Templates by BIGtheme NET
Home / ইতিহাস ও ঐতিহ্য / মুজিবনগর হোক শক্তির আধার

মুজিবনগর হোক শক্তির আধার

7তোজাম্মেল আযম, ১৬ এপ্রিল:

যেখান থেকে স্বাধীনতার সূর্য উঠেছিল, একটি স্বাধীন রাষ্ট্রের আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হয়েছিল, সেস্থানটিকে ইট পাথরের স্মৃতিসৌধই কি যথেষ্ট? নাকি আরও দাবী থাকা উচিত। মুজিবনগরকে কিভাবে উপযুক্ত মর্যাদা দেয়া যায়, মুজিবনগরকে ঘিরে আর কি কি কর্মকাÊ পরিচালিত হওয়া উচিত, মুজিবনগর কি অবহেলিত? এসব নিয়ে মুজিবনগর দিবসের সংগঠক, মুক্তিযোদ্ধা, বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ বিভিন্ন সময় বিভিন্ন বক্তব্য দিয়ে থাকেন। কেউ বলেছেন মুজিবনগরকে দ্বিতীয় রাজধানী করতে হবে। কেউ বলেছেন ‘বিকল্প সংসদ’ তৈরীর কথা। কেউবা মুজিবনগরকে ‘বাংলাদেশের শক্তিকেন্দ্র’ হিসেবেই দেখতে চাচ্ছেন। সুখের কথা হল মুজিবনগর নিয়ে সা¤প্রতিককালে দাবী দাওয়া জোরদার হচ্ছে, সংগ্রাম কমিটি গঠিত হয়েছে, মুজিবনগরের গুর“ত্ব বেশি করে অনুভূত হচ্ছে। ২০১১ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুজিবনগর দিবসে মুজিবনগরে সমাবেশে মেহেরপুরে স্থল বন্দর, যোগাযোগর ক্ষেত্রে রেল যোগাযোগ সহ সব ধরণের উন্নয়ন করার প্রতিশ্র“তি দিয়েছেন। তিনি নিজেও বাংলাদেশের প্রথম সরকারের শপথ অনুষ্ঠানের মুজিবনগর থেকে শক্তি পেয়ে থাকেন বলে বলেছেন। মুজিবনগর নিয়ে কে কি ভাবছেন, মেহেরপুর নিউজের পাঠকদের জন্য তিনি লিখেছেন এই বিশেষ প্রতিবেদন । নিচে তার সাক্ষাতকার ভিত্তিক প্রতিবেদনটি তুলে ধরা হলো:

Meherpurআবু ওসমান চৌধুরী বলেছেন :

তৎকালীন ইপিআর- এর চুয়াডাঙ্গার উইং কমান্ডার দক্ষিণ-পশ্চিমা রণাঙ্গনের সর্বাধিনায়ক, ৮ নং সেক্টর কমান্ডার লেঃ কর্ণেল (অবঃ) আবু ওসমান চৌধুরী বলেছেন, মুজিবনগর একসময় অবহেলিত ছিল। বঙ্গবন্ধুর সরকার যুদ্ধবিদ্ধ দেশগড়ার কাজে বেশী ব্যস্ত ছিল বিধায় মুজিবনগর নিয়ে চিন্তা ভাবনার সুযোগ সময় না হলেও তিনি মুজিবনগরকে মূল্যায়নের লিখিত নির্দেশ দিয়েছিলেন। কিন্তু পরবর্তী সরকারগুলো এসে মুজিবনগরকে গুরুত্ব দেয়নি। রাজনৈতিক দলগুলোর ভূমিকাও গঠনমূলক নয় বলে তার মন্তব্য।
আবু ওসমান চৌধুরী উলে­খ করেন, মুজিবনগর না হলে শপথ গ্রহণ সম্ভব হত না, কোন আন্তর্জাতিক সাহায্য সহযোগিতাও আসতো না। আর আমরাও আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী হিসেবে চিহ্নিত হতাম। বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার মুজিবনগরকে মূল্যায়ন করেছে। সেখানে সেক্টরভিত্তিক মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশকে তুলে ধরেছে। তিনি বলেন, মুজিবনগরে সংসদ অধিবেশনের এক তৃতীয়াংশ অধিবেশন অনুষ্ঠানের ব্যস্থা থাকতে হবে। মন্ত্রী পরিষদের বৈঠক হতে হবে। এমনকি সরকারি গুরুত্বপূর্ণ দফতর বসতে হবে। ১৭ এপ্রিল মুজিবনগর দিবসে বিশেষ অনুষ্ঠান আয়োজন থাকতে হবে।

