Templates by BIGtheme NET
Home / কৃষি সমাচার / মেহেরপুরের ‘হিমসাগর’ ঘ্রাণ ছড়াবে ইউরোপে :: এ বছর যাচ্ছে প্রায় ২৫০ মেট্রিক টন

মেহেরপুরের ‘হিমসাগর’ ঘ্রাণ ছড়াবে ইউরোপে :: এ বছর যাচ্ছে প্রায় ২৫০ মেট্রিক টন

মেহেরপুর নিউজ, ২০ মে:
মেহেরপুরের সুস্বাদু হিমসাগর আম এবারও রপ্তানি হচ্ছে ইউরোপে। দেশের গন্ডি পেরিয়ে মেহেরপুরের হিমসাগর আম এবারও ঘ্রাণ ছড়াবে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন ভুক্ত দেশগুলোতে।
গতবছর জেলার বিভিন্ন এলাকার ১৫টি বাগান থেকে আম নেয়ার উদ্যোগ গ্রহণ করে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সহযোগীতা রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠান। ওই বছর ১৫টি বাগানের ৪৫ হাজার আম বাছাই করে রপ্তানিকারকদের চাহিদামত এক ধরণের কার্বন ব্যাগে সংরক্ষন করে পাঠানো হয়। তবে এ বছর রপ্তানীর লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ২৫০ মেট্রিক ট্রন। ফলে ৭০টি বাগানের প্রায় ৯ লক্ষ আমকে ফ্রুট প্রটেকটিং ব্যাগে সংরক্ষন করা হয়েছে। প্রতিটি ব্যাগ আমচাষীদের কিনতে হয়েছে সাড়ে তিন টাকা করে। একটি ব্যাগ ২ বছর ব্যবহার করতে পারবেন।
শুধু তাই নয় হিমসাগর আমকে মেহেরপুরের ব্রান্ডিং করার জন্য ইতিমধ্যে বানিজ্য মন্ত্রনালয়ের প্যাটেন্ট হিসেবে আবেদন করা হয়েছে। এবং ভৌগলিক নির্দেশক (জি আই) পণ্য হিসেবে স্বীকৃত পাওয়ার লক্ষ্যে উদ্যেগ গ্রহণ করা হয়েছে। জিআই ¯^ীকৃতি পাওয়া গেলে সারা বিশ্বে মেহেরপুরের হিমসাগর আন্তর্জাতিক ব্রান্ডিং হিসেবে ¯^ীকৃতি লাভ করবে। তখন ইউরোপীয়ান ইউনিয়নসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে রপ্তানীর মাধ্যমে বিপুল পরিমান বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনের একটি বিশাল খাতে পরিণত হবে।
বিভিন্ন জাতের আমের মধ্যে হিমসাগর আম সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং সুস্বাদু। সুস্বাদু ও জনপ্রিয় হওয়াতে হিমসাগর আমকে আমের রাজা বলা হয়। হিমসাগর সম্পূর্ণ আঁশবিহীন একটি আম। একটি পরিপক্ক হিমসাগর আম ২৫০ গ্রাম থেকে ৩০০ গ্রাম পর্যন্ত হয়ে থাকে। হিমসাগর আম সাধারণত ভারতের পশ্চিমবঙ্গে এবং বাংলাদেশের রাজশাহী ও খুলনা বিভাগে উৎপাদন হয়ে থাকে। কৃষি কর্মকর্তাদের দাবি দেশের সবচেয়ে সুস্বাদু হিমসাগর আম উৎপাদন হয় মেহেরপুরে।
ইউরোপে আম রপ্তানি করার জন্য জেলায় এবার ৭০ জন চাষী চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন। কৃষি বিভাগের প্লান্ট কোয়ারেন্টাই, বানিজ্য মন্ত্রনালয়, কৃষি মন্ত্রনারয় ও ইমপোর্টার এসোসিয়েশনের প্রতিনিধিরা বিভিন্ন বাগান পরির্দশন করার পর চাষীদের সাথে চুক্তিবদ্ধ করা হয়। চুক্তিবদ্ধ চাষীদের গত ৩০ মার্চ প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও তাদের বাগানে গিয়েও হাতে কলমে ব্যাগিং করার পদ্ধতিসহ নানা প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। এ বছর সাইদুর রহমান শাহীন নামের এক চাষী সবচেয়ে বেশি আম রপ্তানি করার লক্ষ্যে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন। তিনি ৩০ বিঘা জমির বাগানের মালিক । তার বাগানে আম গাছ রয়েছে প্রায় ২ হাজার। তিনি ২ লাখ পিস আম ব্যাগিং করেছেন। এরপরই রয়েছেন হারুণ অর রশিদ নামের এক চাষী। তার বাগান রয়েছে ২০ বিঘা জমিতে। তিনি ৫০ হাজার পিস আম ব্যাগিং করেছেন।
মেহেরপুর সদর উপজেলার উপজেলার ঝাউবাড়িয়া গ্রামে সাইদুর রহমান শাহিনের আমবাগানে ঘুরে দেখা গেছে, ওই আমবাগানে ২ হাজার হিমসাগরসহ বিভিন্ন আমের গাছে রয়েছে। এর মধ্যে ২ লাখ আম বাছাই করে সেগুলো একধরণের কার্বন ব্যাগে সংরক্ষন করা হচ্ছে। দূর থেকে দেখে মনে হচ্ছে প্রতিটি গাছে অসংখ্য বাদুড় ঝুলছে। কাছে গিয়ে দেখা গেলো আসল রহস্য। আমে আটি আসার পর থেকে বাছাইকরা আমে ওই ব্যাগ পরানো হয়েছে। ওই ব্যাগ পরানোর ফলে বাহিরের কোনো রকম রোদ, বৃষ্টি এমনকি পোকামাকড় ওই আমকে ক্ষতি করতে পারবে না। এ ধরনের ৭০টি বাগান থেকে ৯ লাখ আম বাছাই করে ব্যাগে সংরক্ষন করা হচ্ছে। আগামী ২৫ মে থেকে ওই আমগুলোর রপ্তানি শুরু করা হবে।
বাগান মালিক সাইদুর রহমান শাহীন বলেন, তার বাগান থেকে এবছরও আম ইউরোপিয়ান ইউনিয়নে যাবে শুনে তিনি আনন্দিত। তিনি বলেন, গত বছরেও তিনি তার বাগানের আম ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন পাঠিয়েছিলেন। দাম পেয়েছিলে প্রতি কেজি ৯৫ টাকা করে। এবার তার বাগান থেকে ২ লাখ আম পাঠানোর জন্য প্রস্তুতি নিয়েছেন। তিনি আশাবাদি এবার তিনি আরো বেশি দাম পাবেন। তিনি বলেন, দাম ভালো পাওয়া পেলে প্রতিবছরই আমচাষীরা বিদেশে রপ্তানি করার জন্য উৎসাহিত হবেন এবং আমগাছ পরিচর্যায় আরো যত্মবান হবেন। এতে করে মেহেরপুরে থেকে বৈদেশিক অর্থ উর্পাজন করা সম্ভব হবে। যা আমাদের জাতীয় অর্থনীতিতেও গুরুত্বপূর্ন ভ’মিকা রাখবে।
হারুণ অর রশিদ নামের এক আমচাষী বলেন, বিদেশে আম রপ্তানির লক্ষ্যে যে সকল আম বাছাই করা হয়েছে। সেগুলো যতœ নেয়ার কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন । তিনি বলেন, রপ্তানি করা আমের গত বছর ভালো দাম পাওয়া গেছে। তিনি আশাবাদি এবারও ভালো দাম পাওয়া যাবে। তিনি বলেন, ভালো পেলে আমচাষীরা আম বিদেশে রপ্তানি করার বিষয়ে আরো আগ্রহী হয়ে উঠবে বলে তিনি জানান।
আমরপ্তানি কারক প্রতিষ্ঠান ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন প্রতিনিধি মফিজুর রহমান বলেন, এরআগে সাতক্ষিরা ও চাপাইনবাবগঞ্জ থেকে কিছু আম রপ্তানি করা হয়েছিল । একই সঙ্গে মেহেরপুরের আম নেয়া যাবে কিনা পরীক্ষা নিরিক্ষা করার পর গতবছর থেকে নেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সে মোতাবেক প্রথম বছরে মেহেরপুর থেকে ৪৫ হাজার পিস হিমসাগর আম নেয়ার হয়। এবার ৯ লাখ আম নেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হয় গত ফেব্রæয়ারী মাস থেকে। ফ্রেব্রæয়ারী মাস থেকে এ এলাকার ৭০জন আমচাষীকে বাছাই করে প্রশিক্ষন দেয়া হয়। এর মধ্যে ৭০ জন আমচাষী আম রপ্তানির জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়। ওই ৭০টি বাগান থেকে ৯ লাখ আম বাছাই করে সেগুলোকে ব্যাগ পরানো হয়েছে। আমের দামের বিষয়ে তিনি বলেন, গত বছরের মত এবারও ভালো দাম পাবেন ওই চাষীরা । ফলে দাম নিয়ে সমস্যা হবে না বলে তিনি জানান।
ব্যাগে আম পরানো বিষয়ে মফিজুর বলেন, ব্যাগে সংরক্ষন করলে আমো বোটা শক্ত হবে এবং আমটি বাইরের যে কোনো ক্ষতিকর অবস্থা থেকে রক্ষা পাবে এবং রঙ নষ্ট হবে না।
মেহেরপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক এস এম মোস্তাফিজুর রহমান  বলেন, মেহেরপুরের হিমসাগর দেশের সবচেয়ে সুস্বাদু আম। তিনি বলেন, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উদ্যোগে গত বছরই প্রথম মেহেরপুরের এই সুস্বাদু হিমসাগর আম ইউরোপিয়ান ইউনিয়নে রপ্তানির করা হয়েছিল। এবার ৯ লাখ আম পাঠানোর প্রক্রিয়া করা হয়েছে। ইতিমধ্যে জেলার বিভিন্ন এলাকার ৭০টি আমবাগান থেকে ঐ আম বাছাই করে সেই আমগুলোতে রপ্তানী কারক প্রতিষ্ঠানের আম সংরক্ষন করা ব্যাগ পরানো হয়েছে। চুক্তিবদ্ধ চাষীদের কয়েকদফায় প্রশিক্ষন দেয়া হয়েছে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful