Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / মেহেরপুরের লিচু বাগান গুলি ভরে উঠছে মুকুলে মুকুলে।। মধু সিঞ্চনে মৌ চাষীরা পসরা বসিয়েছে মধু সংগ্রহে

মেহেরপুরের লিচু বাগান গুলি ভরে উঠছে মুকুলে মুকুলে।। মধু সিঞ্চনে মৌ চাষীরা পসরা বসিয়েছে মধু সংগ্রহে

মেহেরপুর নিউজ ২৪ ডট কম(২ এপ্রিল) বিশেষ প্রতিনিধি:
মেহেরপুরের জেলার লিচু বাগান গুলি ভরে উঠছে মুকুলে মুকুলে। মৌমাছির গুঞ্জনে মুখরিত লিচু বাগানগুলো। ফুলের পাঁপড়িতে মধু সিঞ্চনে মৌ চাষীরা বিভিন্ন লিচু বাগানে তাদের মৌ বাক্স নিয়ে পসরা বসিয়েছে মধু সংগ্রহে। দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে মৌ চাষীরা ছুটে এসেছে মেহেরপুর জেলায়। বাগানের মধ্যে তাবু বসিয়ে মৌ চাষীরা সংগ্রহ করছে মধু।
মৌ চাষী মনির হোসেন বলেন,লিচু ফুলের মধু খুব সুস্বাদু। বাজারে চাহিদাও প্রচুর। বিভিন্ন ঔষাধ কোম্পানী ও বড় বড় ব্যবসায়ীদের কাছে এর চাহিদা আছে।
চাষীরা জানান, চলতি মৌসুমে লিচু গাছে প্রচুর ফুল আসায় মধু সংগ্রহ ভাল হচ্ছে। তবে অভিযোগও আছে তাদের। মৌ চাষীরা মনে করে,দেশী মধুর ব্যাপক চাহিদা থাকলেও ভারতীয় মধুর কারনে তারা সঠিক দাম পাচ্ছেননা।
মৌ চাষী সামারুল ইসলাম বলেন,মেহেরপুর জেলায় প্রচুর লিচু বাগান আছে। মধুর উৎপাদনও ভাল। ভাল হলে হবে কি। আমরা এর সঠিক মূল্য পায়নি। দেশের মধুর মান ভাল তার পরেও মানুষ এই মধু খেতে চায়না। ভারতের মধুর প্রতি মানুষের ঝোক বেশী। সরকার যদি একটু উদ্যোগ নিয়ে এই মধুটা বিদেশে রপ্তানি করে তবে অনেক বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করা সম্ভব হবে।
মৌ চাষী রায়হান বলেন,৪ বছর ধরে মৌমাছি পালছি। ১২০টি বক্স আছে। এছাড়াও আমরা ৪ জন দেশের বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে বেড়ায়। মাসে মধু সংগ্রহ হয় ১০-১৫ মন। সংগ্রহকৃত মধুটা ঢাকায় এবং চট্রগ্রামে পাঠায়। এছাড়া এপি কোম্পানি, স্কয়ার কোম্পানির কাছে আমরা মধুটা বিক্রি করি।
সরকারি উদ্যেগে এসব মৌ চাষীদের কাছ থেকে মধু সংগ্রহ করে বাজারজাত করা হয় তাহলে একদিকে যেমন মৌ চাষীরা সঠিক মূল্য পাবে অপরদিকে সরকারও এই মধু বিদেশে পাঠিয়ে বৈদেশিক মূদ্রা অর্জন করতে পারবে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.