Templates by BIGtheme NET
Home / ফিচার / মানবিক আবেদন ।। হাঁটতে শেখার বয়সে ফাতেমা ব্যাথায় নীল

মানবিক আবেদন ।। হাঁটতে শেখার বয়সে ফাতেমা ব্যাথায় নীল

meherpur-1মেহেরপুর নিউজ,১৩ নভেম্বর:
ফুটফুটে শিশু। অদ্ভুত মায়া লাগা চেহারা । বয়স মাত্র এক বছর তিস মাস। এ বয়সে শিশুদের হাটতে শেখা, দৌড়াদৌড়ি করা, তোতলামি করে কথা বলার কথা। কিন্তু আর পাঁচটা শিশুর মত দৌড়াতে, হাটতে বা কথা বলতে কোনটাই পারে না ফাতেমা। মা দাদির কোল আর বিছানাই ফাতেমার গন্ডি।
মেহেরপুর জেলা শহরের ষ্টেডিয়ামপাড়ার জাকির হোসেন ও চামেলীর খাতুন দম্পতির ছোট সুখের সংসার। জাকির হোসেন একজন গাড়ি চালক। দির্ঘদিন পত্রিকা পরিবহনের গাড়িও চালিয়েছেন তিনি। বর্তমানে শ্যামলী পরিবহনে মেহেরপুর-ঢাকা রুটে গাড়ি চালাচ্ছেন। আয়েশীভাবে না হলেও সুখে শান্তিতে সংসার চলে যায় এ দম্পতির। ছোট সংসারে তাদের দুই সন্তানের পাশাপাশি থাকেন বৃদ্ধ বাবা মা।
৮ বছরের এ দম্পতি সুখে শান্তিতেই বসবাস করে আসছেন। বিয়ের ২ বছরের মাথায় তাদের ঘরে পুত্র সন্তান জন্ম নেয়। তার নাম রাখা হয় রিফাত আহমেদ কনক। কনক এখন শহরের একটি কিন্ডার গার্টেন স্কুলে প্লে শ্রেণীতে পড়ে। ছেলের জন্মের পর থেকে জাকির হোসেনের পরিবারের সকলের আশা একটি মেয়ে হলেই তাদের সুখের সংসার পরিপূর্নতা পায়। তাদের সেই প্রার্থনা সৃষ্টিকর্তা কবুল করেন। ছেলের জন্মের পাচ বছর পর ২০১৫ সালের ৯ আগষ্ট মেহেরপুরের একটি ক্লিনিকে সিজারিয়ান অপারেশনের মাধ্যমে জন্ম হয় একটি মেয়ের। মেয়েটির নাম রাখা হয় ফাতেমা খাতুন। ফাতেমার জন্মে পরিবারের সদস্যদের মাঝে খুশির বন্যা বয়েছিল। ছেলের জন্মের পাঁচ বছর পর মেয়ে ফাতেমার জন্মে পরিবারের আশার ষোলআনা পূর্ণ হয়। কিন্তু নিয়তির কাছে হার মানে সবাই। ‘চাঁদের ও কলঙ্ক আছে’ প্রবাদের মত সাজানো সংসারে কালো ছায়া দেখাদিল শিশু ফাতেমাকে ঘিরে।
ফাতেমার দাদি রেহেনা বেগম বলেন, জন্মের সময় চিকিৎসক বলেছিলেন মেয়েটির চিকিৎসা করাতে। এর বেশি নাকি বলেননি তিনি। ফাতেমার বয়স যখন চারদিন । তখন তার দাদি লক্ষ্য করলেন তার দুটি পা ও মুখ নীলাভ বর্ণ ধারণ করেছে। একই সঙ্গে সারাদিন শুধু ঘুমাচ্ছে। বুকের মধ্যে মোচর দিয়ে উঠলো বললেন তার দাদি। স্থানীয় একজন শিশু বিশেষজ্ঞ’র কাছে নিয়ে গেলেন ফাতেমাকে। কয়েকটি পরীক্ষা করার পর তিনি বললেন এ রোগ সারাতে ফাতেমাকে জেলার বাইরের কোনো অভিজ্ঞ চিকিৎসকের কাছে নিতে হবে।জন্মগত ভাবে সে হার্টের (হদপিন্ডে) দুটি ছিদ্র নিয়ে জন্ম নিয়েছে বললেন ওই চিকিৎসক। চিকিৎসকদের ভাাষায় এ রোগটিকে বলা হয় এক্রিয়াল সেপট্রাল ডিফেক্ট (এএসডি) । এ ধরণের রোগের একমাত্র চিকিৎসা অপারেশন। এ কথা শোনার পর শিশু ফাতেমার ওই নীলাভ বর্ণ পুরো পরিবারের সদস্যদের আকড়ে ধরলো।
জেলার বাইরে কুষ্টিয়ার একজন হৃদরোগ বিশেষজ্ঞের কাছে নেয়া হলো শিশু ফাতেমাকে। তিনি আশ্বস্ত করলেন ঔষধে রোগটি নিরাময় হবে। এভাবে দিন কাটতে লাগলো কিন্তু ফাতেমার কোনো উন্নতি হয়নি। পরে রাজধানীর একটি সরকারী হাসপাতালে নেয়া হলে সেখানকার একজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক বলেন ১৫ দিনের মধ্যে অপারেশন করা হলে রোগটি সেরে যাবে। তাতে খরচ হবে আনুমানিক ২ লাখ টাকা। খরচের কথা শুনে মাথায় যেন আকাশ ভেঙ্গে পড়লো ফাতেমার বাবা জাকির হোসেনের। এতগুলি টাকা সে কোথায় পাবে। টাকা গোছানো সম্ভব হলো না তার। এভাবেই টাকার অভাবে একমাত্র কন্যার চিকিৎসা বন্ধ করে রেখেছেন তিনি। মাঝে মাঝে যখন মেয়ে যন্ত্রনায় কাতরাতে থাকেন স্থানীয় চিকিৎসকদের কাছে নিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে থাকেন। এভাবেও এই একটি বছরে তার প্রায় ২ লাখ খরচ হয়ে গেছে। লজ্জায় কারো কাছে হাত পাততে পারেন না জাকির হোসেন।
জাকির হোসেন বলেন, আমি যা আয় করি তা খুব সামান্য। দিন আনি দিন খাই এর মত শেষ হয়ে যায়। গত একটি বছর মেয়ের চিকিৎসা খরচ করতে গিয়ে আমি নি:¯^। একসাথে এতগুলি টাকা গোছানো আমার পক্ষে সম্ভব নয়। সমাজে অনেক বিত্তবান মানুষ আছেন। যারা বিভিন্ন স্থানে খরচ করেন। এসকল মানুষগুলো আমার ফাতেমার মুখের দিকে তাকিয়ে সাহায্য করলেও হয়ত মেয়েটিকে বাচাঁনো সম্ভব হবে।
ফাতেমার মা চামেলী খাতুন বলেন, মেয়ের কষ্ট সহ্য করতে পারিনা। অবুঝ শিশু কিছু বোঝাতে পারেনা। মেয়ের দিকে তাকালেই চোখে এমনিতেই পানি চলে আসে। আমাদের মত গরিব মানুষদের পক্ষে মেয়ের চিকিৎসা করানো সম্ভব না। সমাজে কেউ কি নেই? নিজের মেয়ের কথা চিন্তা করে একটু সাহায্য করবে। তার সাহায্যে হয়তো আমার ফাতেমার হাসিমাখা মুখটা ফিরে পাব।
চুয়াডাঙ্গা জেনারেল হাসপাতালের হুদরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. পরিতোষ কুমার ঘোষ বলেন, এ ধরণের রোগে শ্বাসকষ্ট স্বাভাবিক বৃদ্ধি বাধা, শরীরের বিভিন্ন অংশ নীল হয়ে যায়। এর একমাত্র চিকিৎসা অপারেশন। সরকারী হাসপাতালে করলে দেড় লক্ষটাকা এবং বেসরকারীকে করলে মিনিমাম আড়াই লক্ষ টাকা খরচ হয়।
পরিশেষে এভাবেই বলি, ‘মানুষ মানুষের জন্য জীবন জীবনের জন্য, একটু সহানুভতি কি মানুষ পেতে পারে না’। প্রিয় পাঠক ফাতেমাকে সাহায্যে করতে এগিয়ে আসতে পারি আমরা সবাই। আমাদের সকলের সহযোগীতায় হয়ত ফাতেমা হাটতে শুরু করবে। মায়ের চোখের অশ্রু মুছে দিতে পারবে হয়তবা পুরো পরিবারের ওপর যে বেদনার নীলাভ বর্ণ ধারণ করেছে তা মিশিয়ে দিতে পারবে। ফাতেমাকে সাহায্য করতে পারেন তার দাদার হিসাব নম্বরে( মো: আব্দুর রহমান, হিসাব নম্বর: ৩১০৩১১৭০০০০০০২৩, উত্তরা ব্যাংক, মেহেরপুর শাখা) । অথবা ফাতেমার বাবা জাকির হোসেনের বিকাশ নম্বর: ০১৭১৪-৯০৫৮৩৮ এই নম্বরে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.