Templates by BIGtheme NET
Home / বর্তমান পরিপ্রেক্ষিত / মেহেরপুরের মেয়ে রাফিয়া আক্তার “ভালো থাক ভালোবাসা” নিয়ে হাজির হচ্ছেন পাঠকের সামনে

মেহেরপুরের মেয়ে রাফিয়া আক্তার “ভালো থাক ভালোবাসা” নিয়ে হাজির হচ্ছেন পাঠকের সামনে

Poliমেহেরপুর নিউজ, ২৭ জানুয়ারী:
মেহেরপুরের মেয়ে রাফিয়া আক্তার এবার তার নতুন উপন্যাস “ভালো থাক ভালোবাসা” নিয়ে পাঠকের সামনে হাজির হচ্ছেন। অমর একুশে বই মেলায়-২০১৭ তে পাওয়া যাবে তার এই নতুন উপন্যাস। বইটি প্রকাশ করছে চর্চা গন্থ প্রকাশনী। আর প্রছদ একেছেন শতাব্দী জহিদ। বইটি পাওয়া যাবে মেলার চর্চা গন্থ প্রকাশনীর ৫৮৬ স্টলে। এবং মেহেরপুরের দোয়েল বুক হাউজে।
উপন্যাসটি প্রসঙ্গে জানতে চাইলে প্রকাশক অমর্ত্য আতিক বলেন, তরুণ লেখিকা রাফিয়া আক্তার উপন্যাসের গল্পে আমি সত্যিই মুগ্ধ। তার গল্পে জীবনবোধ, বাস্তবতা আর ভালোবাসা মিলেমিশে একাকার। উপন্যাসে নেই কোন চরিত্রের বাড়াবাড়ি, নেই জটিলতা। তাই আগ্রহ নিয়ে বইটি প্রকাশ করলাম। আশাকরি পাঠক বইটি থেকে নতুন কিছু পাবেন।
বইটি নিয়ে মন্তব্য চাইলে লেখক রাফিয়া আক্তার বলেন, সৃষ্টির সাধনায় নিমগ্ন আমি। আমার সৃষ্টি আমার কাছে ভালো লাগবে এটাই স্বাভাবিক। পাঠক হিসেবে জীবনে অনেক লেখকের বই পড়েছি। বারবার পড়েছি এমন বইয়ের সংখ্যাও অনেক। এর আগে আমার খেলা লালটিপ প্রকাশিত হয়েছে। বইটি আমার প্রাণ। লালটিপ মানুষ গ্রহন করে আমার দায়িত্ব বাড়িয়ে দিয়েছে। চেষ্টা করেছি ভালভাবে তা লেখার দায়িত্ব পালন করার বাকিটা পাঠকের হাতে ছেড়ে দিচ্ছি।
তিনি বলেন, লেখক তৈরি করেন পাঠক। তারাই বলতে পারবেন কেমন লিখেছি। পাঠকদের অনুরোধ করব নতুন লেখকের বই কিনতে। তরুণদের হেলা করা ঠিক নয়। মনে রাখতে হবে আজকে যারা বড় বড় লেখক তারাও একদিন তরুণ ছিলেন। তরুণরা কেমন লেখে সেটা না পড়লে সমালোচনা করবেন কেমন করে।
এর আগে রাফিয়া আক্তারের লাল টিপ নামের আরো একটি গ্রন্থ প্রকাশিত হয় ২০১৬ সালের একুশের বইমেলায়। বাসাপ কাব্য গ্রন্থটি প্রকাশ করেন। এটি তার আবেগ ভারোবাসা প্রতিফলন। বইটি পাঠক মহলে ব্যাপক সাড়া জ্বাাগায়। এটি দিয়ে তিনি কবি হিসেবে আতœ প্রকাশ করেন। তিনি লেখালেখি করেন ছোট বেলা থেকেই। জীবনের প্রথম কবিতা প্রকাশ করা হয় কলেজ ম্যাগাজিনে। অবশেষে ১৯৯৯ সালে অরণি চিলড্রেন থিয়েটার তার লেখা গল্প “মৃত্যু যন্ত্রনা নীল” বই আকারে প্রকাশ করে। ২০১২ সালে “ফুরিয়ে যাওয়া আলো” নামে একটি উপন্যাস প্রকাশিত হয়।
এছাড়াও রাফিয়া আক্তারের দুটি যৌথ কাব্য গ্রন্থ রয়েছে। যার নাম সোনালী পাড়ের নক্ষত্র ও কবিতার উৎসব। মেহেরপুরের গোভীপুরে জন্ম নেওয়া রাফিয়া আক্তার অর্থনীতিতে অনার্স ও মাস্টার্স করেছেন। তিনি দৈনিক যায়যায়দিন, টারমিগান, বিক্রমপুর সংবাদ নিয়মিত লেখালেখি করেন। রাফিয়ার বাবা আবির উদ্দিন আর মায়ের নাম রিজিয়া পারভীন। তিনি বর্তমানে ঢাকার শ্যামলীতে বাস করছেন।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.