Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / একটি সেতুই বদলে দিতে পারে মাথাভাংগা নদীর দু’পাড়ের ২০ গ্রামের ভাগ্য

একটি সেতুই বদলে দিতে পারে মাথাভাংগা নদীর দু’পাড়ের ২০ গ্রামের ভাগ্য

এক্সক্লুসিভ

pic222আবু আক্তার,মেহেরপুর নিউজ ২৪ ডট কম,২৮ জানুয়ারি:
মাত্র  একটি সেতুর অভাবে  মাথাভাংগা নদীর দু’পাড়ে ২০ গ্রামের জীবন যাত্রায় নেমে এসেছে চরম দূর্ভোগ। কৃষিকাজ, যাতায়াত, ব্যবসা বানিজ্যসহ সকল কাজে নেমে এসেছে স্থবিরতা। স্বাধীনতা পরবর্তী গত ৪২ বছরের এলাকাবাসীর একমাত্র প্রানের দাবী এই নদীর উপর একটি সেতু নির্মান। অনেক জনপ্রতিনিধির আশ্বাসের বানী শুনলেও যা পূরণ হয়নি এখনো। ফলে এই আধুনিক যুগেও এলাকাবাসী বাস করছে আদিম যুগে। উন্নয়ন হয়নি জীবনমানের।
মেহেরপুর ও কুষ্টিয়া জেলার মাঝখান দিয়ে বয়ে গেছে মাথাভাংগা নদী। নদীর এক পাড়ে মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার মটমুড়া, ষোলটাকা ইউনিয়নের ১০টি গ্রাম এবং কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর উপজেলার খলিসাকুন্ডি ও মিরপুর উপজেলার নওদাপাড়া ইউনিয়নের ১০ টি গ্রামের লক্ষাধিক মানুষের বসবাস। গ্রাম গুলো থেকে ১২ কিলোমিটার দুরে হাটবোয়ালিয়া ব্রীজ ও ১৪ কিলোমিটার দুরে দৌলতপুরের খলিসাকুন্ডি সেতু। স্কুল কলেজ, ব্যবসা বানিজ্য কিংবা জর“রী চিকিৎসার তাগিদে ভোলাডাঙ্গা বাঁশের সাঁকো অথবা রাজাপুর খেয়াঘাট ব্যবহার করতে হয়। গভীর রাতে ঘাটে মাঝি না থাকায় দুর্ভোগ বেড়ে যায় দ্বিগুন।
এসব গ্রামবাসীদের নদী পারের জন্য একটিমাত্র সেতু খলিশাকুন্ড সেতু। যেটা পার হয়ে এপার ওপার করতে গেলে সময় ব্যায় হয় অনেক। এলাকাবাসীরা মনে করে ভোলাডাংগা-ঝুটিডাংগা গ্রামের মাঝে মাথাভাংগা নদীতে একটি সেতু হলে এপার ওপারের মানুষের যোগাযোগ হবে ৪গুন কম সময়ে।pic (1)11
ষোলটাকা গ্রামের আব্দুল মমিন বলেন, আমাদের এই সাকু পারা-পারে খুব কষ্ট আমরা এই সাকু দিয়ে পার হতে গিয়ে বৃদ্ধ হয়ে গেলাম। আমাদের বাপ-দাদারাও দেখিনি আমরা দেখতে পেলাম না একটি ব্রিজ।
ফজিতুল নেছা জানান,এই সেতুর কারনে জরুরী কোন রুগী মেহেরপুর বা কুষ্টিয়ায় নিতে গেলে সময় ক্ষেপনের কারনে অনেক সময় রুগী মারা যায়। এছাড়াও শিক্ষার্থীদের স্কুল-কলেজ যেতে পারেনা তুলতে পারে কৃষক তাদের উৎপাদিত ফসল।
স্কুল ছাত্র জুয়েল রানা জানান, সাকু পার হয়ে স্কুলে যেতে গিয়ে অনেক সময় সাকু থেকে পড়ে গিয়ে বই-খাতা ভিজে যায়। অনেকে সাকু পার হওয়ার ভয়ে স্কুলে আসতে চায়না।
এলাকাবাসীরা অভিযোগ করে বলেন, আমাদের ইউনিয়ন চেয়ারম্যান বা এমপি কেউ এই ব্রিজের কথা ভাবেনা তারা শুধু নিজেদের পেট ভরা নিয়ে ব্যাস্ত থাকে। জনপ্রতিনধিরা ভোট আসলে আশ্বাসের বানী শোনায়। ভোট শেষ হলে তাদের পেট ভোরতেই ব্যস্ত থাকে। সবায় নিজের আখের গোছাতে ৫বছর পার করে। কিন্তু একটি মাত্র সেতু হলে আমরা ২০ গ্রামের মানুষ উপকার পাবো এটা তাদের ভাবার সময় নাই। এখন আমরা জমির ফসল সাকু দিয়ে আনতে গেলে যে খরচ লাগে ব্রিজ হলে সেটা আর লাগবেনা।
মেহেরপুর-২ আসন (গাংনী),সংসদ সদস্য মকবুল হোসেন জানান, একটি ব্রিজের জন্য মাথাভাংগা নদীর দু-পারের মানুষ দির্ঘ্য দিন ধরে কষ্ট করে আসছে। তিনি আরো বলেন মানিকদিয়া ও ভোলাডাংগা গ্রামের মাঝ দিয়ে যেনো একটি ব্রিজ হয় সে ব্যাপারে আমি আপ্রাণ চেষ্টা করবো। এবং ২০ গ্রামের মানুষের আশা পৃরণ করবো। বর্তমান সংসদ সদস্য এই সেতু নির্মানের আশ্বাস দিলেও আশান্বিত হতে পারছেনা এলাকাবাসী।
এই সেতুটি নির্মান হলে নদীর দু’পাড়ের মানুষ যোগাযোগের ভোগান্তি থেকে পরিত্রান পাবে পাশাপাশি এলাকার উন্নয়ন সহ উন্নত হবে জীবনমান। তাই সরকারের কাছে এলাকাবাসীদের প্রত্যাশা এখানে একটি সেতু নির্মানের। আর আশ্বাস নয় বাস্তবায়ন চাই।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.