Templates by BIGtheme NET
Home / ফিচার / মেহেরপুরের দুটি উপজেলা বঞ্চিত টিসিবি পণ্য থেকে

মেহেরপুরের দুটি উপজেলা বঞ্চিত টিসিবি পণ্য থেকে

মেহেরপুর নিউজ,১৭ জুন:
সাইফুল ইসলাম। বাড়ি মেহেরপুর সদর উপজেলার হরিরামপুর গ্রামে । বাবা মা’র বড় সন্তান হওয়ায় পরিবারের বোঁঝা তারা মাথায়। মেহেরপুর শহরের একটি পোষাকের দোকানে কাজ করে স্বল্প আয় করেন তিনি। সাশ্রয়ী মূল্যর টিসিবি পণ্য কিনবেন আশা করেছিলেন। কিন্তু ডিলাররা এ বছর পণ্য উত্তোলন না করে তাঁর সে আশার গুড়ে বালি দিয়েছেন। সাইফুল ইসলাম বলেন, সরকার সাশ্রয়ী মূল্য পণ্য কেনার ব্যবস্থা করলেও গুটিকতক ব্যবসায়ীর কারণে আমরা তার সুফল পাচ্ছি না। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান তিনি।
একই ভাবে শফিকুল ইসলাম নামের এক টেইলার্স মাষ্টার প্রতিদিন সকালে গাংনী উপজেলার গাড়াডোব থেকে আসেন মেহেরপুর শহরে। তিনিও চেয়েছিলেন সাশ্রয়ী মূল্য টিসিবির পণ্য কিনতে। মেহেরপুর সদরের কোথায় টিসিবি পণ্য না পেয়ে মেহেরপুর নিউজের প্রতিবেদকের কাছে ক্ষব্ধ প্রতিক্রিয়া জানান তিনি।
জানা গেছে, মেহেরপুরের তিন উপজেলার সাত জন টিসিবি’র ডিলারর থাকলেও লোকসানের দোহাই দিয়ে সদর ও মুজিবনগর উপজেলার একজন ডিলারও পণ্য উত্তোলন করেননি। ফলে ওই দুটি উপজেলার সাধারণ ভোক্তারা টিসিবি সাশ্রয়ী মূল্যার পণ্য থেকে বঞ্চিত হয়েছে। অপরদিকে, লাভ-লোকসান নিয়েই ব্যবসা এই নীতিতে গাংনীর তিনজন ডিলার পণ্য উত্তোলন করেছেন। তবে উত্তোলন কৃত পণ্যর মধ্যে মশুরের ডালের দাম সাধারণ বাজারের থেকে কম হওয়ায় ওই পণ্যটি গুদামে পড়ে রয়েছে বলে জানিয়েছেন একজন ডিলার।
এদিকে যেসকল ডিলাররা পণ্য উত্তোলন করেননি তাদের ডিলারশীপ বাতিলের প্রক্রিয়া চলছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ ।
টিসিবি সূত্রে জানা গেছে, জেলার সদর উপজেলার আশিকুজ্জামানান সবুজ, স্বপ্ন চুড়া ঋণদান সমবায় সমিতি, মুজিবনগর উপজেলার রিফা এন্টারপ্রাইজ, ইসমাইল এন্টারপ্রাইজ এবং গাংনী উপজেলার সততা এন্টারপ্রাইজ, জামান ট্রেডার্স ও আরিফ এন্টারপ্রাইজ এই সাত জন টিসিবি’র ডিলার রয়েছেন। এদের মধ্যে গাংনী উপজেলার তিনজন ডিলার পণ্য উত্তোলন করেছেন।
রমযান মাসে সাধারণ ভোক্তাদের কাছে সাশ্রয়ী মুল্যে সয়াবিন তেল, ছোলা, মশুর ডাল ও চিনি সরবরাহের উদ্দেশ্যে প্রতিটি জেলায় ডিলার নিয়োগ করা হয়। প্রতিজন ডিলারকে মশুর ডাল ২৫০ থেকে ৩০০ কেজি, চিনি ৩০০ থেকে ৪০০ কেজি, ছোলা ৩০০ থেকে ৪০০ কেজি এবং সয়াবিন তেল ৩০০ থেকে ৪০০ লিটার পন্য টিসিবির আঞ্চলিক কার্যালয় থেকে উত্তোলন করে ট্রাকে করে নির্দিষ্ট স্থানে বিক্রি করার নির্দেশ দেয়।
রমযানের দুই দশক চলে গেলেও জেলার গাংনী উপজেলার তিনজন ডিলার এই পণ্য উত্তোলন করেছেন। সদর ও মুজিবনগর উপজেলার চারজন ডিলার কোন পণ্য উত্তোলন করেননি। ফলে সদর ও মুজিবনগর বাসী টিসিবির সাশ্রীয় পণ্য থেকে বঞ্চিত হয়েছেন।
মুজিবগর উপজেলার মোনাখালী গ্রামের ডিলার ইসামইল এন্টারপ্রাইজের মালিক ইসমাইল হোসেন জানান, খুলনা থেকে পন্য উত্তোলন করে মেহেরপুরে নিয়ে এসে মাল বিক্রি করে লোকসান হয়। তাই পণ্য উত্তোলন করা হয়নি। পণ্য কিনতে হলে আগে টাকা জমা দিয়ে সিডি করতে হয়। পরে দেখা যায় মালের মান খারাপ হলেও সেই পণ্যই নিতে হবে। যে কারণে সমস্যা হয়।
আমরা জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে জেলা থেকে পণ্য উত্তোলনের দাবি জানিয়ে আসছি। যাতে করে পণ্য উত্তোলন সাধারণ ভোক্তাদের কাছে বিক্রি করতে পারি। এ দাবি টিসিবি গুরত্ব দিচ্ছে না।
তিনি আরো বলেন, আমরা তিন জন ডিলাররা একসাখে পণ্য কিনতে যায়। এবার তারা কেউ যায়নি। তিন চার জন একসাথে পণ্য উঠালে তো লোকসান হওয়ার কথা না এমন প্রশ্নের জবাবে ইসমাইল হোসেন বলেন, পণ্যও মান খারাপ হলে তো লোকসান হবে।
ডিলার মের্সাস আশিকুজ্জমান মালিক হাজী আশকার আলী জানান, খুলনা থেকে পণ্য কিনে এনে বিক্রি করে লোকসান হয়। ফলে লোকসান করে ব্যবসা করা কঠিণ। জেলা প্রশাসক সাহেবকে বলেছি জেলা থেকে পণ্য উত্তোলনের ব্যবস্থা করতে। নাহলে ডিলার বাতিল করে দেন। ডিলার রেখে লাভ কি?
গাংনী উপজেলার তিন জন ডিলার সকলেই পণ্য উত্তোলণ করেছেন তাদের একজন গাংনী উপজেলার তেরাইল গ্রামের ডিলার আরিফ এন্টারপ্রাইজের আরিফুল ইসলাম বলেন, মশুরের ডাল যে দামে কেনা হয়েছে তার থেকে কম দামে সাধারণ বাজারে বিক্রি হচ্ছে ফলে অন্যান্য পণ্যগুলো বিক্রি হলেও মশুরের ডাল এখনো বিক্রি হয়নি। লাভ লোকসান নিয়েই তো ব্যবসা। টিসিবি পণ্যর মান ভাল বলে তিনি জানিয়েছেন। তবে জেলা প্রশাসক পণ্য উত্তোলন করার কথা বলেছিলেন তাই পণ্য উত্তোলন করেছি।
টিসিবি’র খুলনা আঞ্চলিক কার্যালয়ের উপ উর্ধতন কার্যনির্বাহী মো: রবিউল মোর্শেদ বলেন, মেহেরপুরের সাতজন ডিলারের মধ্যে মাত্র তিন জন ডিলার পণ্য উত্তোলন করেছেন। তিন জনই গাংনী উপজেলার। যারা পণ্য উত্তোলন করেননি জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে তাদের ডিলারশিপ বাতিলের প্রক্রিয়া চলছে।
মেহেরপুরের জেলা প্রশাসক(ডিসি) পরিমল সিংহ বলেন, যে সকল ডিলাররা পণ্য উত্তোলন করেননি তাদের বিরুদ্ধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তিনি আরো বলেন, খুলনা থেকে পণ্য উত্তোলন করতে যদি খরচ হয় তাহলে তারা ডিলার নিচ্ছেন কেন। ডিলারশিপ নবায়ন করবেন পণ্য উত্তোলন করবেন না আমরা তা মেনে নেব না।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful