Templates by BIGtheme NET
Home / বর্তমান পরিপ্রেক্ষিত / মীর কাশেম আলীর ফাঁসি কার্যকর

মীর কাশেম আলীর ফাঁসি কার্যকর

capture-20160903-232944নিউজ ডেস্ক,০৩ সেপ্টেম্বর:
ফাঁসিতে ঝোলানো হয়েছে দেশের শীর্ষ যুদ্ধাপরাধী মীর কাসেম আলীকে। শনিবার রাত সাড়ে ১০টার পর গাজীপুরের কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার-২ এর ফাঁসির মঞ্চে তার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়।

মহান মুক্তিযুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে ফাঁসির দড়িতে ঝুলতে হলো পাকিস্তানি খান সেনাদের সহযোগী ‘বাঙালি খান’ মীর কাসেম আলীকে।

কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার প্রশান্ত কুমার বণিক এই ফাঁসি কার্যকরের খবর নিশ্চিত করেন।

কারাগারের সামনে উপস্থিত সংবাদকর্মীদের উদ্দেশ্যে সিনিয়র জেল সুপার বলেন, রাত ১০টার পরই মীর কাসেম আলীকে ফাঁসির মঞ্চে তুলে গলায় ফাঁস পরানো হয়। আর এরপর ফাঁসি দিয়ে ঠিক রাত ১০টা ৩০ মিনিটে তার মৃত্যু নিশ্চিত করা হয়।

মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানি বাহিনীর সহযোগী কিলিং স্কোয়াড আলবদর বাহিনীর তৃতীয় শীর্ষনেতা ছিলেন এই মীর কাসেম আলী। একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে চট্টগ্রামের ডালিম হোটেলের নির্যাতনকেন্দ্রে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে শহীদ কিশোর মুক্তিযোদ্ধা জসিম উদ্দিনকে হত্যার দায়ে ফাঁসির দণ্ড দেওয়া হয় তাকে। সেই দণ্ডই কার্যকর করা হলো শনিবার রাতে।

স্বাধীনতার ৪৫ বছর পর এটি হচ্ছে মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলার ষষ্ঠ ফাঁসির রায় কার্যকর, যার মাধ্যমে সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড নিশ্চিত করা হলো চট্টগ্রাম অঞ্চলের এই মানবতাবিরোধী অপরাধের হোতাকে। এর আগে ফাঁসি কার্যকর হওয়া অন্য পাঁচ শীর্ষ যুদ্ধাপরাধীর মধ্যে চারজনই জামায়াতের এবং অন্যজন ছিলেন বিএনপির সর্বোচ্চ পর্যায়ের নেতা।

শনিবার রাতের মধ্যেই মীর কাসেম আলীর মরদেহ মানিকগঞ্জের হরিরামপুর উপজেলার চালা ইউনিয়নের চালা গ্রামের বাড়িতে নিয়ে তার পরিবার-পরিজনের কাছে হস্তান্তর করা হবে। রোববার (০৪ সেপ্টেম্বর) ভোররাতে সেখানকার কবরস্থানে তার নামাজে জানাজা ও দাফন সম্পন্ন হবে।

জামায়াতের ছাত্র সংগঠন ইসলামী ছাত্রসংঘের (জমিয়তে তালাবা) পূর্ব পাকিস্তান ছাত্রসংঘের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে মীর কাসেম একাত্তরে ছিলেন আলবদর বাহিনীর তৃতীয় শীর্ষনেতা। মুক্তিযুদ্ধে সশস্ত্র বিরোধিতাকারী জামায়াতের হয়ে তার নেতৃত্বেই চট্টগ্রাম অঞ্চলে নৃশংসতম নারকীয় যুদ্ধাপরাধ সংঘটিত করে এই বাহিনী। বুদ্ধিজীবী হত্যার মূল তালিকা প্রণয়নকারীদেরও একজন তিনি। আর ফাঁসি হওয়া পর্যন্ত ছিলেন জামায়াতের কর্মপরিষদ সদস্য।

একাত্তরের মূল ঘাতক ও জামায়াতের শীর্ষনেতা এবং দেশের এই প্রভাবশালী ধনকুবেরের ফাঁসি কার্যকরের ঘটনায় দেশের জন্য তাই রচিত হলো আরও একটি নতুন ইতিহাস।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.