Templates by BIGtheme NET
Home / ইতিহাস ও ঐতিহ্য / মুজিবনগরে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী :: আন্তর্জাতিক মান সম্পন্ন পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তোলার লক্ষে ১ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দের প্রতিশ্রুতি প্রধানমন্ত্রীর

মুজিবনগরে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী :: আন্তর্জাতিক মান সম্পন্ন পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তোলার লক্ষে ১ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দের প্রতিশ্রুতি প্রধানমন্ত্রীর

মেহেরপুর নিউজ, ১৩ ফেব্রুয়ারি:
মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেছেন, স্বাধীনতার শপথ ভূমি ঐতিহাসিক মুজিবনগরকে একটি আধুনিক ও আন্তর্জাতিক মান সম্পন্ন পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তোলার লক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।
বুধবার সকাাল ১১ টার দিকে মেহেরপুরের মুজিবনগর মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি কমপ্লেক্স পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।
পরিদর্শন কালে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী মেহেরপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য ফরহাদ হোসেন, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের সচিব আরিফ উর রহমান, গনপূর্ত বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী সাহাদত হোসেন, স্থাপত্য অধিদপ্তরের প্রধান স্থপতি কাজী গোলাম নাসিরসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নিয়ে মুজিবনগর কমপ্লেক্স এলাকায় উন্নয়ন পরিকল্পনা করার  লক্ষে পরিদর্শন করেন মন্ত্রী।এসময় মেহেরপুর জেলা প্রশাসক আতাউল গনি, পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।
মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী আরোও বলেন, বিদেশী পর্যটকরা এসে যাতে মুজিবনগর আম্রকাননের অপার সৌন্দর্য উপভোগ করতে পারে সে ল¶্যে সব ধরনের অবকাঠামো নির্মাণ করা হবে।

তিনি বলেন, সংসদে মেহেরপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন দোদুলের প্রশ্নের উত্তরে প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন ৫০০ কোটি টাকা বরাদ্দ হচ্ছে। পরে প্রধানমন্ত্রী মৌখিকভাবে এক হাজার কোটি টাকা বরাদ্দের প্রতিশ্রæতি দেন। প্রধানমন্ত্রী এমনও বলেছেন মুজিবনগরের জন্য প্রয়োজনে যা লাগবে তাই বরাদ্দ দেওয়া হবে।
বাংলাদেশের প্রথম সরকারের শপথের স্থান মুজিবনগর গৌরব ও গৌরবের জায়গা উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, এটি হচ্ছে মহান মুক্তিযুদ্ধের তীর্থ ভূমি। প্রথম সরকার এখানে গঠিত হওয়ার সেই আদলেই মুজিবনগরকে সাজানো হবে। এখানে কেউ ঘুরে গেলে যাতে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ইতিহাস সম্পর্কে একটি পরিস্কার ধারনা নিতে পারেন সে লক্ষে কাজ করছে সরকার। মুজিবনগর দেখেই নতুন প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস দেখতে পারবে, শিখতে পারবে।

পরে মুজিবনগর স্মৃতি কমেপ্লক্সের পর্যটন মোটেল মিলনায়তনে মুজিবনগর স্মৃতি কমপ্লেক্সের স্থাপত্য নকশা অনুমোদন সংক্রান্ত সভায় সভাপতি হিসেবে যোগ দেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী। সভায় অন্যদের মধ্যে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ও মেহেরপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য ফরহাদ হোসেন, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের সচিব আরিফ উর রহমান, গণপূর্ত বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী সাহাদত হোসেন, স্থাপত্য অধিদপ্তরের প্রধান স্থপতি কাজী গোলাম নাসির. মেহেরপুর জেলা প্রশাসক আতাউল গনি, পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাহিদা আক্তারসহ স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা ও আওয়ামীলীগ নেতৃবন্দরা বিভিন্ন প্রস্তাবনা তুলে ধরে বক্তব্য দেন।
সভা থেকে জানা যায়, নতুন স্থাপত্য নকশায় স্মৃতি কমপ্লেক্সের ভিতর অবস্থিত মুজিবনগর শিশু পরিবার ও মুজিবনগর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পোষ্ট অফিস, টিএন্ডটি অফিসসহ সকল সরকারি অফিস কমপ্লেক্স থেকে বাইরে স্থানান্তর করা হবে। নতুন করে ৩৪ একর জমি অধিগ্রহণ করে লেক, একাধিক রিসোর্ট তৈরি করা হবে। পুরো কমপ্লেক্স এলাকা ঘিরে মুক্তিুদ্ধকালীন বিভিন্ন মূর‌্যাল তৈরি করা হবে মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক আবহ সৃষ্টি করার জন্য।
সভায় মেহেরপুর জেলা প্রশাসক আতাউল গনি মেহেরপুরের দুটি আঞ্চলিক সড়কের জেলার প্রবেশ মুখে বঙ্গবন্ধুর মুর‌্যাল তৈরির প্রস্তাব দেন এবং পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান ১৯৭১ সালের শপখ অনুষ্ঠানে জাতীয় নেতারা যে দিক দিয়ে ভারত থেকে মুজিবনগরে প্রবেশ করেছিলেন সেই স্থানে গেট তৈরি প্রস্তাব দেন। তাদের প্রস্তাব দুটি সভায় গৃহিত হয়।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.