Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / পরিবার ছাড়াই ঈদ উদযাপন করছে মেহেরপুর শিশু পরিবারের শতাধিক শিশু

পরিবার ছাড়াই ঈদ উদযাপন করছে মেহেরপুর শিশু পরিবারের শতাধিক শিশু

s-3মেহেরপুর নিউজ ২৪ ডট কম,২৮ জুলাই:
“মা কথাটি ছোট্র অতি কিন্তু যেন ভাই, ত্রিভুবনে মায়ের মত আপন কেহ নাই” গানের এই কথার সাথে দ্বিমত নেই কারো। দুনিয়ার সবচাইতে প্রিয়জন সেই মা -বাবাকে ছাড়াই ঈদ উদযাপন করতে যাচ্ছে মেহেরপুর সরকারি শিশু পরিবারের শতাধিক শিশু। ঈদ হচ্ছে আনন্দের, খুশির, শাষন বারণ না মানার। সেই খুশি আর আনন্দ অন্যান্য ছেলে-মেয়েদের থাকলেও শিশু পরিবারের শিশুদের  মাঝে নেই। সরকারী শিশু পরিবারের শিশুদের নিয়ে মুজাহিদ মুন্নার বিশেষ প্রতিবেদন।

বিভিন্ন স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সহ নানা শ্রেণী পেশার মানুষ বছর শেষে ঈদ এলে দুর-দুরান্ত থেকে ছুটে যায় মা-বাবা সহ পরিবারের অনান্য সদস্যদের মাঝে ঈদ উদযাপন করতে। মেহেরপুর সরকারি শিশু পরিবারের  শিশু-কিশোরদের ঈদ করতে হয় শিশু পরিবারেই। শতাধিক শিশু বসবাস করে মেহেরপুর সরকারি শিশু পরিবারে। কারো বাবা আছে, মা নেই, মা আছে, বাবা নেই। পরিবারের অসচ্ছলতা আর মা, বাবা না থাকার কারনে ঠাঁই হয়েছে সরকারি শিশু পরিবারে। সমাজের সচ্ছল পরিবারের শিশুরা যখন ঈদ আনন্দ আর খুশির জোয়ারে ভাষছে। সেই সময় এতিম শিশুরা চার দেয়ালের মধ্যে সরকারি নিয়মনীতি মেনে ঈদ উদযাপনের প্রস্তুতি নিচ্ছে। শিশু ও শিশু পরিবারের কর্মকর্তা s-2কর্মচারিদের দাবি মা,বাবা ও পরিবারের সাথে ঈদ উদযাপন করার যে আনন্দ তা পৃথিবীর কোথাও পাওয়া যাবেনা। তবুও এখানে বিভিন্ন জেলার শতাধিক শিশু একটি পরিবার ভেবে সেই দুঃখ-কষ্ট  ভোলার জন্য সামর্থ অনুযায়ী ঈদ উদযাপনের প্রস্তুতি নিচ্ছে।
ঈদ হচ্ছে আনন্দের ,ঈদ হচ্ছে খুশির। বাইরের ছেলে মেয়েরা যেভাবে পরিবারের সাথে আনন্দ করে সেভাবে আমরা আনন্দ করতে পারিনা। এমনই কষ্টমাখা ঈদ উদযাপন করবে সরকারী শিশু পরিবারের নিবাসী মানিকের। শুধু মানিক না তার মতো শতাধীক বিভিন্ন বয়সী এতিম শিশুদের। তারা জানান, বড় সাধ জাগে বাবা মার সাথে পরিবারের সাখে । কিন্তু সরকারী নিয়মকানুনের কারণে তারা পরিবারের সাথে ঈদ করতে পারেনা।
মেহেরপুর সরকারি শিশু পরিবারের ইষ্ট্রাক্টর মনসার আলী মামুন জানান, পরিবারে সবাই থাকতেও এতিম  শিশুদের ফেলে ঈদ করতে বাড়ি যেতে খুব কষ্ট হয়। তারপরও বাড়িতে অসুস্থ মাকে রেখে এখানেই ঈদ উদযাপন করতে যাচ্ছি।
s-1সহকারি তত্বাবধায়ক এস এম রুহুল আমিন জানান, বছরের একটা দিন। ছেলে-মেয়ের সাথে ঈদ করার কথা। আমাদের মনে অনেক কষ্ট থাকলেও অনাথ শিশুদের সাথে ঈদ করতে পেরে সব ভুলে যাই।
মেহেরপুর শিশু পরিবারের উপ-তত্বাবধায়ক লাইজু রাজ্জাক জানান, এখানকার বাচ্চারা বেশির ভাগই অনাথ। কারো বাবা নেই, মা নেই। আমরা চেষ্টা করি তাদের বাবা মায়ের অভাব পূরণ করার। আসন্ন পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপনের জন্য তাদের উন্নত খাবার, পোষাক সহ বিনোদনের ব্যাবস্থা গ্রহণ করেছি। তবুও অনেকেই পরিবারের সাথে ঈদ করেত চাই।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.