩য় শ্রেণীর ৯হাজার ১৩৫ শিক্ষার্থীর জন্য চাহিদা ছিল ৫৪ হাজার ৮১০টি। ওই শ্রেণীর শুধুমাত্র ধর্মীয় শিক্ষা বইটি বিতরণ করা হয়েছে। অন্যবইগুলো এখনো মেহেরপুরে পৌছায়নি।
এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে সদর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আপিল উদ্দিন বলেন, ৩য় শ্রেণীর ধর্মীয় শিক্ষা ছাড়া অন্য বই গুলো এখনো পৌছায়নি। তাই শিক্ষার্থীদের হাতে সেগুলো দেওয়া সম্ভব হয়নি। আশা করছি সপ্তাহ খানেকের মধ্যেই বইগুলো পৌছে যাবে।
জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা সুভাষ চন্দ্র গোলদার বলেন, মাধ্যমিক পর্যায়ে সামান্য বই এখনো পৌছায়নি। সেগুলোও সপ্তাগ খানেকের মধ্যে পৌছে যাবে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.