Templates by BIGtheme NET
Home / সম্পাদকীয় ও উপ সম্পাদকীয় / মেহেরপুরের নানা কথা

মেহেরপুরের নানা কথা

উপসম্পদায়কীয়

মেহেরপুর নিউজ ২৪ ডট কম,২২ মে:

মুহম্মদ রবীউল আলম

সুপ্রিয় সাংবাদিক পলাশ খন্দকারকে অসংখ্য ধন্যবাদ অনলাইন নিউজ লেটার‘মেহেরপুর নিউজ’ধারাবাহিকভাবে প্রকাশ করার জন্য।  তার অক্লান্ত পরিশ্রমের ফসল এই অনলাইন নিউজ আমি প্রতিদিন পড়ি এবং খুব ভাল লাগে। মেহেরপুরে বিদ্যুৎ-এর যে দুরাবস্থা, তারাই মধ্যে পলাশ খন্দকার যে সাহসী পদক্ষেপ নিয়মিত চালিয়ে যাচ্ছে, তা সত্যিই সকলকে অবাক করে দিয়েছে। তা ছাড়া প্রকাশিত নিউজের মান বেশ ভাল। আমি আশা করছি তার সম্পাদনায় মেহেরপুর থেকে একটি জনপ্রিয় দৈনিক পত্রিকা প্রকাশ পাবে। আজকের লেখায় আমি মেহেরপুর সম্পর্কে কিছু কথা তুলে ধরতে চাই।

