Templates by BIGtheme NET
Home / কৃষি সমাচার / মেহেরপুরের চিৎলা খামার :: হত্যা করা হয়েছে ৮টি মেহগনি গাছ!

মেহেরপুরের চিৎলা খামার :: হত্যা করা হয়েছে ৮টি মেহগনি গাছ!

মেহেরপুর নিউজ, ২৮ জানুয়ারি:
মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার চিৎলা বীজ খামারে দক্ষিন ব্লকে পরিকল্পিতভাবে ৮টি মেহগনি গাছ হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। বীজ খামার সংলগ্ন পুকুর মালিক মসলেম আলীর বিরুদ্ধে এ অভিযোগের তীর উঠেছে। তবে কর্তৃপক্ষের উদাসীনতা নাকি তাদের যোগসাজশে এ নিধন যজ্ঞ চালানো হয়েছে। এ নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া রয়েছে এলাকাবাসীর মনে ?
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, ১৮ শতকে নীলবীজ উৎপাদনের লক্ষ্যে মেদিনীপুর কোম্পানী গাংনী উপজেলার ধানখোলা ইউনিয়নের চিৎলা গ্রামে ৪০২ একর জমির উপর খামারটি প্রতিষ্ঠা করে ব্রিটিশরা। পরবর্তিতে খামারটিকে পাট গবেষনা ইনষ্টিউট হিসেবে রুপান্তর করা হয়। এশিয়া উন্নয়ন ব্যাংকের সহায়তায় ১৯৮২ সালে এখানে আধুনিক বীজ উৎপাদন শুরু হয়। পরবর্তিতে ১৯৮৮ সালে শুধুমাত্র ভিত্তি পাটবীজ উৎপাদনের লক্ষ্যে রুপান্তরিত খামারটিতে অন্যান্য শষ্যবীজও উৎপাদন করা হচ্ছে। দেশের সবচেয়ে বড়পাট বীজ খামার হিসেবে দেশের পাটবীজের চাহিদা পূরণ করে আসছে খামারটি। পাশাপাশি ধান,গম, সরিষা, আলু, মটর, মশুরিসহ বেশ কয়েকটি শষ্য বীজ উৎপাদন করা হচ্ছে খামারটিতে।
চিৎলা ভিত্তি বীজ খামার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছরে ৯০ একর জমিতে পাটবীজ উৎপাদন করা হচ্ছে। এখান থেকে আনুমানিক ১৮০০ কেজি বীজ উৎপাদন হবে। ১৫০ একর জমিতে ধানবীজের জন্য কাজ আবাদ করা হয়েছে। সেখান থেকে ৯০ মেট্রিক টন ধান বীজ উৎপাদন হবে। ৫০ একর জমিতে আলুর আবাদ করা হয়েছে। বীজের লক্ষ্য মাত্রা ধরা হয়েছে ৩হাজার মেট্রিক টন এবং গম আবাদ করা হয়েছে ৬০ একর জমিতে। যেখান থেকে প্রায় ৫০ মেট্রিক টন বীজ উৎপাদনের লক্ষ্য মাত্রা ধরা হয়েছে।

সরেজমিনে গত শনিবার দুপুরে বীজ খামারে গিয়ে দেখা যায়, খামারের দক্ষিন পাশে মসলেম আলী নামের এক কৃষকের পুকুর রয়েছে। পুকুর পাড়ের সাথে বীজ খামার অনেক গাছ রয়েছে। এর মধ্যে ৮টি প্রাপ্তবয়স্ত মেহগণি গাছ প্রাণহীন হয়ে দাড়িয়ে রয়েছে। কাছে গিয়ে দেখা যায় প্রতিটি গাছের গোড়া হতে তিন ফুট করে বাকল তোলা হয়েছে। একই সঙ্গে গাছের গোড়ার দিকে লক্ষ্য করে দেখা যায় সেখানে মাটি তোলা অবস্থা। ধারণা করা যায় মাটির নিচে গরম পানি বা কার্বাইড নামক এক ধরণে কেমিক্যাল দিয়ে গাছগুলোকে হত্যা করা হয়েছে। যে কাজটি করা হয়েছে আনুমানিক দুই মাস ধরে। প্রতিটি গাছে বর্তমান বাজার মূল্য আনুমানিক ৪০ থেকে ৪৫ হাজার টাকা হবে। ফলে প্রায় তিন থেকে চার লক্ষ টাকার রাজ¯^ হারাতে বসেছে সরকার। পাশাপাশি পেিরবশের জন্য হুমকি দেখা দিবে বলে আশংকা করা যাচ্ছে। প্রাণহীন ওই গাছগুলো জ্বালানি ছাড়া অন্য কাজে ব্যবহার করা যাবে না।
গাছের বাঁকলের প্রয়োজনীয়তা নিয়ে কথা হয় মেহেরপুর পৌর ডিগ্রি কলেজের ভুগোল ও পরিবেশ বিদ্যা বিভাগের সহকারি অধ্যাপক মাসুদ রেজার সাথে। তিনি  বলেন, গাছ বাকলের মাধ্যমে খাদ্য ও অক্সিজেন গ্রহণ করে। বাকলের মাধ্যমে গাছের বিভিন্ন কোষে কোষে খাদ্য পৌছায়। ফলে খাদ্য ছাড়া কোন জীব বাঁচতে পারে না। এছাড়াও গাছের গোড়ায় গরম পানি ঢাললেও গাছ মরে যায়।
চিৎলা ভিত্তি বীজ খামারের দক্ষিণ ব্লকের পাহারাদার বদর আলী জানান, গাছগুলোর বাকল তোলার সময় আমি অন্য ব্লকে ছিলাম। আমি এই ব্লকে দায়িত্ব পাওয়ার পর দেখছি মসলেম আলীর পুকুর পাড়ের ৮টি মেহগনি গাছের নিচের বাকল তুলে মেরে ফেলা হয়েছে। আমি স্যারদের জানিয়েছি । আমি এই ব্লকে নতুন তাই কে বা কারা করেছে জানিনা ?
স্থানীয় ধানখোলা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য কামরুল ইসলাম জানান, শুনেছি গাছের বাকল তুলে ও গাছের নিচে গরম পানি বা অন্য কোন কেমিক্যাল দিয়ে গাছগুলো মেরে ফেলা হয়েছে। এটা খুবই অন্যায় কাজ। সরকারের অনেক ক্ষতি হয়েছে । পাশাপাশি পরিবেশের ক্ষতি করা হয়েছে। এ ধরণের কাজ যে করুক না কেন তদন্ত করে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান তিনি।
দক্ষিন ব্লকে কর্মরত সোহেল আহমেদ নামের দিনমজুর জানান, ফার্মের ক্ষতি করার জন্য গাছগুলোকে মেরে ফেলা হয়েছে। এটা খুবই অন্যায়। যারা এ অন্যায় করেছে তাদের বিচার হওয়া দরকার।
তবে অভিযুক্ত মসলেম আলীর সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তাঁকে পাওয়া যায়নি। খোঁজ নিয়ে যায় তিনি মোবাইল ফোনও ব্যবহার করেন না।
বিষয়টি নিয়ে দক্ষিণ ব্লকের দায়িত্ব নিয়োজিত উপ-সহকারি পরিচালক এমদাদ হোসেনের কার্যালয়ে গিয়ে দেখা যায় অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন কারী উপপরিচালক (ডিডি) দেলোয়ার হোসেনসহ তিনি কার্যালয়ে সামনে বসে আছেন।
এসময় তিনি এমদাদ হোসেন জানান, লোকবল সংকটের কারণে সবকিছুর খোঁজ খবর নেওয়া সম্ভব হয় না। পরে জানার পর বিষয়টি ডিডি স্যারকে জানানো হলে তিনি বিষয়টি দেখে এসেছেন। তাছাড়াও এলাকায় প্রচুর চাপের মধ্যে কাজ করতে হয়। ফলে সবকিছু ঠিকমত করা সম্ভব হয় না।
অতিরিক্ত দায়িত্বে নিয়োজিত উপ-পরিচালক দেলোয়ার হোসেন বলেন, খামারের গাছগুলো সীমানা প্রাচিরের মত কাজ করে। আমরা জানার পর খামারের পাশের কৃষকদের মৌখিক ভাবে কারণ দর্শাতে বলেছি। তারা উপযুক্ত জবাব না দিলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
গাছগুলো মেরে ফেলতে দির্ঘ সময় লেগেছে এক্ষেত্রে কোণ ভুমিকা না নেওয়ায় প্রশ্ন উঠেছে। এ বিষয়ে তিনি বলেন, লোকবল সংকটের কারণে ঠিকমত তদারকি করা সম্ভব হয় না। এ ঘটনার জানার পর পাহারাদারদের পরিবর্তন করা হয়েছে। আগে যে পাহারাদার ওই ব্লকে দায়িত্বে ছিল তাকে বিষয়টি নিয়ে তাকে জবাব দিতে বলা হয়েছে।
ডিডি আরো বলেন, পুরো খামারটির নিরাপত্তার জন্য ইতিমধ্যে সীমানা প্রাচির নির্মাণের প্রস্তাব ম্ন্ত্রনালয়ে পাঠানো হয়েছে।

 

 

 

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful