Templates by BIGtheme NET
Home / কৃষি সমাচার / মহাবিপাকে পেঁয়াজচাষীরা :: কেজি প্রতি ক্ষতি গুনছেন তিন টাকা

মহাবিপাকে পেঁয়াজচাষীরা :: কেজি প্রতি ক্ষতি গুনছেন তিন টাকা

মেহেরপুর নিউজ, ২৬ ফেব্রুয়ারি:
সুখসাগর পেঁয়াজ চাষ করে গ্রামের প্রতিটি ঘর হয়েছিল পাকা। ঘরে ঘরে হয়েছিল মোটরসাইকেল। প্রতিটি পরিবারের সদস্যদের মুখে ছিল হাসি মনে ছিল আনন্দ। সেই নেশায় গত কয়েকবছর ধরে পেঁয়াজ চাষ করে আসছেন মেহেরপুরের মুজিবনগর উপজেলার শিবপুর গ্রামের চাষীরা। গ্রামটিতে প্রায় ৫ হাজার পরিবারের বাস। যেদিকেও তাকানো যায় সেদিকে পাকা বাড়ি। পেঁয়াজের মৌসুমে সারাদিন কর্মচাঞ্চল্য থাকে ওই গ্রামটি। প্রতিদিন ২৫ থেকে ৩০টি ট্রাক পেয়াজ বোঝাই করে ব্যবসায়ীরা নিয়ে যান দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে। পেঁয়াজচাষীদের পাশাপাশি আশেপাশের কয়েকটি গ্রামের মানুষের নানা ধরণের কর্মসংস্থান হয় পেয়াজ চাষকে ঘিরে। কিন্তু এবছর পেয়াজ চাষ করে চাষীরা পড়েছেন মহাবিপাকে। বিঘাপ্রতি ৫০ থেকে ৫৫ হাজার টাকা খরচ করে পেঁয়াজ চাষ করে ঘরে তুলছেন ২৫ থেকে ৩০ হাজার। প্রতিকেজি পেয়াজ উৎপাদন করতে চাষীদের খরচ হচ্ছে প্রায় ৭টাকা । আর সেই পেয়াজ বিক্রি করতে হচ্ছে চার থেকে সাড়ে চার টাকায়। কেজি প্রতি তিন টাকা ক্ষতি গুনতে হচ্ছে চাষীদের।
গতকাল সোমবার সকালে কথাগুলো বলছিলেন শিবপুর গ্রামের পেয়াজ চাষী আবুল কালাম। তিনি এ বছর পেয়াজ চাষ করেছেন ১০ বিঘা জমিতে। প্রতিবিঘা জমিতে তিনি খরচ করেছে ৫২ হাজার টাকা করে। বিঘাপ্রতি জমিতে পেয়াজ উৎপাদন হয়েছে ১৬০ থেকে ১৭০ মন। এক বিঘা জমির পেয়াজের বর্তমান বাজার মূল্য ৩০ হাজার টাকা। প্রতিবিঘায় ২০ থেকে ২২ হাজার টাকা ক্ষতি হয়েছে। তিনি জানান, ভাল দাম পাওয়ার আশায় জমিতে পেয়াজ রেখে দিলেও তা ফেটে যাচ্ছে। ফেটে যাওয়া পেয়াজ বিক্রি হয় না। গত রবিবার ২২ মন ফেটে যাওয়া পেয়াজ বস্তা সহ বিক্রি করেছেন মাত্র ২২০০ টাকায়।
তিনি বলেন, পেয়াজ করে যেভাবে এ গ্রামের উন্নতি হয়েছে। এবার সেভাবেই গ্রামের মানুষ গুলো পেয়াজ চাষ করে ঋণগ্রস্থ হয়ে যাচ্ছে।
আবুল কালামের সাথে কথা বলতে গিয়ে একে একে গ্রামের আরো পেয়াজ চাষীরা জড়ো হলেন এ প্রতিবেদকের কাছে। তারাও জানালেন তাদের কষ্টের কথা। কথা হয় পেয়াজ চাষী ভাষান আলী, রফিকুল ইসলাম, বাবুল জোয়ার্দার, হায়াত আলী, আদম আলী, আশিক গাজীসহ জনা দশেক পেয়াজ চাষীর সাথে।

তারা জানালেন, পেঁয়াজের মৌসুমে ভারত থেকে পেয়াজ এলসি (আমদানি) বন্ধ না করলে পেয়াজের দাম পাবে না তারা। তারা জানান, গত বছর যে পেয়াজ মন প্রতি ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা করে বিক্রি করছেন। সেই পেঁয়াজ এবছর বিক্রি করতে হচ্ছে ১৭০ থেকে ১৮০ টাকা করে। গতবছরও চাষীরা লাভের মুখ দেখেছেন অথচ এবার চাষীরা আসল টাকা ঘরে তুলতে পারা দুরের কথা বিঘাপ্রতিতে ২০ থেকে ২২ হাজার অতিরিক্ত ক্ষতি হচ্ছে। তাদের দাবি দ্রুত ভারত থেকে পেয়াজ আমদানি বন্ধ করা হোক।
একই উপজেলার পার্শ্ববর্তি গ্রাম গোপালপুর গ্রামের আসলাম আলী জানান, তিনি এ বছর দেড় বিঘা জমিতে সুখ সাগর পেঁয়াজের চাষ করেছেন। এখন পর্যন্ত বীজ, সার, শ্রমিক খরচ সব মিলেয়ে ৪৫ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। এখন অনেক টাকা খরচ করতে হবে। দাম ভাল না পাওয়ায় জমিতেই পেয়াজ রাখতে হচ্ছে। জমিতে অতিরিক্ত সময় পেয়াজ রাখতে গিয়ে ফেটি নষ্ট হচ্ছে। ফলে ফলন বিপর্যয়ের আশংকতাইে দিন গুনছেন তিনি।
তিনি জানান, নেশার ঘোরে কয়েক বছর ধরে পেয়াজের চাষ করছি। এবছর ভেবেছিলাম পেয়াজের চাষ করবো না। কিন্তু যখন আশেপাশের চাষীরা পেয়াজ চাষ শুরু করেন তখন আর থাকতে পরিনি। পেঁয়াজ লাগানো থেকে শুরু করে তোলা পর্যন্ত প্রায় ৬ মাস লেগে যায়। এই ছয় মাসের অন্য ফসল আবাদ করলেও এতো ক্ষতি হয় না।
শিবপুর গ্রামের পেয়াজ ব্যবসায়ী আতিয়ার রহমান জানান, চার থেকে সাড়ে টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ কিনে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পাঠাতে খরচ হয় কেজি প্রতি তিন টাকা। ফলে গাড়ি ভাড়া করে পেয়াজ বিক্রি করতে গিয়ে তারাও ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন। তিনি সিলেট, বরিশালসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে কয়েকবছর ধরে পেয়াজ বিক্রি করছেন। প্রতিদিন শিবপুর গ্রাম থেকেই ২৫ থেকে ২৬টি ট্রাক বোঝাই করে পেয়াহজ দেশের বিভিন্ন স্থানে পাঠানো হচ্ছে।
খোজ নিয়ে জানা গেছে, মেহেরপুরের মুজিবনগর উপজেলার শিবপুর ও আনন্দবাস গ্রামে সবচেয়ে বেশি হয় সুখসাগার জাতের পেয়াজ চাষ। মুজিবনগরের অন্যান্য গ্রামেও সুখসাগার জাতের পেয়াজ চাষ হয় কমবেশি। তবে জেলার সদর ও গাংনী উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে তাহেরপুরী জাতের পেয়াজ চাষটা বেশি হয়।
চাষীরা ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানির কারণে দাম পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ করলেও আমদানিকারকরা বলছেন মাস খানেক আগে থেকেই তারা আমদানি বন্ধ করেছেন পেয়াজের দাম কমে যাওয়াতে। মেহেরপুরে উৎপাদিত বড় সাইজের পেঁয়াজের চাহিদা কম থাকায় দাম কম পাচ্ছেন চাষীরা এমনটি জানালেন তারা।
তবে ভিন্ন চিত্র খুচরা বাজারগুলোতে। মেহেরপুর শহরে দুটি কাঁচাবাজার ঘুরে দেখা গেছে সুখসাগর জাতের বড় পেয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১২ টাকা কেজি এবং তাহেরপুরী জাতের ছোট পেয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১৮ টাকা কেজি। কিন্তু চাষীরা তাদের উৎপাদিকত পেয়াজ বিক্রি করছেন ৪ থেকে সাড়ে টাকা কেজি দরে। ফলে চাষী থেকে খুচরা ক্রেতার মধ্যে পেয়াজের দামের পার্থক্য অনেক বেশী।
মেহেরপুর হোটেলবাজারের সব্জি ব্যবসায়ী সিতাব আলী জানান, তিনি মোটা পেয়াজ ৮ টাকায় কিনে বিক্রি করছেন ১২ টাকায়। ছোট পেয়াজ ১২ টাকায় কিনে বিক্রি করছেন ১৮ টাকায়।
মেহেরপুরের বড়বাজারের সব্জি আড়ত পট্টির খেয়া সব্জি ভান্ডারের মালিক আবুল খয়ের জানান, সুখসাগর জাতের পেয়াজ পাইকারি বিক্রি হ”েচ্ছ সাড়ে ৫ থেকে ৬টাকায় এবং তাহেরপুরী জাতের ছোট পেয়াজ বিক্রি হচ্ছে সাড়ে থেকে ১০ টাকা কেজি দরে।
কিন্তু মেহেরপুর বড়বাজার আমাদানিকার নবাব ভান্ডারের নবাব আলী জানান, কয়েকদিন ধরে পেয়াজ আমদানি বন্ধ রয়েছে। মেহেরপুরের উৎপাদিত পেয়াজই এখন দেশের বিবিন্ন স্থানে যাচ্ছে। যতদিন মেহেরপুরের পেয়াজ থাকবে ততদিন ভারত থেকে পেয়াজ আমদানি বন্ধ থাকবে বলে তিনি জানান।
মেহেরপুর তহবাজার ব্যবসায়ীর সমিতির সভাপতি আবু হানিফ। তিনিও একজন আমদানিকারক। তিনি জানান, দেড় মাস থেকে ভারতের পেয়াজ আমদানি বন্ধ রেখেছেন। তিনি বলেন, পেয়াজের দাম কমে যাওয়ায় আমদানি বন্ধ রেখেছেন। সুখসাগর জাতের পেয়াজ সাইজে বড়। এই পেয়াজের চাহিদা নিম্ম ও মধ্যবিত্ত ক্রেতাদের কাছে চাহিদা কম। তাছাড়া এই পেয়াজ বেশি দেন সংরক্ষন করে রাখা যায় না। যার ফলে চাহিদা না থাকায় চাষীদের কম দামেই পেয়াজ বিক্রি করতে হচ্ছে।
মেহেরপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিপ্তদপ্তরের জেলা প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা স্বপন কুমার খাঁ বলেন, চলতি বছরে জেলায় ১হাজার ৫৪৫ হেক্টর জমিতে সুখসাগর ও তাহেরপুরী নামের এই দুই জাতের পেয়াজ চাষ হচ্ছে । এর মধ্যে মুজিবনগর উপজেলাতে শুধু সুখসাগার জাতের পেয়াজ চাষ করেন চাষীরা। পেয়াঁজ চাষীরা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন কাক্সিখত মুল্য না পেয়ে।
স্বপন কুমার খাঁ জানান, বর্তমানে সবকিছুতেই কৌশলী হতে হবে। চাষীদেরও কৌশলী হতে হবে। পেয়াজ একসাথে বিক্রি না করে সংরক্ষন করে যদি দুই তিন মাস পরে বিক্রি করেন তাহলে চাষীরা ভালো দামে পেয়াজ বিক্রি করতে পারেন।
আমদানির বিষয়ে তিনি বলেন, শুধু পেয়াজ না, বহু খাদ্যপণ্যই ভারত থেকে সরকার আমদানি করে থাকে। সেই ক্ষেত্রে অন্যান্য পণ্য ক্ষতি না হলে কেন শুধু পেঁয়াজ চাষে ক্ষতিগ্রস্থ হবে। চাষীরা দ্রুত অর্থ ফেরত পেতে চাই। এ ধারণা থেকে জমি থেকে উৎপাদনের সাথে সাথে বিক্রি করার জন্য ব্যস্ত হয়ে পড়েন। এই দিকে ব্যবসায়ীরা সেই সুবিধা কাজে লাগিয়ে স্বল্প মূল্যে পেঁয়াজ কিনে নেন।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.