Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / মেহেরপুরের জীবিত ২ ভাষা সৈনিককে করা হচ্ছে না মূল্যায়ন।। ডাকা হয়না কোন ভাষা দিবসের অনুষ্ঠানেও

মেহেরপুরের জীবিত ২ ভাষা সৈনিককে করা হচ্ছে না মূল্যায়ন।। ডাকা হয়না কোন ভাষা দিবসের অনুষ্ঠানেও

মহাসিন আলী :
মেহেরপুরের ৭ ভাষা সৈনিকের মধ্যে ৫ জন মারা গেছেন। বেঁচে আছেন  ২ জন। এরা হলেন- মেহেরপুর জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক ও বর্তমান জেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি ইসমাইল হোসেন ও পিরোজপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি নজির হোসেন বিশ্বাস। এই ভাষা সৈনিক দু’জনের কাউকে এ পর্যন্ত জেলার কোন মহল সংবর্ধনা দেয়নি। ডাকেননি কোন শহীদ দিবসের অনুষ্ঠানেও। এ বছরের ভাষা দিবসের অনুষ্ঠানেও তাদের ডাকা হবে কিনা কিংবা সংবর্ধনা দেয়া হবে কিনা তা তারা জানেন না। মৃত্যুর আগে ভাষা সৈনিকের মর্যাদা পেলে তারা মরেও শান্তি পাবেন এমন প্রত্যাশা ওই ২ ভাষা সৈনিকের।
ভাষা আন্দোলনে তাদের ভূমিকার কথা বলতে গিয়ে তারা বলেন, পূর্ব পাকিস্তান মুসলীমলীগের আহবানে ১৯৪৮ সালেই মেহেরপুরে রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবীতে আন্দোলন শুরু হয়। সারাদেশের ন্যায় মেহেরপুর হাইস্কুল থেকেও ‘উর্দুই হবে রাষ্ট্রভাষা’ ঘোষনার প্রতিবাদ ওঠে। ১৯৪৮ সালের ১১ মার্চ পূর্ব পাকিস্তান ব্যাপি ধর্মঘট পালিত হয়। সংগ্রাম কমিটির আহবানে মেহেরপুরের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রিরা ধর্মঘট পালন করে। ১৯৫১ সালের এপ্রিল মাসে এ আন্দোলন আরও বেগবান হয়ে ওঠে। সে সময়   মেহেরপুর হাই স্কুলের ছাত্ররা ও রিপন বালিকা বিদ্যালয়ের ছাত্র্রিরা অন্দোলনে মাঠে নেমে পড়ে। ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনের সময় মেহেরপুর ছিল কুষ্টিয়া জেলার একটি মহকুমা। ১৯৫২ সালের একুশ ফেব্রুয়ারি রাষ্টভাষা সংগ্রাম পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটি আহুত ধর্মঘট চলাকালে ঢাকায় ছাত্রদের মিছিলে গুলি করা হয়। এ খবর মেহেরপুরে পৌঁছুলে প্রতিবাদে ফেটে পড়ে মেহেরপুরের ছাত্র-জনতা। ‘রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই এবং নুরুল আমীনের পদত্যাগ সহ পুলিশের নির্যাতনের প্রতিবাদ জানিয়ে ২২ ফেব্রুয়ারি সমাবেশের ডাক দেয়া হয়। একই সাথে মুন্সী সাখাওয়াত হোসেন, নিজাবত হোসেন, কাওসার আলীসহ মেহেরপুর হাই স্কুলের মুসলিম হোস্টেলের ছেলেরা পোষ্টারিং, পিকেটিং করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ২২ ফেব্রুয়ারি মুন্সি সাখাওয়াত হোসেন নেতৃত্বে মেহেরপুর কালাচাঁদ মেমোরিয়াল হলের সামমে বিক্ষোভ সমাবেশ হয়। ২১ ফেব্রুয়ারি  ও বাংলা ভাষা প্রতিষ্ঠার দাবীতে মেহেরপুরে ছাত্র-ছাত্রীরা ১৯৫২ থেকে প্রতি বছরই  দিবসটি পালন করে আসতে থাকে। ১৯৫৫ সালে মেহেরপুর মডেল হাই স্কুলের ছাত্ররা যাতে একুশ ফেব্রুয়ারি উদ্যাপন করতে না পারে সে জন্য বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক সাফদার আলী থানা পুলিশের  সহযোগিতা নেন। ওই দিন বেলা এগারটা থেকে বারোটা পর্যন্ত পুলিশ বিদ্যালয় চত্বরে লাঠি নিয়ে ঘোরাঘুরি করে চলে যায়। এসময় সামসুল আলা‘র নেতৃত্বে ছাত্ররা রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবীতে মিছিল নিয়ে শহরে বের হয়। রিপন গার্লস স্কুলের কাছে মিছিলটি এসে পৌঁছুলে শুক্লা গাঙ্গুলির নেতৃত্বে ওই বিদ্যালয়ের বিপুল পরিমান ছাত্রি এসে মিছিলে অংশ গ্রহণ করে। শিক্ষকরা শত বাধা ও ভয়-ভীতি দেখিয়েও একুশ উদযাপন বন্ধ করাতে পারেনি সেদিন। শিক্ষার্থীরা শিক্ষকদের আদেশ না মানার অপরাধে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক সাফদার আলী স্কুল কমিটির সাধারন সম্পাদক অ্যাড. আব্দুর রহিমের সাথে সাক্ষাত করে বিদ্যালয় কার্যনির্বাহী কমিটির  মিটিং ডাকেন। শিক্ষক ও প্রশাসনের নির্দেশ উপেক্ষা করে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রোদ্ধা ও বাংলা ভাষা প্রতিষ্ঠার দাবীতে একুশ ফেব্রুয়ারি পালনের অপরাধে কার্যনির্বাহী কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ি সাত ছাত্রকে রাজ টিকিট দেয়া  হয়। রাজ টিকিট প্রাপ্তরা হলেন- সামসুল আলা, আবুল কাশেম (আঙ্গুর), নজীর হোসেন, কদম রসুল, ইসমাইল হোসেন, মোসারফ হোসেন ও গোলাম কবির খান। সাত ছাত্রকে রাজ টিকিট দেয়ার কারণে সাধরণ মানুষও ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্যদের প্রতি। ওই বছরেরই শেষের দিকে কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক মেহেরপুর মহকুমা পরিদর্শনে আসেন। রাজ টিকিট প্রাপ্ত ছাত্র ও তাদের অভিভাবকরা জেলা প্রশাসকের সাথে সাক্ষাত করতে চাইছে মহাকুমা প্রশাসক তাতে বাধা দেন। জেলা প্রশাসক কুষ্টিয়া ফিরে যারার পথে মেহেরপুর ডাক বাংলোর সামনের রাস্তায় রাজ টিকিট প্রাপ্ত ছাত্র ও তাদের অভিভাবকরা রাস্তায় ব্যারিকেড দিয়ে তাঁকে গাড়ি থেকে নামায়। রাজ টিকিট প্রাপ্ত ছাত্র ও তাদের অভিভাবকদের কথা শুনে তিনি তাদেরসহ ডাক বাংলোয় ফিরে যান। তাকে মেহেরপুরের সার্বিক পরিস্থিতি বুঝিয়ে বলার পর তিনি বিষয়টি সুনজরে দেখবেন আশ্বাস দেন এবং আঞ্চলিক শিক্ষা অফিসারের নেতৃত্বে একটি তদন্ত টীম গঠন করেন। তদন্ত কমিটির রিপোর্ট অনুযায়ী তিনি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন বলে জানান। আঞ্চলিক শিক্ষা অফিসার জসীমউদ্দীনের নেতৃত্বে তদন্ত টীম বিষয়টি তদন্ত করে জেলা প্রশাসক বরাবর প্রতিবেদন দাখিল করেন। তদন্ত টীমের দেয়া প্রতিবেদনে তাদের রাজ টিকিট প্রত্যাহার করা হয়। ইতোমধ্যে  ভাষা সৈনিক নজীর হোসেন  বিশ্বাস ও ইসমাইল হোসেন ছাড়া ওইসব ভাষা সৈনিকদের সকলেই মৃত্যুবরণ করেছেন।
ভাষা সৈনিক মেহেরপুর জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক ও বর্তমান সহ-সভাপতি ইসমাইল হোসেন ও পিরোজপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি নজির হোসেনের সাথে আলাপ করে আরও জানা যায়, ২০০১ সালে স্থানীয় সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট একুশ উদযাপন অনুষ্ঠানে তাদের ভাষা সৈনিক হিসেবে পরিচয় করিয়ে দেয়। এছাড়া  প্রশাসনের পক্ষ থেকে ভাষা দিবসের সভায় তাদের কোনদিন ডাকা হয়নি এবং ভাষা সৈনিক হিসেবে তাঁদের কোন মূল্যায়নও করা হয়না। চলতি মাসের ৬ তারিখে অনুষ্ঠিত সভায় জীবিত ২ ভাষা সৈনিককে সংবর্ধনা দেয়ার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে। এদিকে ভাষা দিবসের আর মাত্র ২ দিন বাকি। এর পরও এ রিপোর্ট পাওয়া পর্যন্ত প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাদের কোন চিঠি দেয়া হয়নি।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.