Templates by BIGtheme NET
Home / জাতীয় ও আন্তর্জাতিক / মেহেরপুরের গাংনীর দীঘলকান্দি গ্রামে দু’গ্রামবাসীর সংঘর্ষ ।। আহত ৩৫

মেহেরপুরের গাংনীর দীঘলকান্দি গ্রামে দু’গ্রামবাসীর সংঘর্ষ ।। আহত ৩৫

Gangni injuri pic-1মেহেরপুর নিউজ ২৪ ডট কম,৩০ মার্চ:

মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার দীঘলকান্দি গ্রামে কবরস্থান দখল ও কবরস্থানের গাছ কাঁটাকে কেন্দ্র করে দু’গ্রামবাসীর মধ্যে ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষে উভয় গ্রামের ৩৫ জন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে ৫ জনের অবস্থা আশংকাজনক। তাদেরকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া আহত বাকীরা গাংনী ও মেহেরপুর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। মেহেরপুর হাসপাতালে চিকিৎসাধীনরা হলেন,দীঘলকান্দি গ্রামের ইয়ারুল ইসলাম,জহিরুল ইসলাম,হাসমত আলী,চাঁদ আলী,রিয়াজুল,মুসা এবং শামীম হোসেএছাড়া কচুইখালি গ্রামের আবু তাহের (৬৫), মজিবুর রহমান (৪০), ইসরাইল হোসেন (৩৫), আহাবুদ্দীন (৪৫), মুজাম্মেল হোসেন ওরফে খোকন (৪৬) ও  মন্টু মিয়া (৪৩) কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে, হাসিবুল ইসলাম (২৮), সুফল হোসেন (৪০),গুচ্ছ গ্রামের শুকমান আলী (৪২), তার ছেলে মাছুম হোসেন (২৪) ও মুনছুর আলী (৪৫) কে গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে­ক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

জানা যায়,দীর্ঘদিন ধরে গাংনী উপজেলার দীঘলকান্দি ও কচুইখালি দু’টি গ্রামের মানুষ দীঘলকান্দি কবরস্থানে মরাদেহ দাফন করে আসছে। সম্প্রতি সময়ে কচুইখালি গ্রামের মানুষ নিজ গ্রামে একটি কবরস্থান গড়ে তোলে এবং লাশ দাফন শুরু করে। এরই প্রেক্ষিতে কচুইখালি গ্রামের মানুষেরা দীঘলকান্দিদের কাছে সহযোগীতা চায়। কিন্তু কোন ধরনের সহযোগীতা দেওয়া হবেনা বলে জানিয়ে দিয়েছে দীঘলকান্দির মানুষ। রবিবার সকালে কচুইখালি গ্রামের লোকজন জোর করে দীঘলকান্দি কবরস্থানের গাছ কাঁটতে গেলে উভয় গ্রামের মানুষের মধ্য সংঘর্ষ বেধে যায়। সংঘর্ষে উভয় গ্রামের ৩৫ জনের মতন আহত হয়।

Gangni injuri pic-2ধানখোলা ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বর ও কচুইখালি গ্রামের বাসিন্দা আব্দুস সামাদ জানান, কচুইখালি ও  দিগলকান্দি গ্রামের বাসিন্দাদের জন্য একটি যৌথ কবরস্থান রয়েছে। এ কবরস্থানের গাছ কাটাকে কেন্দ্র করে বেশ কয়েকদিন যাবৎ উভয় গ্রামের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। শনিবার রাত ৮ টার দিকে দিগলকান্দি গ্রামের লোকজন মিটিং করে গুচ্ছ গ্রামের তিনজনকে পিটিয়ে জখম করে। আজ সকাল ৯ টার দিকে দিগলকান্দি গ্রামের লোকজন জড়ো হয়ে জোর করে কবরস্থানের গাছ কাটা শুর“ করে। এসময় কচুইখালি গ্রামের তাদের গাছ কাটতে বাঁধা দিলে সংঘর্ষের সুত্রপাত হয়।
কচুইখালি গ্রামের ইউছুব আলী জানান, দিগলকান্দি গ্রামের আলী আকবর, নুর ইসলাম ও সাইরুদ্দীনের নেতৃত্বে শতাধিক লোকজন লাঠি শোঠা সহ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে কচুইখালি গ্রামের লোকজনের উপর হামলা চালায়।
অপরদিকে দিগলকান্দি গ্রামের কিচমত আলী পাল্টা অভিযোগ করে জানান, ধানখোলা ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের মেম্বর কচুইখালি গ্রামের আব্দুস সামাদ ও তোফাজ্জেল হোসেন খোকনের নেতৃত্বে শতাধিক লোকজন জোর করে কবরস্থানের প্রায় ইপিল ইপিল, নিম ও মেহগনি গাছ কেটে ফেলে। এ সংবাদ গ্রামের মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে দিগলকান্দি গ্রামের লোকজন তাদের বাঁধা দিলে দু গ্রামের মধ্যে সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে।
গাংনী থানার ওসি মাছুদুল আলম জানান, সংঘর্ষের খবর পাওয়ার পর পুলিশের একটি টীম ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে। এখন এলাকায় পুলিশ থাকায় পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.