Templates by BIGtheme NET
Home / আইন-আদালত / মেহেরপুরের দুই সাবেক সাব-রেজিষ্টার কারাগারে

মেহেরপুরের দুই সাবেক সাব-রেজিষ্টার কারাগারে

3মেহেরপুর নিউজ,২১ আগষ্ট:
দুদকের (দুর্ণীতি দমন কমিশন) একটি মামলায় মেহেরপুর সদর উপজেলার সাব রেজিষ্ট্রি অফিসের দুই সাবেক সাব-রেজিষ্টার আব্দুর রশিদ মন্ডল ও শাহিদুর রহমানকে জেল হাজতে পাঠিয়েছে আদালত।

রবিবার বিকাল ৫টার দিকে মেহেরপুর চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের বিজ্ঞ বিচারক মো: মহিরুজ্জামান তাদের জামিন না মঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। আটকৃতরা হলেন: ঝিনাইদহ উপজেলার মহেষপুর উপজেলার সাব রেজিষ্টার শাহিদুর রহমান এবং নড়াউল সদর উপজেলার সাব রেজিষ্টার আব্দুর রশিদ মন্ডল। তারা দুজনই এর আগে মেহেরপুরে সাব রেজিষ্টার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। জানা গেছে, রবিবার সকালে দুর্ণীতি দমন কমিশনের (দুদক) এর কুষ্টিয়া আঞ্চলিক কার্যালয়ে সাব রেজিষ্টার আব্দুর রশিদ মন্ডল ও সাব রেজিষ্টার শাহিদুর রহমান হাজিরা দিতে গেলে তাদের আটক করা হয়।

পরে দুপুরে দুদকের কুষ্টিয়া আঞ্চলিক কার্যালয়ে উপ-পরিচালক আব্দুল গাফফার বাদি হয়ে মেহেরপুর সদর থানায় মামলা দিয়ে তাদের হস্তান্তর করেন। যার মামলা ন¤^র:২১, তারিখ:২১/০৮/২০১৬। পরে কোর্ট পরিদর্শকের মাধ্যমে আদালতে হাজির করা হলে বিচারক তাদের জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন। মামলার এজাহারে দুদকের অভিযোগ, মেহেরপুর সদর উপজেলাধীন বিভিন্ন মৌজার সরকারী খাস জমি ১৮ জন ভূমিহীনের নামে বন্দোবস্ত করার জন্য দলিলের রেজিষ্ট্রেশন কাজে জালিয়াতি করা হয়েছে। ওই দলিলগুলো হস্তলিপি বিশারদ দিয়ে দাতার স্বাক্ষর পরীক্ষা নিরীক্ষা করার প্রয়োজন।

দলিলগুলো সদর সাব রেজিষ্টার মেহেরপুরের হেফাজতে রক্ষিত থাকায় ওই কবুলিয়ত দলিল গুলো জব্দ করিয়া পরীক্ষা নিরীক্ষা করার জন্য বারবার সাব রেজিষ্টার সদর বরাবর পত্র প্রেরণ করা হয়। কিন্তু তারা অভিযুক্ত ব্যাক্তিকে বাাঁচানের উদ্দেশ্যে দলিলগুলি সরবরাহ না করে তদন্ত কাজে বিঘ¥ সৃষ্টি করেন। যা দুর্নীতি দমন কমিশন আইন,২০০৪ এর ১৯(৩) ধারায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ। ওই অপরাধে সাবরেজিষ্টার দ্বয়ের বিরুদ্ধে তদন্ত করতে দূর্নীতি দমন কমিশন বিভাগীয় কার্যালয় খুলনার স্মারকে কুষ্টিয়া আঞ্চলিক কার্যালয়ের উপ-পরিচালক আব্দুল গাফফারকে তদন্তকারী কর্মকর্তা হিসেবে গত ১৬ আগষ্ট নিয়োগ করা হয়।
আদালতে দুদকের পক্ষ থেকে সাব রেজিষ্টার দ্বয়ের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলাটি বিচারাধীন থাকা অবস্থায় তারা যেন স্বাক্ষীদের প্রভাবিত এবং তদন্ত কাজে বিঘ¥ না ঘটাতে না পারে সেকারণে তাদের রেজিষ্টারকে জেল হাজতে রাখার জন্য আদালতে আবেদন জানানো হয়।
মামলায় আসামীদের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাড. মিয়াজান আলী ও আবদুল্লাহ আল মামুন রাসেল ।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.