Meherpur-117অধ্যাপক ফরহাদ হোসেন দোদুল :

মেহেরপুর- ১ আসনের এমপি অধ্যাপক ফরহাদ হোসেন দোদুল বলেছেন মুজিবনগর খ্যাত মেহেরপুরের উন্নয়নে স্থলবন্দরের বিকল্প নেই। সরকার বিষয়টি নিয়ে অনেক এগিয়েছে। এনিয়ে ভারতের সাথে রাষ্ট্রিয় পর্যায়ে আলোচনাও চলছে। মুজিবনগরের উন্নয়নে মুজিবনগর কমপে­ক্সের আওতাভুক্ত জোন করতে হবে কুষ্টিয়ার শিলাইদহে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কুঠিবাড়ি, লালন শাহের আখড়া ও আমঝুপি কুঠিবাড়িকে। মুজিবনগর মিউজিয়ামকেউ এই জোনের মধ্যে পর্যটন কেন্দ্র করতে হবে। পর্যটনের আওতায় নেয়া হলে দেশী বিদেশী পর্যটকরা আসবে। জানতে পারবে বাংলাদেশের জন্মের ইতিহাস। আর কৃষি নির্ভর মেহেরপুরের মানুষের আর্থ সামাজিক সমৃদ্ধি ঘটবে যদি মেহেরপুরে কৃষি নির্ভর কোন শিল্প কারখানা গড়ে তোলা যায়। তিনি আরও বলেন মুজিবনগরে এমন কিছু হওয়া দরকার যাতে জাতি বার বার মহৎ কাজ করার অনুপ্রেরণা খুজে পায়। কোন শিল্প উদ্দোক্তা এগিয়ে আসলে তিনি সার্বিক সহযোগিতা করবেন বলেও মত প্রকাশ করেছেন।

Meherpur-114প্রফেসর আবদুল মান্নান :

মেহেরপুরের আওয়ামী লীগের সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যাপক আবদুল মান্নান নিজেকে মুজিবনগরের প্রতিনিধি হিসেবে পরিচয় দেন। তিনি বলেন, মুজিবনগরে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলতে হবে। আন্তর্জাতিক চেকপোস্ট, যাদুঘর, মুজিবনগরকে পর্যটন কেন্দ্র করতে হবে। সংসদ সদস্য থাকাকালে তিনি মুজিবনগরের ব্যাপারে বেশ কিছু ‘কমিটমেন্ট’ আদায করেন বলেও জানান। তিনি সংসদ সদস্য থাকাকালে একাধিকবার এবং টেলিভিশনে টকশোতে ও ভয়েস অব আমেরিকান সাথে সাক্ষাৎকারেও তিনি মুজিবনগর প্রসঙ্গে বলেছেন। তিনি জোর দিয়ে বলেন মুজিবনগরে শিল্প প্রতিষ্ঠানের বিকল্প এমন কিছু প্রতিষ্ঠানাদি গড়ে তুলতে হবে, যাতে এলাকাবাসীর আয়-উপার্জনের ব্যবস্থা হতে পারে। এ প্রসঙ্গে তিনি ‘মুজিবনগর ট্রাস্ট’ গঠনের মাধ্যমে কৃষি বিপণন, আম গবেষণা, সংরক্ষণ প্রভৃতি উদ্যোগ বাস্তবায়নে কোর্ড ফাউন্ডেশনের সম্মতি আদায় করেছিলেন বলেও জানান।

Meherpur-112আবদুল­াহ আল আমিন :

মেহেরপুর সরকারি কলেজের রাষ্ট্র বিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আবদুল­াহ আল আমিন বলেছেন জাতী কঠিন দুঃসময়ে মুজিবনগরে শক্তি খুঁজে পায়। এই মুজিবনগরে বাংলাদেশের প্রথম সরকার শপথ নিয়ে যুদ্ধ পরিচালনা করে। মুজিবনগর সকল অন্যায়ের প্রতিবাদে নিরন্তর শক্তি যুগিয়ে আসছে। মুজিবনগর নিয়ে এই অঞ্চলের মানুষ গর্ব করে। মানুষ আবেগে উদ্বেলিত হয়। মুজিবনগর এলাকার মানুষের অর্থনৈতিক উন্নয়ন হওয়া দরকার। দরকার এলাকার শিক্ষার হার বৃদ্ধি। দেশের ২য় বৃহৎ বারাদি হর্টিকালচার সেন্টার, আমঝুপি বীজ উৎপাদন খামার ও চিৎলা বীজ উৎপাদন ও প্রক্রিয়াজাত করন কেন্দ্র নিয়ে একটি কৃষি বিশ্ব বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করা যেতে পারে। জিকে প্রকল্পর মতো অনুরূপ ভৈরব প্রকল্প। ভৈরব অববাহিকার কৃষিজমি সেচের আওতায় আনতে পারলে এলাকার মানুষ উপকৃত হবে।
Meherpur-115সৈকত রুশদী:

মেহেরপুরের কৃতি সন্তান কানাডা প্রবাসী সাংবাদিক মিডিয়া ব্যক্তিত্ব সৈকত রুশদী ফেসবুকে লিখেছেন, ১৭ এপ্রিলকে ঘিরে ঐতিহ্যবাহী মেহেরপুরে প্রতিবছর সপ্তাহব্যাপী মেলা হতে পারে। সেখানে মেহেরপুরের ইতিহাস-ঐতিহ্য নিয়ে আলোচনা, সেমিনার এবং মুজিবনগর দিবস উপলক্ষে ব্যাপক অনুষ্ঠানমালা।
তিনি বলেন, মেহেরপুর পৌরসভাসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এব্যাপারে ভুমিকা রাখতে পারে। এতে দেশী-বিদেশী পর্যটকরা মেহেরপুরের প্রতি আকৃষ্ট হবে এবং মেহেরপুরের ইতিহাস-ঐতিহ্য সম্পর্কে দেশ ও বিশ্ববাসী অনেক কিছু জানতে পারবে। তিনি বলেন, মেহেরপুরে স্থলবন্দর প্রতিষ্ঠা করা হলে মেহেরপুরের অনেক উন্নতি হবে।
Meherpur-111আবুল কাশেম :

সাবেক সদর থানা মুক্তিযোদ্ধা ইউনিট কমান্ডার আবুল কাশেম বলেছেন মুজিবনগরকে সরকারিভাবে উপযুক্ত মূল্যায়ন করতে হবে। শুধু ইট কাঠ পাথরের ভাস্কর্যে সাজালেই মুজিবনগরকে মূল্যায়ন করা হবে না। মুজিবনগর আম্রকানন সংরক্ষণে লোকবল নিয়োগ দিতে হবে। মুজিবনগরকে অবহেলা করা মানে ইতিহাসকেই অবমূল্যায়ন করা।

মুজিবনগর প্রকল্পের আওতায় দর্শণা থেকে ভায়া মুজিবনগর হয়ে কুষ্টিয়ার মিরপুর-ভেড়ামারা হয়ে মেহেরপুর জেলাবাসীর রেল যোগাযোগ দাবীটি বাস্তবায়ন করতে হবে। স্থল বন্দর গড়ে মেহেরপুর জেলাকে বাণিজ্যিক জেলা করতে হবে।
Meherpur-113আয়ুব হোসেন :

বাগোয়ান ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও মুজিবনগর উন্নয়ন সংগ্রাম পরিষদের আহবায়ক আয়ুব হোসেন বলেন, তাদের আন্দোলনের কারণে মুজিবনগরকে উপজেলা ও মুজিবনগর থানা বাস্তবায়ন হয়েছে। শিক্ষা ক্ষেত্রে পিছিয়ে পড়া মুজিবনগর কৃষি নির্ভর এলাকা। এলাকার শিক্ষার মান ও হারবৃদ্ধিতে মুজিবনগরে একটি বিশ্ববিদ্যালয়, কৃষিভিত্তিক শিল্প কারখানা গড়তে হবে। সুস্বাদু আমের জন্য বিখ্যাত মেহেরপুর। এজন্য মুজিবনগর কেন্দ্রিক একটি আম গবেষণা কেন্দ্র, মুজিবনগরকে পর্যটন কেন্দ্রে রূপান্তর ছাড়াও পর্যটকদের সাথে আসা শিশুদের বিনোদনের জন্য একটি শিশুপার্ক গড়তে হবে। আয়ুব হোসেন আরও বলেন তাদের এসব দাবী বাস্তবায়নে আমৃত্যু তারা সংগ্রাম করবেন।
Mahbubul Haque Montuমাহবুবুল হক মন্টু :

মেহেরপুরের সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ও মুক্তিযোদ্ধার সন্তান মাহবুবুল হক মন্টু বলেছেন, মুজিবনগর একসময় অবহেলিত ছিল। বঙ্গবন্ধুর সরকার যুদ্ধবিদ্ধস্ত দেশগড়ার কাজে বেশী ব্যস্ত ছিল বিধায় মুজিবনগর নিয়ে চিন্তা ভাবনার সুযোগ সময় না হলেও মুজিবনগরকে মূল্যায়নের লিখিত নির্দেশ দিয়েছিলেন। কিন্তু পরবর্তী সরকারগুলো এসে মুজিবনগরকে গুরুত্ব দেয়নি। রাজনৈতিক দলগুলোর ভূমিকাও গঠনমূলক নয় বলে তার মন্তব্য।
তিনি বলেন, মুজিবনগর না হলে শপথ গ্রহণ সম্ভব হত না, কোন আন্তর্জাতিক সাহায্য সহযোগিতাও আসতো না। আর আমরাও আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী হিসেবে চিহ্নিত হতাম। বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার মুজিবনগরকে মূল্যায়ন করেছে। সেখানে সেক্টরভিত্তিক মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশকে তুলে ধরেছে। তিনি বলেন, বছরে এই মুজিবনগরে অন্তত দু-তিনটি মন্ত্রী পরিষদের সভার ব্যবস্থা থাকতে হবে । এমনকি সরকারি গুরুত্বপূর্ণ দফতর বসতে হবে। ১৭ এপ্রিল মুজিবনগর দিবসে বিশেষ অনুষ্ঠান আয়োজন থাকতে হবে। চেতনাকে বাঁচিয়ে রাখতে হলে মুজিবনগরকে কেন্দ্র করে মুক্তিযোদ্ধা পল­ী গড়ে তুলতে হবে।

মেহেরপুরের মুজিবনগর উপজেলায় ‘মুজিবনগর উন্নয়ন সংগ্রাম কমিটি’ গঠিত হয়েছে। কমিটির আহবায়ক বাগোয়ান ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আয়ুব হোসেন। কমিটি ১৪ দফা দাবি নিয়ে আন্দোলন করে আসছে। ১৪ দফা দাবীর মধ্যে রয়েছে মুজিবনগরে একটি বিকল্প সংসদ ভবন নির্মাণ, পর্যটন কেন্দ্র স্থাপন, আন্তর্জাতিক চেকপোষ্ট স্থাপন প্রভৃতি। কমিটি লিফলেট ও পোষ্টার ছেড়েছে। এবং মুজিবনগর নিয়ে দাবীর সম্পর্কে জনমত গড়ে তুলছেন। ইতিমধ্যে তাদের দাবীর মধ্যে মুজিবনগর উপজেলায় আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় থানা ও যোগাযোগের ক্ষেত্রে সড়কের উন্নয়ন হয়েছে।

লেখক পরিচিতি: তোজাম্মেল আযম,মেহেরপুর জেলার প্রবীন সাংবাদিক। সাপ্তাহিক পরিচয় ও দৈনিক আযমের সম্পাদক। বর্মানে দৈনিক যুগান্তরের জেলা প্রতিনিধি। তিনি মেহেরপুর জেলার ইতিহাস ও ঐতিহ্য এবং যেভাবে মুক্ত হলো মেহেরপুর গ্রন্থের লেখক।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.