Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / মেহেরপুরের তেরঘরিয়া আশ্রয়ণ প্রকল্পের শিশুদের নেই ঈদ উৎসবের আমেজ

মেহেরপুরের তেরঘরিয়া আশ্রয়ণ প্রকল্পের শিশুদের নেই ঈদ উৎসবের আমেজ

T-2মেহেরপুর নিউজ ২৪ ডট কম,২৪ জুলাই:
মুসলমান ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব  ঈদুল ফিতরকে ঘিরে  বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষের মাঝে বিরাজ করছে সাজ সাজ রব। তবে মেহেরপুর তেরঘরিয়া আশ্রয়ণ প্রকল্পের শিশুদের মধ্যে সে উৎসবের কোন আমেজ নেই। আর্থিক দৈন্যতার কারণে শিশু সহ পরিবারের ব্যায়ভার বহন করতে হিমশিম খাচ্ছে প্রকল্পের অধিবাসিরা। তেরঘরিয়ার আশ্রয়ন প্রকল্প পরিদর্শন করে বিশেষ প্রতিবেদন তৈরি করেছেন আমাদের ষ্টাফ রিপোর্টার সাঈদ হোসেন।
মেহেরপুর শহর থেকে ৬ কিলোমিটার দুরে অবস্থিত তেরঘরিয়া আশ্রয়ণ প্রকল্প। ১৯৯৯ সালে তৎকালিন সরকার মেহেরপুর সদর উপজেলার কুতুবপুর ইউনিয়নের তেরঘরিয়া মাঠের ভিতর ১০০ টি ভুমিহীন পরিবারের বসবাসের জন্য গড়ে তোলে এ আশ্রয়ন প্রকল্পটি। টিন শেড দিয়ে নির্মিত এক একটি ব্যারাকে বাস করে ১০টি পরিবার। এক একটি পরিবারকে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে একটি করে কক্ষ। প্রতিটি পরিবারকে (বাড়ি ও আবাদি) জমি দেয়া হয়েছে ৩০ শতাংশ করে। একটি করে বরাদ্দকৃত কক্ষে T-1চরম মানবেতর অবস্থায় স্বজনদের নিয়ে বসবাস করছে প্রকল্পের অধিবাসীরা। ফলে শিক্ষার আলো থেকে বঞ্চিত হচ্ছে ছেলে-মেয়েরা। নিরাপত্তার অভাবে দূরের স্কুলে ছেলে-মেয়েদের পাঠাতে চাই না অভিভাবকেরা। অল্প বয়সে বিয়ে দিয়ে দায়মুক্ত হচ্ছেন মেয়েদের বাবা-মা। বিদ্যালয়ে পাঠানোর জন্য পোষাক কিনে দেয়ার সাধ্যও নেই অনেকের। ফলে ঈদুল ফিতর উপলক্ষে আশ্রয়ণ প্রকল্পের শিশুদের মাঝে উৎসবের আমেজ নেই।
আশ্রয়ন প্রকল্পে অধিবাসী আব্দুস সাত্তার জানান, সরকার আমাদের একটা করে ঘর দিয়েছে। ঘর দিয়ে পানি পড়ে, তাতে আমাদেরও কষ্ট গরু বাছুরেরও কষ্ট। রমজান মাস ছেলে-মেয়েদের কোন আবদার পুরণ করতে পারিনি।
অধিবাসী রহিম আলী জানান,ছেলে-মেয়েরা ভাল পোষাকের জন্য কান্নাকাটি করছে। ইফতারি যোগাড় করতে পারিনা। তাদের পোষাক কিনে দিব কিভাবে? আমাদের কেউ কোন  খোঁজ খবর নেয়না। কষ্টে দিন যাচ্ছে।
T-3আশ্রয়ন প্রকল্পে আশ্রিত শিশু বশির জানান,রাত্রে বৃষ্টি হলে ঘুমাতে পারিনা, বৃষ্টি পড়ে। অন্যান্য গ্রামে ঈদের আনন্দ হলেও আমাদের আশ্রয়ণ প্রকল্পে কোন আনন্দ হয়না। পরিবারে খুব অভাব তাই নতুন পোষাক  কিনে দিতে পারেনা।
মেহেরপুর সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাজনীন সুলতানা জানান, আশ্রয়ণ প্রকল্পে বেশ কিছু ছোট ছোট ছেলে- মেয়ে আছে। সামনে ঈদ আসছে, ঈদ হচ্ছে আনন্দের খুশির একটা বিষয়। তাদের জন্য কিছু করতে পারলে ভাল লাগত। এখন তেমন কোন বরাদ্দ নেই। সামনে তাদের জন্য কোন বরাদ্দ আসলে ব্যাবস্থা করা হবে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.