Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / মেহেরপুরের পৌর মেয়র মতুর পূর্বের আদেশ বাতিল : ৩ সপ্তার মধ্যে নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণের আদেশ

মেহেরপুরের পৌর মেয়র মতুর পূর্বের আদেশ বাতিল : ৩ সপ্তার মধ্যে নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণের আদেশ

বিশেষ প্রতিনিধি:
মেহেরপুর পৌর মেয়র আলহাজ মোতাচ্ছিম বিল্লাহ মতু মেহেরপুর না থাকায় আবারও সমালোচনার ঝড় উঠেছে। মাত্র ৩৬ ঘণ্টার পুলিশ প্রহরায় তিনি মেহেরপুরে অবস্থান করলেও পুলিশ পাহারা উঠে যাওয়ায় তিনি আবারও মেহেরপুরে অনুপস্থিত রয়েছেন।
এদিকে গত ১৭ আগস্ট সুপ্রিমকোর্টের অ্যাপিলেট ডিভিশনের চেম্বার জজ আদালতের হাকিম পৌর মেয়র আলহাজ মোতাচ্ছিম বিল্লাহ মতুর পূর্বের আদেশ বাতিল করে আগামী ৩ সপ্তা’র মধ্যে মেহেরপুর চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আত্মসমর্পণ করার জন্য আদেশ দিয়েছেন।
জানা যায়, মেহেরপুর শহর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক পৌরসভার প্যানেল মেয়র মিজানুর রহমান রিপন হত্যা মামলার ১ নং আসামি পৌর মেয়র আলহাজ মোতাচ্ছিম বিল্লাহ মতু আত্মগোপন করে থাকার পর ৬ এপ্রিল হাইকোর্ট থেকে ৪ মাসের জামিন পান। জামিনে ৪ মাস পরে তাকে মেহেরপুর চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আত্মসমর্পণ করার জন্য আদেশ দেয়া হয়। বাদীপক্ষের অভিযোগ, গত ৪ আগস্ট তার জামিনের মেয়াদ শেষ হয়। জামিনের মেয়াদ শেষে পৌর মেয়র মতু তথ্য গোপন করে হাইকোর্টের অন্য একটি বেঞ্চ থেকে আদেশ নেন। যাতে লেখা থাকে ‘এখানে জামিনের আর কোনো সুযোগ নেই। আসামিকে আগামী ৩ মাসের মধ্যে নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ করতে বলা হলো।’ পৌর মেয়র মতু ওই আদেশের ওপর ভিত্তি করে মেহেরপুরের একজন আইনজীবীর মাধ্যমে একটি উকিল নোটিস দিয়ে মেহেরপুরে ঢোকার চেষ্টা করেন। বাদীপক্ষের দাবি মেহেরপুরের সর্বস্তরের মানুষের অসন্তোষের কারণে মতু মেহেরপুরে ঢুকতে পারেননি। পরে তিনি গত ৯ আগস্ট পুলিশ প্রশাসনের সহযোগিতায় মেহেরপুরে আসেন।
মেহেরপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য জয়নাল আবেদীন মেহেরপুর নিউজ কে বলেন, মেহেরপুর পুলিশ সুপার মো. শাহরিয়ার মেয়র মতুর নিরাপত্তার জন্য খুলনা থেকে ৩ প্লাটুন পুলিশ নিয়ে আসেন এবং মেয়র মতুর বাসায়, পৌরসভায় ও সার্বক্ষণিক মেয়রের সাথে মোতায়েন করেন। যা সম্পূর্ণ আইন বহির্ভূত। তিনি আরও বলেন, এতে মেহেরপুর আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা প্রচণ্ড ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। বাদীর পরিবার আরও অভিযোগ করে বলেন, মেহেরপুর সদর থানা পুলিশের মাধ্যমে প্যানেল মেয়র যুবলীগ নেতা রিপন হত্যা মামলার তদন্ত ভালোভাবে করছিলো। ৪/৫ জন আসামিও ধরা পড়েছে। তারা ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিতে বোমা হামলার সাথে নিজেদের জড়িত থাকার কথা স্বীকারও করেছে। হঠাৎ করে তারা জানতে পারেন মামলাটি জেলা পুলিশ থেকে সিআইডিতে হস্তান্তর করা হয়েছে। বাদীপক্ষ আরও বলেন, তাদের আশঙ্কা পৌর মেয়র মতু ঠিক একইভাবে মামলা থেকে খালাস নেবেন। যেভাবে মেহেরপুরের ঠিকাদার টিপু ও মহাজনপুর ইউপি চেয়ারম্যান বাবলুকে হত্যা করে মামলা সিআইডিতে নিয়ে লাখ লাখ টাকা খরচ করে তিনি মামলা ২টি থেকে খালাস পেয়ে যান। বাদীর পরিবার ওই মামলা সিআইডিতে হস্তান্তরে না দাবি দিয়েছেন।
উল্লেখ্য, গত ১ এপ্রিল রাত সোয়া ৯টায় মেহেরপুর শহরের হোটেল বাজারস্থ রাজধানী শপিং সেন্টারে বোমা হামলা করে রাজধানী শপিং সেন্টারের মালিক পৌর প্যানেল মেয়র মিজানুর রহমান রিপন হত্যার জন্য সন্ত্রাসীরা বোমা হামলা করে। আহত প্যানেল মেয়র মিজানুর রহমান রিপনকে চিকিৎসার জন্য মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালে নিলে জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, সিভিল সার্জন, ম্যাজিস্ট্রেট ও কর্তব্যরত ডাক্তারদের সামনে মৃত্যুকালীন জবানবন্দিতে মেহেরপুর পৌর মেয়র আলহাজ মো. মোতাচ্ছিম বিল্লাহ মতু, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জেলা জজকোর্টের পিপি মিয়াজান আলী, ৮ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল মামুন বিপুল ও সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ মো. গোলাম রসুলের নাম করেন। ওই রাতেই তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা নেয়া হয়। পরদিন রিপনের পিতা শহরের পুরাতন পোস্টঅফিসপাড়ার আব্দুল হালিম বাদী হয়ে ওই ৪ জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা থেকে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জেলা জজকোর্টের পিপি মিয়াজান আলী ও সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ মো. গোলাম রসুলের নাম বাদ দেয়া হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় রিপন গত ৮ এপ্রিল ঢাকা অ্যাপোলো হাসপাতালে মারা যান। এ ঘটনায় রিপনের পিতা আরও একটি মামলা করেন।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.