ভৈরব বিধৌত ইতিহাস ঐতিহ্যের সমৃদ্ধ মেহেরপুর জেলা। মেহেরপুরের মুজিবনগর মুক্তিযুদ্ধ যুদ্ধকালীন সময়ের অস্থায়ী রাজধানী।  সাহিত্য, সংস্কৃতি, অর্থনীতি ও রাজনীতিসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে কালে কালে বহু গুণীজন এ এলাকাকে করেছেন ধন্য। ইসলামী চিন্তাবিদ মুন্সী জমির উদ্দিন,সাহিত্যিক দীনেন্দ্রকুমার রায়,কবি কৃষ্ণকান্ত ভাদুড়ী,জগদীশ্বর গুপ্ত,উজিরউদ্দিন আহমদ, রিয়াজউদ্দিন আহমদ রাজনীতিক সহিউদ্দিন আহমেদ,আহম্মদ আলী, এডভোকেট আবদুল হান্নান, মাধব মহন্ত,জমিদার নফরপাল চৌধরী,সাধক বলরাম হাড়ী,খেলোয়াড় শাহ আলম  অসংখ্য গুনীমানুষের পূণ্যভূমি এই মেহেরপুর। ইতিহাস প্রমাণ করে এ অঞ্চল বেশ প্রাচীন। বর্তমান মেহেরপুর সহ বৃহত্তর কুষ্টিয়া সেই প্রাচীন ভাগের এবং খ্রী: পূ: চতুর্থ শতাব্দীর গঙ্গারিদয় রাজ্যের অংশ বিশেষ ছিল। এ অঞ্চলে গঙ্গারিদয় নামে একটি শক্তিশালী রাজ্যে গঙ্গে নামক একটি উল্লেখযোগ্য নগরী ছিল। এই প্রদেশের নৃপাতির সুসজ্জিত ৪০০০ রণহস্তী ও অন্যান্য শক্তিশালী সমরসজ্জা ছিল। মহাবীর আলেকজান্ডারের ভারত অভিযানকালে তাই এদিকে অগ্রসর হন নি। ষষ্ট শতাব্দীতে এই অঞ্চলে এক নতুন রাজবংশের রাজত্বের কথা জানা যায়। বিভিন্ন তাম্রলিপি থেকে জানা যায় পূর্ববাংলার কুমিল্লা থেকে শুরু করে সুদূর উড়িষ্যা পর্যন্ত এদের রাজত্ব ছিল। এ অঞ্চল তাদের রাজ্যভুক্ত ছিল। সপ্তম শতাব্দীতে মহারাজা শশাঙ্কের রাজধানী ছিল কর্ণসুবর্ণতে। কর্ণসুবর্ণ কুষ্টিয়ার প্রতি নিকটে ভাগীরথীর পশ্চিম তীরবর্তী অঞ্চলে অবস্থিত। শশাঙ্কের রাজত্ব মধ্য উড়িষ্যা পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল। এ অঞ্চল এই রাজ্যভুক্ত ছিল। পরবর্তীতে বিজয় সেনের (১০৯৭-১১৬০ খ্রী:) আমলে সমগ্র বাংলা প্রথমবারের জন্য একজন নৃপতির শাসনাধীন আসে। তাঁর শাসনামলে কুষ্টিয়া অঞ্চল সেন রাজ্যের অন্তর্ভক্ত ছিল, তাঁর মৃত্যুরপর তাঁর পুত্র বল্লাল সেন (১১৬০-১১৭৮ খ্রী:) বাংলার সিংহাসনে আরোহন করেন। তাঁর মৃত্যুর পর তাঁর পুত্র লক্ষণ সেন (১১৭৮-১২০৬ খ্রী:) এই রাজ্যের অধীশ্বর হন। ইখতিয়ারউদ্দীন মোহাম্মদ বিন বখতিয়ার খলজীর আকস্মিক আক্রমণে তিনি প্রাণ ভয়ে রাজধানী নওদীহ ত্যাগ করে পূর্ববঙ্গের বিক্রমপুরে চলে আসেন। নবদ্বীপেই তাঁর রাজধানী ছিল। বিক্রমপুর থেকে তিনি সেন রাজ্য শাসন করেন এবং ১২০৬ খ্রীস্টাব্দে মৃত্যুবরণ করেন। লক্ষণ সেনের মৃত্যুর পর স্বাধীন সেন বংশীয় রাজারা আরও কিছুকাল রাজস্ব করেন। বখতিয়ার খলজী মিথিলা রাজ্যের উত্তরাঞ্চল এবং দক্ষিণাঞ্চলের বিস্তৃত ভূভাগ জয় করেন। ১২০৪ খ্রীষ্টাব্দে বখতিয়ার খলজী কর্তৃক ‘নওদীহ’ বিজয়ের ফলে বাংলায় প্রথম মুসলিম রাজ্যের ভিত্তি স্থাপিত হয়। তবে তখন পর্যন্ত মেহেরপুর সহ কুষ্টিয়া জেলা বাংলার মুসলিম শাসনের অন্তর্ভুক্ত হয়নি। বখতিয়ার খলজীর পর সুলতান গিয়াসউদ্দীন ইত্তজ খলজী উত্তর, দক্ষিণপূর্ব ও পশ্চিম দিকে মুসলিম রাজ্যের সীমান্ত বর্ধিত করেন। ১২৮১ সালে সুলতান গিয়াসউদ্দীন বলব বাংলার শাসনকর্তা মুঘীসউদ্দীন তোঘরীলকে পরাজিত ও নিহত করে এ অঞ্চলসহ বঙ্গাদেশকে তাঁর সামারাজ্যভুক্ত করেন। দিল্লীর সম্রাট গিয়াসউদ্দীন বলবান শাহজাহান। বোগরা খানকে লখনৌতির শাসন কর্তার পদে নিযুক্ত করেন। পরবর্তীতে ইলিয়াস শাহী বংশের রাজত্বকালে এ অঞ্চল এ বংশের রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত ছিল। নাসিরউদ্দিন আবুল মুজাফফর মাহমুদ শাহ (১৪৩৬-১৪৫৯) গৌড়ের সিংহাসনে বসেন। তাঁর শাসনামলে এ অঞ্চল তাঁর রাজ্যভুক্ত ছিল। শেরশাহ তাঁর উত্তরাধিকারী ইসলামী শাহের (১৫৪৫-৫৩) রাজত্বকালে এ অঞ্চলসহ বাংলা তাদের শাসনাধীন ছিল। ইসলাম শাহ শামসুদ্দীনকে সরে বাংলার প্রশাসক নিযুক্ত করেন। শামসুদ্দীন ও তাঁর বংশধররা ১৫৬৩ সাল পর্যন্ত রাজত্ব করেন। তারপর এ অঞ্চল সহ দক্ষিণবঙ্গ কররানী রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত ছিল। ১৫৭৬ সালে দাউদ কররানী মুঘল বাহিনীর কাছে নিহত হলে বাংলা মুঘল শাসনাধীন আসে। দাউদ কররানীর প্রধান কর্মচারী শ্রীহরি পরে একটি রাজ্যে স্থাপন করেন বেং তাঁর মৃত্যুর পর পুত্র প্রতাপাদিত্য রায় কুষ্টিয়া, যশোর, খুলনা ও চব্বিশ পরগনা অঞ্চল নিয়ে একটি রাজ্য গড়ে তোলেন। তিনি ধুমঘাটে তাঁর রাজধানী স্থাপন করেন। মুঘল রাজশক্তির বিরুদ্ধে এ অঞ্চলের জমিদাররা বার বার বিদ্রোহ ঘোষণা করেছেন এবং অনেকে নিহত ও হয়েছেন।

কুমুদনাথ মল্লিক এর নদীয়া কাহিনী তে মেহেরপুরকে বিখ্যাত রচনাকার মিহির ও খনার বাসস্থান হিসেবে বর্ণনা করা হয়েছে। মিহিরের নাম থেকেই মিহিরপুর পরবর্তীতে অপভ্রংশ মেহেরপুর নামের উদ্ভব হয়েছে।

জানা যায় নবাব আলীবর্দী খান ও তাঁর সঙ্গীরা ভৈরব নদী পথে শিকার করতে মেহেরপুর অঞ্চলে আসেন এবং বাগোয়নে হঠাৎ ঝড়ের কবলে পড়লে বিধবা গোয়ালিনী বাড়িতে আশ্রয়ে নেন এর তার আপ্যায়নে মগ্ধ হয়ে নবাব আলীবর্দী খান তাঁর পুত্র রাজগোসাঁইকে বাগোয়ান পরগনা দান করেন। তিনি তাঁকে রাজা গোয়ালা চৌধুরী উপাধিতে ভূষিত করেন। রাজা গোয়ালা চৌধুরী মেহেরপুর অঞ্চলের ব্যাপক উন্নতি সাধন করেন। ১৭৫৬ সালে কোম্পানী কর্তৃক দেওয়ানী প্রাপ্তির ফলে এ অঞ্চল কোম্পানীর শাসনাধীনে আসে। এ সময়ে এ অঞ্চলের দরিদ্র হিন্দু ও মুসলমানদের খ্রীষ্ট ধর্ম গ্রহণ করতে দেখা যায়। মুন্সী শেখ জমিরুদ্দিনের নেতৃত্বে মুসলিম অগ্রণী সমাজ এই অপচেষ্টার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ান। এ সময় এ অঞ্চলে নীল কোম্পানীর অবির্ভাব ঘটে এবং চাষীদের নীল চাষে বাধ্য করা হয়। জেলায় নীলকরদের অত্যাচার বৃদ্ধি পেতে থাকে এবং অন্যদিকে এ অঞ্চলে নীল বিদ্রোহ শুরু হয়ে যায়।

১৯২০ সালে এ অঞ্চলসহ সারা ভারতবর্ষে গান্ধী ও অন্যান্য নেতাদের আহবানে অসহযোগ আন্দোলন জোরদার হয়। ১৯৪০ সাল থেকে এ জেলায় পাকিস্তান প্রবল আকার ধারণ করে। বৃটিশ সরকার ভারতবর্ষের স্বাধীনতা আইনের অধীনে ১৯৪৬ সালে নির্বাচন দিতে বাধ্য হয়। এ অঞ্চলের মানুষ মুসলিম লীগকে জয়যুক্ত করে। নির্বাচনে আবদুল হান্নান (মেহেরপুর) নির্বাচিত হন। এ অঞ্চল তখন নদীয়া জেলার অন্তর্ভুক্ত ছিল। ১৯৪৭ সালের ১৪ আগস্ট পাকিস্তান স্বাধীনতা প্রাপ্ত হলে এ অঞ্চল পাকিস্তান অংশ পর্যন্ত হয়। র‌্যাডক্লিক রোয়েদাদের ফলে নদীয়া জেলাকে দু’খন্ড করে পাকিস্তান ও ভারতের মধ্যে ফেলা হয়। অবিভক্ত নদীয়া জেলার মোট আয়তন ছিল ২৮৪১ বর্গমাইল। এর মধ্যে ১৩৪১ বর্গ মাইল পূর্ব পাকিস্তানে (বর্তমানে বাংলাদেশ) এবং ১৪৭০ বর্গমাইল ভারত ভুক্ত হয়। ১৯৫৪ সালে পূর্ববঙ্গ আইন পরিষদের নির্বাচনে এ অঞ্চলের মানুষ যুক্তফ্রন্টের পক্ষে রায় দেয়। এ অঞ্চল থেকে মোঃ আবদুল হান্নান, যুক্তফ্রন্টের পক্ষে নির্বাচিত হন। ১৮৫৭ সালে সিপাহী বিদ্রোহের সময় মেহেরপুরকে মহকুমা হিসাবে ঘোষণা করা হয়। নদীয়া জেলার অন্তর্ভূক্ত এই মহকুমা চারটি থানা- করিমপুর, তেহট্ট, গাংনী, এবং মেহেরপুর নিয়ে গঠিত হয়। ১৯৪৭ সালে র‌্যাডক্লিফ রোয়েদাদ এর ভিত্তিতে মেহেরপুরকে ভেঙ্গে দু টুকরো করা হয়। শুরু হয় মেহেরপুরের নতুন ইতিহাস, তৈরী হয় নতুন ভুগোল। ১৯৮৪ সালে ২৪ ফেরু্রয়ারি মেহেরপুর জেলার মর্যাদায় প্রতিষ্ঠিত হয়।

১৯৫৮ সালে ৭ অক্টোবর মেজর জেনারেল ইস্কান্দার মীর্জা সামরিক আইনজারী করেন। আইন পরিষদ বাতিল ঘোষিত হয়। ১৯৬২ সালে মুহাম্মদ আয়ুব খান মৌলিক গণতন্ত্র চালু করেন। ইউনিয়ন কাউন্সিলের সদস্যদের ভোটে জাতীয় ও প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৬২ সালের প্রাদেশিক পরিষদের নির্বাচনে এডভোকেট মহঃ আবদুল হায়াত, মুসলিম লীগের পক্ষে জয়লাভ করেন

১৯৭০ সালের নির্বাচনে এ অঞ্চলের মানুষ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের আওয়ামী লীগের পক্ষে রায় দেয়। জাতীয় পরিষদের নির্বাচনে মহঃ সহিউদ্দিন আওয়ামী লীগের পক্ষে নির্বাচিত হন। প্রাদেশিক পরিষদের নির্বাচনে , মহঃ নূরুল হক আওয়ামী লীগের পক্ষে জয়লাভ করেন। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে এ অঞ্চলের মানুষ ঐতিহাসিক ভূমিকা রাখেন। ১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল মেহেরপুরের বৈদ্যনাথতলার আম্রকাননে স্বাধীন বাংলাদেশ সরকারের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। স্থানটিকে মুজিবনগর নামকরণ করা হয় এবং সৈয়দ নজরুল ইসলাম অস্থায়ী রাষ্ট্র প্রধান হিসেবে স্বাধীন সাবর্ভৌম বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা করেন। মুজিবনগরকে নতুন দেশের অস্থায়ী রাজধানী ঘোষণা করা হয়। ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ স্বাধীন হলে বাংলাদেশ সরকারের সদর দপ্তর মুজিবনগর থেকে ঢাকায় স্থানান্তর করা হয়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তান থেকে মুক্ত হয়ে ১০ জানুয়ারী স্বাধীন বাংলাদেশ ফিরে আসেন। ১২ জানুয়ারী তিনি নতুন দেশের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন। ১৯৭৩ সালে প্রথম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এ অঞ্চলের মানুষ আওয়ামী লীগের পক্ষে রায় দেয়। নির্বাচিত হন মহম্মদ ছহিউদ্দিন ও মোঃ নূরুল হক । ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট কয়েকজন বিপদগামী সেনা সদস্য জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করেন। বঙ্গবন্ধুর মর্মান্তিক মৃত্যুর পর দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি দ্রুত পরিবর্তন হয়ে গেল। পট পরিবর্তনের মাধ্যমে ক্ষমতায় এলেন সেনাবাহিনী প্রধান মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমান। তিনি বিএনপি নামে একটি রাজনৈতিক দল গঠন করেন। ১৯৭৯ সালে দ্বিতীয় জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এ অঞ্চল থেকে বিএনপি পক্ষ থেকে নির্বাচিত হন এ্যাডভোকেট জিল্লুর রহমান ও আহাম্মদ আলী । ১৯৮১ সালের মে মাসে এক ব্যর্থ সামরিক অভ্যুত্থানে প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান নিহত হন। ১৯৮২ সালের ২৪ মার্চ প্রেসিডেন্ট আবদুস সাত্তারের কাছ থেকে সেনাপ্রধান লেঃ জেঃ হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা গ্রহণ করেন। ১৯৮৬ সালের ৩য় জাতীয় সংসদ নির্বাচন এ অঞ্চল থেকে নির্বাচিত হন মুহঃ সহিউদ্দীন (১৫ দল) ও নূরুল হক (১৫ দল)। ১৯৮৮ সালের ৪র্থ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নির্বাচিত হন  মোঃ রমজান আলী (জাপা) প্রমুখ এই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সহ উল্লেখযোগ্য কোন দলই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেনি। বিরোধী দলের ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের ফলে ১৯৯০ সালের ৪ ডিসেম্বর রাষ্ট্রপতি এরশাদ ক্ষমতা ছেড়ে দিতে বাধ্য হন। ১৯৯১ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি ক্ষমতা লাভ করেন। এ এলাকা থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন প্রফেসর আব্দুল মান্নান (আওয়ামী লীগ । ১৯৯৬ সালের ৬ষ্ঠ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এ অঞ্চল থেকে নির্বাচিত হন আহমদ আলী (বিএনপি)প্রমুখ নির্বাচিত হন।  ২০০১ সালের অক্টোবর অনুষ্ঠিত ৮ম সংসদ নির্বাচনে এ অঞ্চলে নির্বাচিত হন মাসুদ আরুণ (বিএনপি) ও মোঃ আব্দুল গণি (বিএনপি)। ক্ষমতা গ্রহণ করে বিএনপি। বিএনপি তার মেয়াদ শেষ কালে তাদের দুর্নীতির বিরুদ্ধে বিরোধী দলগুলো আন্দোলনের ঝাপিয়ে পড়ে। ক্ষমতা হস্তান্তর নিয়ে ব্যাপক নাটকীয় ঘটনার ধারাবাহিকতায় দেশে জরুরী আইন জারি করা হয় প্রধান প্রধান রাজনৈতিক নেতাসহ বিভিন্ন ব্যক্তিগণকে দুর্নীতির অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়। তত্ত্বাবধায়ক সরকার অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানে অঙ্গীকার করেন। অনুষ্ঠিত হয় নির্বাচন, ক্ষমতায় আসে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ। নির্বাচিত হন মেহেরপুর থেকে জয়নাল আবেদিন ও মোঃ আমজাদ হোসেন।

মেহেরপুর জনপদের মানুষ দেশের রাজনৈতিক আর্থ সামাজিক ও সাংস্কৃতিক আন্দোলন ও বিকাশের যুগ যুগ ধরে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে চলেছে। এ অঞ্চলের মানুষ অত্যন্ত সাহসী, সমাজ সচেতন ও সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডে অগ্রণী সৈনিক। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনের এ অঞ্চলের মানুষ সর্বক্ষেত্রে সাফল্যের বিজয়গাথাঁ অব্যাহত গতি রচনা করে চলেছে। রাজনীতিতে জয়নাল আবেদিন,প্রফেসর আব্দুল মান্নান, মাসুদ অরুন, এডভোকেট মিয়াজান আলী, এডভোকেট ইয়ারুল ইসলাম, সাংসকৃতিক অঙ্গনে শেখ জমিরউদ্দীন, মুহাম্মদ নাসিরউদ্দীন মীরু,মীর রওশন আলী মনা, আবুল হাসনাত দীপু, এডভোকেট পল্লব ভট্টাচার্য্য,সাহিত্য জগতে রফিকুর রশীদ, সৈয়দ আমিনুল ইসলাম,মেহের আমজাদ, সাংবাদিকতা ক্ষেত্রে সৈকত রুশদী হক, কাজী হাফিজ, তরিক-উল ইসলাম, মুহাম্মদ রবীউল আলম,পলাশ খন্দকার, তুহিন অরণ্য,তোজাম্মেল আযম প্রমুখ, শিক্ষা ক্ষেত্রে ড. মোঃ মোজাম্মেল হক ড. মোঃ কায়েমউদ্দিন, ড. আব্দুর রশীদ প্রমুখ,খেলাধুলায় ইমরুল কায়েস,ভারোতোলক হামিদুর রহমান সহ অসংখ্য গুণী মানুষ দেশেও বিদেশের বিভিন্ন ক্ষেত্রে,মেহেরপুরের প্রতিনিধিত্ব করছেন।

মুহম্মদ রবীউল আলমঃ বিশিষ্ট সাংবাদিক ও গবেষক

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful