Templates by BIGtheme NET
Home / সাহিত্য ও সাময়িকী / সাহিত্য / মেহেরপুরের বিদায়ী ও নবাগত জেলা প্রশাসক মহোদয়দেরকে বিদায়ী শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন

মেহেরপুরের বিদায়ী ও নবাগত জেলা প্রশাসক মহোদয়দেরকে বিদায়ী শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন

ড. আখতারুজ্জামান:পরিমল সিংহ জেলা প্রশাসক হিসেবে দু’বছর দু’মাস অত্যন্ত সফলভাবে মেহেরপুরে কর্মরত থেকে আজ ২০ মে,২০১৮ খ্রি. পূর্বাহ্নে মেহেরপুর থেকে বিদায় নিলেন। এমন সজ্জ্বন আর নির্মোহ মানুষের বিদায়ে মেহেরপুরের সর্বস্তরের জনগণকে শোকাবহ করে এই নিরেট আর ভাল মানুষটি বিদায় নিলেন।
না এটা তাঁর কোন অস্বাভাবিক বদলি নয়। স্বাভাবিক নিয়মে তিনি পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের উপসচিব হিসেবে পদায়িত হয়েছেন। তাঁর পরিবর্তে আজ  সেখানে যোগদান করেছেন জনাব মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় তথা বিসিএস প্রশাসন ক্যাডারের মধ্যে জেলা প্রশাসকের পদটি জেলার অত্যন্ত জনগুরুত্বপূর্ণ তাৎপর্যমণ্ডিত ও সম্মানিত। সরকার প্রদত্ত ক্ষমতাবলে এই পদটির মর্যাদা অনেক বেশি। সাধারণভাবে অধিকতর যোগ্যতা বিবেচনায় অনেক terms & conditions  আলোচনা পর্যালোচনা করে জেলা প্রশাসক হিসেবে সরকারের উপসচিবদের মধ্য থেকে এই পদে নিয়োগ দেয়া হয়। প্রশাসন ক্যাডার কর্মকর্তাদের মধ্য হতে যাঁরা জেলা প্রশাসক হিসেবে নিয়োগ পান তাঁরা সত্যিই ভাগ্যবান!

জেলা প্রশাসকের পদটি যেমন সম্মানীয় ও মর্যাদাসম্পন্ন তেমনি এই পদের সম্মান ও মর্যাদা ধরে রাখার জন্যে জেলা প্রশাসক মহোদয়কে প্রতি মুহুর্তে চোখ কান খোলা রেখে কাজ করতে হয়।
পান থেকে চুন খসলে এই পদধারী মানুষটিকে বড় ধরনের মাশুল গুণতে হয়। পাশাপাশি এই পদে যাঁরা অধিষ্ঠিত হন তাঁদের অনেক বেশি সুযোগ রয়েছে, মানুষের সেবা করার এবং মানুষের ভক্তি ও ভালবাসা পাবার।
সার্বিক বিবেচনায় আমাদের মেহেরপুরের বিদায়ী জেলা প্রশাসক, পরিমল সিংহ মহোদয় শতভাগ সফল, কোন সন্দেহ নেই।

চাকুরি সূত্রে বিদায়ী জেলা প্রশাসক মহোদয়ের সাথে মেহেরপুরে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক হিসেবে যোগদানের পরে আলাপ হলেও সেটা পরিচয় তথা ঘনিষ্ঠতায় রূপলাভ করে মাত্র চার মাস যাবত। এই চার মাসের মধ্যে কাজের স্বার্থে অনেকবার উনার ঘনিষ্ঠ সান্নিধ্যে যাবার সুযোগ হয়েছে, আর সেই থেকে উনাকে চিনেছি, দেখেছি এবং বুঝেছি নিবিড়ভাবে।

মানুষকে কি করে সম্মান দিয়ে হয় সেটার এতটুকু কমতি ছিল না তাঁর মধ্যে।
জেলাতে সরকারি অফিসার হিসেবে যাঁরা ক্যাডার কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত আছেন তাঁদের মধ্যে জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা হিসেবে আমার অবস্থান একবারে শীর্ষে, সেই হিসেবে উনি আমাকে যথাযথ সম্মান ও প্রশংসা করতে এতটুকু কার্পণ্য করেননি, কখনো। জেলা উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির মিটিং এ উনি আমার পরিচয় দিতে গিয়ে আমার সম্পর্কে অনেক সুন্দর সুন্দর বিশেষণে বিশেষায়িত করেছেন। ফোন করে কখনো উনাকে আগে ছালাম দেয়া যায়নি, উনিই আগে আমাকে ছালাম দিয়ে কুশলাদি জিজ্ঞেস করতেন। সকল কাজে সব সময় তিনি ছিলেন ভীষণ রকমের ইতিবাচক; ত্বরিত সিদ্ধান্ত দিয়ে অতি দ্রুত তিনি তাঁর দায়িত্ব শেষ করতেন।
শুধু আমার কাছে কেন  রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, সুশীল সমাজ, চাকুরিজীবী সব মেহেরপুরের সর্বস্তরের জনগণের কাছে তাঁর একটা প্রচণ্ড রকমের গ্রহণযোগ্যতা ছিল।

সদা হাস্যময়, প্রাণচাঞ্চল্যে উৎফুল্ল, মেধাবী, প্রজ্ঞাবান, যোগ্যতা, দক্ষতা, সততা ও অসীম ধীশক্তির অধিকারী সুদর্শন এবং ঘ্যামা এই মানুষটির জন্যে মেহেরপুরের সর্বস্তরের মানুষের মধ্যে প্রিয়জন হারানোর বিয়োগ ব্যাথায় হাহাকার করতে দেখেছি। সবার মুখে মুখে একই কথা মেহেরপুরবাসী একজন ভাল ও দক্ষ জেলা প্রশাসককে হারালো; এ অভাব পূরন হবার নয়!

নিশ্চিত বিদায় ঘন্টা বেজেছে জেনেও অত্যন্ত স্বাভাবিকভাবে এই মানুষটিকে তাঁর কর্ম সম্পাদন করতে দেখে হতবাক হয়েছি। বদলি জনিত কারণে উনি যোগদান করতে যাচ্ছেন বর্তমান পদ অপেক্ষা একটা অধিকতর কম গুরুত্বপূর্ণ পদে, সেটার কারণেও তাঁকে এ নিয়ে কখনো বিচলিত হতে দেখিনি; তাতে বোঝা যায় উনি কতটা বড় মনের মানুষ!

ইচ্ছে ছিল উনার বিদায় বেলা উনার পাশে থেকে বিদায়ী শুভেচ্ছা জানানোর, কিন্তু প্রজাতন্ত্রের কর্ম প্রয়োজনে সেটা আর হলো না। আগামীদিন সকালে মাননীয় কৃ্ষি মন্ত্রী মহোদয়ের উপস্থিতিতে আহুত কর্মশালায় রাজধানীতে থাকার বাধ্যবাধকতা কারণেই ঢাকার পথে রয়েছি।

মানুষ মাত্রেই চায়  প্রিয়জনকে কাছে রাখতে বা প্রিয়জনের পাশে অবস্থান করতে; কিন্তু বাস্তবতার নিরিখে সেটা সব সময় হয়ে ওঠে না। তাই বিচ্ছেদ ব্যথা যত ব্যথাতুরই হোক না কেন একটা সময় প্রিয়জনকে বিদায় দিতে হয় এবং প্রিয়জন হতে বিদায় নিতে হয়। বিদায়ী জেলা প্রশাসক পরিমল সিংহ মহোদয়ের ক্ষেত্রে আমাদের অবস্থাও তথৈবচ!

তিন অক্ষরের বাংলা “বিদায়” শব্দটি বড্ড পীড়াদায়ক। তাই বিদায় শুনলেই বুকের মধ্যে কেমন যেন হাহাকার করে ওঠে আর কেবলই মনে পড়ে বিশ্ব বরেণ্য বাঙালী কবি রবি ঠাকুরের যেতে নাহি দিব কবিতা কয়েকটি চরণ:
এ অনন্ত চরাচরে স্বর্গমর্ত্য ছেয়ে
সব চেয়ে পুরাতন কথা, সব চেয়ে
গভীর ক্রন্দন–“যেতে নাহি দিব’।   হায়,
তবু যেতে দিতে হয়, তবু চলে যায়।
চলিতেছে এমনি অনাদি কাল হতে।
প্রলয়সমুদ্রবাহী সৃজনের স্রোতে
প্রসারিত-ব্যগ্র-বাহু জ্বলন্ত-আঁখিতে
“দিব না দিব না যেতে’ ডাকিতে ডাকিতে
হু হু করে তীব্রবেগে চলে যায় সবে
পূর্ণ করি বিশ্বতট আর্ত কলরবে।
সম্মুখ-ঊর্মিরে ডাকে পশ্চাতের ঢেউ
“দিব না দিব না যেতে’– নাহি শুনে কেউ।

প্রিয় মহোদয়:
আসা যাওয়ার খেয়াতরীতে আমরা যাত্রী নিরবধি বৈ তো আর কিছু নেই। এমনি করে দৃশ্যমান পৃথিবীতে আসা যাওয়ার দোলাচলে দোল খেতে খেতে আমরা সবাই একদিন অচিনপুরের নিতাইগঞ্জে চলে যাব, যেখান থেকে আর কেউ ফিরে আসে না।
মানুষ বাঁচে আশায়
মানুষ বাঁচে ভালবাসায়।
দিন যায় কথা থাকে,
মানুষ চলে যায়
রয়ে যায় তার কর্ম কথা আর আচরণ ও বিচরণের কথকতা; সেদিক দিয়ে আপনার মত সার্থক মানুষ খুব কমই আছে!
স্মৃতির সুধায় যে পাত্র আপনি মেহেরপুরে কানায় কানায় পূর্ণ করে গেলেন সেটার অনুরণন চলবে কাল থেকে কালান্তরে।
পরিশেষে দ্রোহের কবি কাজী নজরুল ইসলামের “বিদায় বেলায়” কবিতার কয়েকটি চরণধ্বনির আলোকপাত করতে চাইছি যা আপনার বিদায়ী মন ও মননের সাথে অনেক বেশি সংগতিপূর্ণ:

“তুমি অমন ক’রে গো বারে বারে জল-ছল-ছল চোখে চেয়ো না,
ঐ কাতর কন্ঠে থেকে থেকে শুধু বিদায়ের গান গেয়ো না,
হাসি দিয়ে যদি লুকালে তোমার সারা জীবনের বেদনা,
আজও তবে শুধু হেসে যাও, আজ বিদায়ের দিনে কেঁদো না।
—————————-
—————————-
তবে জান কি তোমার বিদায়- কথায়
কত বুক-ভাঙা গোপন ব্যথায়
আজ কতগুলি প্রাণ কাঁদিছে কোথায়-
পথিক! ওগো অভিমানী দূর পথিক!
কেহ ভালোবাসিল না ভেবে যেন আজো
মিছে ব্যথা পেয়ে যেয়ো না,
ওগো যাবে যাও, তুমি বুকে ব্যথা নিয়ে যেয়ো না।”

পরিশেষে পরম করুণাময়ের কাছে প্রার্থনা করি তিনি আপনার আগামীদিনের চলার পথকে সুন্দর করে; আপনাকে  অফুরান কর্মক্ষমতার অধিকারী করুন।
আপনার সাথে মেহেরপুরে অবস্থান কালীন স্মৃতি আমাদের সবার মনের মণিকোঠায় চির জাগরূক থাকুক এই প্রত্যাশা রইলো।

নবাগত জেলা প্রশাসক মহোদয় সমীপে:
আমার শুভাকাঙ্খীরা বলেন
আমার বন্ধু ভাগ্য নাকি খুবই ভাল এবং মানুষের সাথে আমার বন্ধুত্বের পাল্লাটাও নাকি বেশ খানিকটা ভারি।
হবে হয়তাবা!
তবে এটা ঠিক আমি যেখানেই যাই না কেন সেখানে আমার দুচার জন শুভাকাঙ্খীকে ঠিক পেয়ে যায়। বিদায়ী জেলা প্রশাসক মহোদয়ের বিদায়ে মনটা বেশ খারাপ হয়েছিল, হঠাৎ করেই জিগিরী যুগ্মসচিব বন্ধু কৃষিবিদ ড. শেখ রেজাউল আমাকে ফোন করে ফোনটা ধরিয়ে দিলেন নতুন জেলা প্রশাসক হিসেবে  বদলি আদেশ প্রাপ্ত জনাব মোহাম্মাদ আনোয়ার হোসেন মহোদয়কে। দুরালাপনে কিছুক্ষণ কুশল বিনিময় হলো।  মুঠোফোনের নম্বর আদান প্রদান হলো। বন্ধু রেজাউলের ভাষায় তাঁর অনুজ সহকর্মী,  আমাদের নতুন জেলা প্রশাসক মহোদয় নাকি অনেক অনেক ভাল মানুষ। সেদিক থেকে বলতে হয় আমরা মেহেরপুরবাসী এবং মেহেরপুরে কর্মরত চাকুরিজীবীরা একেকজন সৌভাগ্যের বরপুত্র বটে!
তাই আজকে নতুন জেলা প্রশাসক হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের এই শুভ লগনে
নবাগত জেলা প্রশাসক মহোদয়কে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, মেহেরপুর এবং আমার ব্যক্তিগত পক্ষ হতে প্রাণঢালা অভিনন্দন, শুভেচ্ছা ও সু-স্বাগতম!
আপনার প্রতি অনেক অনেক শুভ কামনা রইলো।
কথা হবে নিরন্তর; দেখা হবে অনুক্ষণ,  এই প্রত্যাশায় আল্লাহ হাফেজ!
=========================
লেখক: উপপরিচালক কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, মেহেরপুর।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.