Templates by BIGtheme NET
Home / কৃষি সমাচার / মুজিবনগরে লাইন পদ্ধতিতে ধান চাষে আগ্রহী হয়ে উঠেছে চাষীরা

মুজিবনগরে লাইন পদ্ধতিতে ধান চাষে আগ্রহী হয়ে উঠেছে চাষীরা

শাকিল রেজা,মুজিবনগর থেকে:
হাঠৎ করেই লাইন পদ্ধতিতে ধান চাষে আগ্রহী হয়ে উঠেছে মুজিবনগর উপজেলার চাষিরা। বেশির ভাগই জমিতে এলোমেলো ভাবে ধান লাগানো বাদ দিয়ে লাইন পদ্ধতিতে ধান চাষ করছে চাষিরা। এতে চাষিরা আগের থেকে বেশ লাভজনক হচ্ছে বলে তারা জানিয়েছে।মাঠে ঘুরে দেখা গেছে বেশির ভাগ জমিতে লাইন পদ্ধতিতে ধান চাষ করা আছে। চাষীদের কাছে জানতে চাইলে চাষীরা জানান, রোগবালাই কম ও ধান সতেজ রাখার জন্য নাকি তাদের এই পদ্ধতি। কৃষি অফিসের পরামর্শ অনুযায়ী তারা লাইন পদ্ধতিতে চলতি বছর থেকে ধান চাষ করা শুরু করেছে।চাষীরা বলেন, গত বছর আমাদের গ্রামের কয়েকজন লাইন পদ্ধতিতে ধান চাষ করেছিলো। কিন্তু তখন আমরা বুঝতে পারিনি।পরে তাদের ধানের ফলন ভালো দেখে আমাদেরও লাইন পদ্ধতিতে ধান চাষ করার ইচ্ছে জাগলো। তাই আমরা এই বছরে লাইন পদ্ধতিতে ধান চাষ করলাম।
এদিকে, লাইন পদ্ধতিতে ধান চাষ করা প্রথম চাষী আনারুল ইসলাম জানান,আনন্দবাসে আজ থেকে ১বছর আগে লাইন করে কেউ ধান চাষ করতো না। মুজিবনগর উপজেলা উপসহকারী কৃষি অফিসার ইখলাস হোসেন আমাদের লাইন পদ্ধতিতে ধান চাষ করার পরামর্শসহ পদর্শনী দেন।আর সেই পরামর্শ অনুযায়ী আমি লাইন পদ্ধতিতে ধান চাষ করি।
লাইন আর এলোমেলো পদ্ধতিতে ধান চাষ করার ভিতর পার্থক্য জানতে চাইলে তিনি জানান,লাইন পদ্ধতিতে ধান চাষ করলে ভালো ভাবে রোদ্র, বাতাস পায়। এতে ধানে রোগবালাই কম ও সতেজ হয়। তাছাড়া ধানের ফলনও বেশি। এলোমেলো ভাবে ধান চাষে বিঘা প্রতি ২০ থেকে ২১ মন ধান হয়। আর লাইন পদ্ধতিতে বিঘাপ্রতি ২৪ থেকে ২৫ মন ধান হয়।
এ বছর লাইন পদ্ধতিতে ধান চাষ করা চাষী মোশারফ করিম, সুজন আলী সহ কয়েকজন চাষী জানান,ধানের ভালো ফলন দেখে আমরা সকলেই আনারুল ভাইয়ের দেখে এই বছর চাষ করেছি।
পাশে থাকা আরেকজন চাষী ছইবদ্দীন বলেন, আমাদের গ্রামে অনেকজনকে লাইন পদ্ধতিতে ধান চাষ করতে দেখছি।বেলাইন পদ্ধতির চেয়ে লাইন পদ্ধতিতে ধান চাষের সুবিধাও বেশি। তাছাড়া ধানের ফলনও বেশি হচ্ছে। আমি চিন্তা করছি সামনের সিজিন থেকে লাইন পদ্ধতিতে ধান চাষ করবো।
উপ সহকারী কৃষি অফিসার ইখলাস হোসেন জানান,আজ থেকে ১ বছর আগে আনন্দবাসের কেউ লাইন পদ্ধতিতে ধান চাষ করতো না।গত বছর আমরা রাজস্ব প্রকল্পের আওতায় একজন চাষিকে ধানের পদর্শনী দিয়েছিলাম। ধানের ফলন বেশি হওয়ায় চাষিরা উৎসাহিত হয় এবং নিজ উদ্যেগে এ বছর লাইন পদ্ধতিতে ধান চাষ করে।
উপজেলা কৃষি অফিসার আনিসুজ্জামান খান জানান,লাইন পদ্ধতিতে ধান চাষ করার কারনে শুরু থেকে শেষ প্রর্যন্ত পরিচর্যা করা সুবিধা হয়।তাছাড়া রোদ্র, বাতাস ধানের গাছগুলো সমান ভাবে পেয়ে থাকে।এতে পোকামাকড় নিধন করা সম্ভব হয়।আর চাষীদের জন্য সবচেয়ে বড় সুবিধা হলো লাইন পদ্ধতিতে ধানের ফলন বেশি হয়। এ প্রর্যন্ত মুজিবনগর উপজেলার প্রায় ৯০ শতাংশ চাষী লাইন পদ্ধতিতে ধান চাষ করছে। আর যারা বাকি আছে আমরা আমাদের অফিস থেকে তাদের সকল ধরনের পরামর্শ দিচ্ছি, যাতে বাকী চাষিরাও লাইন পদ্ধতিতে ধান চাষ করে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.