Templates by BIGtheme NET
Home / নির্বাচন / মাঠের নেতা কর্মীরা ঠিক করবে কে তাদের নেতা হবে — আলমগীর খান সাতু

মাঠের নেতা কর্মীরা ঠিক করবে কে তাদের নেতা হবে — আলমগীর খান সাতু

মেহেরপুর নিউজ,১৮ জুলাই:

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে রাজনৈতিক দলগুলোর নেতাকর্মীদের পাশাপাশি সাধারণ মানুষের মাঝেও আলোচনা শুরু হয়েছে। সম্ভাব্য প্রার্থীরাও নির্বাচনী মাঠে গনসংযোগ শুরু করেছেন। কে পাচ্ছেন আওয়ামীলীগের মনোনয়ন, কে পাচ্ছেন বিএনপির, কে জাতীয় পার্টির এমনকি জামায়াত ইসলামি থেকে কেউ প্রার্থী হচ্ছেন কিনা এ ধরণের নানা প্রশ্ন এখন ঘুরপাক খাচ্ছে। যদিও নির্বাচনের এখনো দেড় বছর বাকি আছে।
এরই ধারাবাহিকতায় মেহেরপুর নিউজ তার পাঠকদের জন্য সকল দলের সম্ভাব্য প্রার্থী যারা মাঠ দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন, দলের আস্থাভাজন হওয়ার চেষ্টায় গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন সে সকল প্রার্থীদের মুখোমুখি হচ্ছে মেহেরপুর নিউজ। আমাদের প্রতিবেদকরাও ছুটছেন সেকল প্রার্থীদের কাছে। তাঁদের নির্বাচনী পরিকল্পনা, এলাকার উন্নয়ন পরিকল্পনা, দলীয় পরিকল্পনা খুটি নাটি বিভিন্ন বিষয় নিয়ে থাকছে প্রার্থীদের সাক্ষাৎকার।
আজ থাকছে শহর মেহেরপুর জেলা বিএনপির সহসভাপতি আলমগীর খান সাতুর সাক্ষাৎকার। সাক্ষাৎকারটি গ্রহণ করেছেন আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক সাইদ হোসেন।
মেহেরপুর নিউজ: প্রথমেই মেহেরপুর নিউজ পরিবারের পক্ষ থেকে আপনাকে শুভেচ্ছা।
আলমগীর খান সাতু : ধন্যবাদ। মেহেরপুর নিউজ ও মেহেরপুর বাসীকে শুভেচ্ছা।
মেহেরপুর নিউজ: আপনি আগামী সংসদ নির্বাচনে বিএনপি থেকে মনোনয়ন চাইবেন এমনটি শোনা যাচ্ছে। এ বিষয়ে আপনার মন্তব্য কি ?
আলমগীর খান সাতু: আমি যেহেতু ২০ বছর জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি হিসাবে দ্বায়িত্ব পালন করছি। সে হিসাবে আমি আগামী নির্বাচনে বিএনপি থেকে মনোয়ন প্রত্যাশা করতেই পারি ।  আমি দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার কাছে  মনোনয়ন চাইবো।
মেহেরপুর নিউজ: লোকমুখে শুনতে পাওয়া যায় সাবেক এমপি মাসুদ অরুন নেতাকর্মীদের কে একত্রিত করে একক প্রভাব বিস্তার করে আছে। এ বিষয় নিয়ে কিছু বলুন।
আলমগীর খান সাতু: জেলা বিএনপির একটা পূর্নাঙ্গ কমিটি হওয়ার কথা কিন্তু সেটা হইনি। একটা আংশিক কমিটি হয়েছে এবং এই আংশিক কমিটিটি মাত্র ৩২ জনের। কমিটি কেন্দ্র থেকে দেওয়া হয়েছে। এটা তৃনমূল থেকে দেওয়া কমিটি নয়। এই কমিটির কার্যনির্বাহী পরিষদের প্রথম সভায় তীব্রভাবে এর প্রতিবাদ জানিয়েছিলাম। আমি ব্যক্তিগতভাবে সাধারন সম্পাদককে বলেছিলাম একটা রেজুলেশন করেন যে, কেন্দ্র থেকে কমিটি চাপিয়ে দেওয়াই আমরা এর তীব্র প্রতিবাদ জানাই। তৃনমূল নেতাকর্মীদের মধ্য থেকে নেতৃত্ব আসতে হবে। পরিষ্কার কথায় আমি বলেছিলাম, মাসুদ অরুন একাকিত্ব তার পার্সোনাল ইজম তৈরী করতে চায়। এতে দল প্রচন্ড ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে এবং দল ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার কারণেই আজ পৌরসভা এবং ইউনিয়ন পরিষদের ৯টি ইউনিয়নের মধ্যে মাত্র একটিতে বিএনপির প্রার্থী চেয়ারম্যান হয়েছে।  ইতোপূর্বে মেহেরপুর জেলাকে মেহেরপুরের মাটি বিএনপির ঘাটি হিসেবে আখ্যায়িত করতাম। এটা আস্তে আস্তে অযোগ্য নেতৃত্বর কারণে এই করুন অবস্থার মধ্যে চলে গিয়েছে।
মেহেরপুর নিউজ: আপনার মতে মেহেরপুরের যোগ্য নেতৃত্ব কে দিতে পারবে?
আলমগীর খান সাতু : এটা তৃনমুল, গ্রামের ও মাঠের নেতাকর্মীরা ঠিক করবে কে তাদের নেতা হবে।
মেহেরপুর নিউজ: ঘরে বসেই আপনি মনোনয়ন চাইছেন এবং তৃনমূলে আপনার কোন যোগাযোগ নাই বলে জনশ্রতি রয়েছে, সেক্ষেত্রে মনোনয়নের আশা করার কারণ কি ?
আলমগীর খান সাতু: কে বলেছে আমি ঘরে বসে থাকি। বিভিন্ন গ্রামের নেতা কর্মীরা আমার কাছে আসে । আমিও তাদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ করি। আর এগুলো যারা বলে তারা দলের ভাল চাইনা।
মেহেরপুর নিউজ: আপনাকে তো গনসংযোগ করতে দেখা যায় না ?
আলমগীর খান সাতু: আমি আনুষ্ঠানিক ভাবে এখনো গনসংযোগ শুরু করিনি। তবে তৃনমূল নেতাকর্মীদের সাথে আমার নির্বাচন সংক্রান্ত কথা বার্তা হয় নিয়মিত।
মেহেরপুর নিউজ: আপনাকে বিএনপির কোন আন্দোলন সংগ্রামে দেখা যায় না। কিন্তু আপনি মনোনয়ন প্রত্যাশা করেন। কোন সূত্র ধরে ?
আলমগীর খান সাতু: আমি ২০ বছর ধরে দলের জেলা কমিটির সহসভাপতি। আমি বিএনপির আন্দোলন সংগ্রামে না থাকলে আমি এ পদে থাকতে পারতাম না। আর আন্দোলন ও বিএনপির বিভিন্ন অনুষ্ঠানের বিষয়ে সার্বক্ষনিক তৃনমূলের সাথে যোগাযোগ আছে এবং মনোয়নের ব্যাপারে কেন্দ্রের অতান্ত গুরুত্বপূর্ন নেতার সাথে আমি নিয়মিত যোগাযোগ রাখছি।
মেহেরপুর নিউজ: আপনি বিএনপি থেকে মনোয়ন না পেলে সতন্ত্র ভাবে নির্বাচন করবেন কি না ? নাকি দলের প্রার্থী হয়ে একত্রিতভাবে কাজ করবেন।
আলমগীর খান সাতু: না, এরকম কোন চিন্তা ভাবনা নেই। দেশ নেত্রী খালেদা জিয়া এবং ধানের শীষ এর বাইরে যাওয়ার ইচ্ছা এবং আকাংখা আমার নাই।
মেহেরপুর নিউজ: মনোনয়ন পেয়ে আপনি নির্বাচিত হলেন, নির্বাচিত এমপি হিসেবে মেহেরপুরের উন্নয়ন নিয়ে আপনার পরিকল্পনা কি ?
আলমগীর খান সাতু: মেহেরপুর একটা পশ্চাদপদ জেলা । এখানে অনেকে অনেক প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। যদি জনগন আমাকে সেই সুযোগ দেয়। দেশ নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া সেই সুযোগ করে দেয়। বিএনপি রাষ্ট্র ক্ষমতাই আসে মেহেরপুরকে আমি সুন্দরভাবে এবং বাংলাদেশের মধ্যে একটি ইতিহাস পূর্ন জেলা হিসাবে তুলে ধরবো এটা হলো আমার প্রথম কাজ এবং শিক্ষাতে আমাদের এখানে পশ্চাদপদ একটি জেলা। কৃষিভিক্তিক অর্থনৈতিক এলাকা হিসেবে মানুষের এখানে কৃষিই জীবন জীবিকার চালিকা শক্তি । এটাকে আরো মর্ডানাইজ করে মানুষের কর্ম সংস্থানের ব্যবস্থা করে ব্যাপক শিল্প কল কারখানা স্থাপন করার পরিকল্পনা রয়েছে।
মেহেরপুর নিউজ: মেহেরপুরের মানুষের প্রানের দাবী স্থল বন্দর । আপনি নির্বাচিত হলে এ নিয়ে কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন কি না?
আলমগীর খান সাতু: বিএনপি যখন রাষ্ট্রীয় ক্ষমতাই ছিল তখন ডেপুটি কমিশনার সাহেব এবং আমি সহ প্রশাসনের অনেক লোকজন নিয়ে আমরা বুড়িপোতা ইউনিয়নের নবিননগরে স্থলবন্দরের জন্য পরিদর্শন করেছিলাম। স্থল বন্দর মেহেরপুরের জন্য একান্তই প্রয়োজন । এই আন্দোলনের সাথে যারা যুক্ত তাদের সাথে আমি একমত। আমি আশা করি বিএনপি আগামীতে ক্ষমতায় আসলে স্থলবন্দর বাস্তবায়ন করবো।
মেহেরপুর নিউজ: মেহেরপুর নিউজকে সময় দেওয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।
আলমগীর খান সাতু: মেহেরপুর নিউজকেও ধন্যবাদ।

ঘোষনা: পরবর্তী সাক্ষাৎকার পড়বেন বিএনপি নেতা ও বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতির অতিরিক্ত মহাসচিব জাকির হোসেন এর।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.