Templates by BIGtheme NET
Home / বর্তমান পরিপ্রেক্ষিত / মেহেরপুরের নওয়াপাড়া- ভাটপাড়া ব্রিজের কাজের মান নিয়ে প্রশ্ন

মেহেরপুরের নওয়াপাড়া- ভাটপাড়া ব্রিজের কাজের মান নিয়ে প্রশ্ন

Meherpur Bridge Pic-02মেহেরপুর নিউজ, ০৭ সেপ্টেম্বর:
৪ কোটি টাকা ব্যয়ে মেহেরপুরের কাথুলী-গাংনী সড়কের নওয়াপাড়া ভাটপাড়া গ্রাম সংলগ্ম কাজলী নদীর উপর ব্রীজ নির্মান কাজে নানা অনিয়ম ও দূর্ণীতির অভিযোগ উঠেছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে। এ অনিয়ম ও দূর্ণীতি দেখেও না দেখার ভান করে আছে সড়ক ও জনপথ বিভাগের কর্মকর্তারা। তবে ঠিকাদার ও সড়ক জনপথ বিভাগের কর্মকর্তারা অভিযোগ অস্বীকার করছে।
সড়ক ও জনপথ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, মেহেরপুরের কাথুলী-গাংনী সড়কের ভাটপাড়া নওয়াপাড়া সংলগ্ম কাজলী নদীর উপর প্রায় ২৬ মিটার কংক্রিট ব্রিজের নির্মান কাজ পায় যশোরের বিটিসি-জেডকে-জেভি নামের একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। ব্রীজটি নির্মানে ব্যয় ধরা হয়েছে ৪ কোটি ৫ লক্ষ ৫৬ হাজার ৭৩৭ টাকা। গত ৫ জানুয়ারী ব্রীজের কাজ শুরু হয়। শেষ হওয়ার কথা রয়েছে আগামী নভে¤^র মাসে।
স্থানীয়দের অভিযোগ, পুরাতন ব্রীজের দূর্বল খোয়া দিয়ে পাইলিংয়ের ঢালাই, সিমেন্ট কম দেয়া, কাজের মান নিয়ে প্রশ্ন তুললে প্রতিবাদী জনতাকে পুলিশে ধরিয়ে দেয়া এবং পুরাতন ব্রীজের রড গোপনের বিক্রি করাসহ নানা অনিয়ম ও দূর্ণীতি করা হয়েছে। কাজের শুরুর দিকে এ অনিয়মের প্রতিবাদ করলে চাঁদাবাজের অভিযোগ দিয়ে ইসলাম আলী নামের এক ব্যাক্তিকে পুলিশ দিয়ে ধরিয়ে দেয়া হয় । তারপরও থেকে ভয়ে আরে কেউ মুখ খুলেনি।
সম্প্রতি এ ধরণের নানা অভিযোগ পেয়ে সরেজমিনে ব্রীজ নির্মান এলাকায় নানা তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করতে গেলে স্থানীয় জনতা ঘিরে ধরে। সাংবাদিক পরিচয় জানতে পেরে তারা তাদের অভিযোগ জানাতে থাকে।
Meherpur Bridge Pic-01কথা হয় ব্রীজের অনিয়ম নিয়ে প্রতিবাদ করতে গেলে চাঁদাবাজের অভিযোগে পুলিশে ধরে নিয়ে যাওয়া ইসলাম আলীর সাথে, তিনি বলেন, বাইপাস রাস্তা তৈরি না করেই ব্রীজ ভাঙার কাজ শুরু করলে তিনিসহ স্থানীয়রা প্রতিবাদ করলে ওই দিন রাতেই তাকে পুলিশ ধরে নিয়ে যায়। পরে স্থানীয় এক জনপ্রতিনিধির জিম্মায় তাকে মুক্তি দেয়া হয়। তিনি আরো বলেন, পরে বাইপাস রাস্তা করার সময় ব্রীজের নিচ থেকে মাটি কেটে রাস্তা করা হয়েছে।
স্থানীয় কামাল হোসেন অভিযোগ করে বলেন, পুরাতন ব্রীজের রড সরকারী প্রতিষ্ঠানের জমা হওয়ার কথা থাকলেও তার অধিকাংশ রড চুরি করে গাংনী বাজারের একটি ভাঙরি দোকানে বিক্রি করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, ওই ব্রিজের পুরাতন খোয়া নতুন ব্রীজের পাইলিংয়ের সিসি ঢালাইয়ের কাজে ব্যবহার করা হয়েছে।
সাদ আহমেদ নামের অপর এক স্খানীয় বলেন, বাইপাস রাস্তা ভালোভাবে না করে ব্রীজ ভাঙা হয়েছে। বাইপাস রাস্তাটি সরু এবং নিচু করা হয়েছে। বাইপাস রাস্তা দিয়ে কোনো যানবাহন একা উঠতে পারে না। স্থানীয় লোকজনকে ধাক্কা দিয়ে ওই যানবাহন পার করে দিতে হয়। এসব কথা তাদের বলতে গেলে ঠিকাদারের ম্যানেজার আইউব আলী পুলিশের ভয় দেখায়। প্রধানমন্ত্রী তাদের আত্মীয় বলে হুমকি দেয়া হয়।
এ ধরণের নানা অনিয়মের প্রতিবাদ করলে প্রথমে তারা দুদিন কাজ বন্ধ রেখে রাতের আধারে তারা ঢালাইয়ের কাজ সম্পন করে বলে স্থানীয় এক সাংবাদিক জানান। তিনি আরও জানান, ঠিকাদার কোম্পনীর এক ব্যাক্তি ব্রিজ নির্মানের সময় পুরানো কিছু রড ও পুরানো ইঠ ব্যাবহার করা হয়েছে বলে তার কাছ স্বীকার করেছে।
ব্রিজে কাজ করা শ্রমিকদের মধ্যে একজন নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, মাস খানেক হলো তারা এই কাজে যোগ দিয়েছে। তবে এর আগে পাইলিংয়ের সিসি ঢালাইয়ে পরিমান মত সিমেন্ট দেয়া হয়নি বলে তিনিও শুনেছেন। তবে তারা আসার পর থেকে ঠিকাদারের ম্যানেজার সিমেন্ট কম দেয়ার চেষ্টা করলেও তারা সাফ জানিয়ে দিয়েছেন প্রয়োজন মাফিক সিমেন্ট দিতে হবে।
গাংনী বাজারের ভাঙরি ব্যবসায়ী আনোয়ার হোসেন বলেন, নওয়াপাড়া পুরাতন ব্রীজের ২৬ মন রড তার কাছে বিক্রি করা হয়েছে। তবে কে বিক্রি করেছেন তার পরিচয় তিনি জানেন না।
ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজার আইউব আলী অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, প্রকৌশলীদের উপস্থিতিতে ব্রিজের ঢালাই কাজ করা হয়। পুলিশের ধরিয়ে দেয়ার বিষয়ে তিনি বলেন এটা মালিকরা জানেন।
বিটিসি-জেডকে-জেভি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের স্বাত্তাধীকারী মিলন হোসেন বলেন, ওই ব্রিজের কাজ শুরু করার সময় এলাকার কিছু লোকজন প্রতিদিন ১০ জন শ্রমিকের টাকা দাবি করেন। একারণেই পুলিশের আশ্রয় নেয়া হয়েছিল। কাজের মান নিয়ে তিনি সকল অভিযোগ করে বলেন, ছোটখাটো সমস্যা নিয়ে লেখালেখি না করাই ভাল।
এ সকল অভিযোগ নিয়ে কথা হয় মেহেরপুর সড়ক ও জনপথ বিভাগের গাংনী এলাকার (সড়ক-৩) দায়িত্বপ্রাপ্ত উপ-সহকারী প্রকৌশলী মীর আব্দুল মান্নানের সাথে। তিনি অভিযোগ এড়িয়ে বলেন, সিডিউল অনুযায়ী তারা ঠিকমত কাজ বুঝে নিচ্ছেন। পুরাতন রড বিক্রি ও ঠিকাদারের সাথে কমিশন বানিজ্যের বিষয়টি ভিত্তিহীন বলে দাবি করেন তিনি। তবে পুলিশ দিয়ে স্থানীয়দের হয়রানি করার কথা তিনি শুনেছেন বলে জানান।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.