Templates by BIGtheme NET
Home / বর্তমান পরিপ্রেক্ষিত / মেহেরপুরে এক পরিবারের তিন সন্তানের মৃত্যু চেয়ে আবেদন!

মেহেরপুরে এক পরিবারের তিন সন্তানের মৃত্যু চেয়ে আবেদন!

0099মেহেরপুর নিউজ, ২০ জানুয়ারী:
মেহেরপুর শহরের কাথুলী সড়কের বেড়পাড়ার ডুফিনি মাসুকলার ডিসট্রোফি রোগে আক্রান্ত এক পরিবারের তিন সন্তানকে দেখতে গিয়ে চিকিৎসার আশ্বাস দিলেন মেহেরপুর স্থানীয় সরকারের উপ-পরিচালক খাইরুল হাসান।
শুক্রবার বেলা ১১ টার সময় মেহেরপুর স্থানীয় সরকারের উপ-পরিচালক খাইরুল হাসান শহরের কাথুলী সড়কের বেড়পাড়ার মরণ ব্যাধিতে আক্রন্ত ঐ পরিবারকে দেখতে গিয়ে তাদের চিকিৎসার আশ্বাস দেন। এর আগে মেহেরপুর জেলা শহরের বেড়পাড়ার তোফাজ্জেল হোসেন বৃহস্পতিবার দুপুরে মেহেরপুরের জেলা প্রশাসক পরিমল সিংহের কাছে মরণ ব্যাধিতে আক্রন্ত সন্তানের মৃত্যু চেয়ে লিখিত আবেদন করেন।
লিখিত আবেদনে ছেলের চিকিৎসা ব্যয়ভার মেটাতে না পারা অসহায় পিতা তোফাজ্জেল হোসেন বলেছে দুরারোগ্য রোগে আক্রান্ত দুই ছেলে, স্ত্রী ও নাতনির মৃত্যুর অনুমতি দেয়া হোক না হলে চিকিৎসার ব্যয়ভার নেয়া হোক।
তোফাজ্জেলের দুই ছেলে জন্মের পর থেকেই ডুফিনি মাসুকলার ডিসট্রোফি রোগে আক্রান্ত। যার ওষুধ আজও আবিস্কার হয়নি। দুরারোগ্য রোগের চিকিৎসা করতে গিয়ে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বিকিয়ে দিতে হয়েছে। তোফাজ্জেলের কাঁধের ওপর থেকে নিকটাত্বীরা হাত সরিয়ে নিয়েছে। দিন যতই যাচ্ছে ততই মৃত্যু যন্ত্রনায় ছটফট করছে বড় সন্তানটি। একমাত্র মেয়ের সন্তানটির শরীরেও একই রোগ বাসা বেঁধেছে। তোফাজ্জেলের স্ত্রী সেও বুদ্ধি প্রতিবন্ধি। এ অবস্থায় তোফাজ্জেলও চোখে আঁধার দেখছে। চিকিৎসার ব্যয়ভার মেটাতে জেলা প্রশাসকের কাছে তোফাজ্জেলের আবেদন- হয় আমার সন্তানের চিকিৎসাভার নেয়া হোক অথবা মৃত্যুর অনুমতি দেয়া হোক।
তোফাজ্জেলের ছেলে আবদুস সবুর (২৪), ছোট ছেলে রায়হান, নাতি সৌরভ (৮) ডুফিনি মাসকুলার ডিসট্রোফি রোগে আক্রন্ত। সবুর বর্তমানে বিছানাগত। স্ত্রী শিরিনা বেগম বুদ্ধি প্রতিবন্ধি। শহরের বড় বাজারের পৌর মার্কেটে তোফাজ্জেলের একটি পান বিড়ির দোকান ছিল। সেটিও বিকিয়ে দিয়েছে ছেলের চিকিৎসার প্রয়োজনে। স্থানীয় চিকিৎসকের পরামর্শে চিকিৎসা করাতে সঞ্চিত সব অর্থ ও সহায়-সম্পত্তি শেষ করে ফেলেছেন । কিন্তু তাতে ছেলের শরীরের কোনো উন্নতি হয়নি।
আবদুস সবুর ৪র্থ শ্রেণী পর্যন্ত লেখা পড়া করেছে। সে সময় তার রোগটি দেখা দেয়। ফলে তার আর স্কুলে যাওয়া হয়নি। সে সময় মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালের শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. মাহাবুবুল আলম রোগটি সনাক্ত করেন। ভারতের কেয়ার হাসপাতালের শিশু বিশেষজ্ঞ গৌরাঙ্গ মণ্ডল, তপন কুমার বিশ্বাস, ভারতের কোঠারি মেডিকেল সেন্টারের শিশু বিশেষজ্ঞ ড.¯^পন মুখার্জিও সবুরের মল-মূত্র, রক্ত, কফ পরীক্ষা করে নিশ্চিত হন ‘ডুফিনি মাসকুলার ডিসট্রোফি’ ডিজিজ বলে।
তোফাজ্জেল হোসেন তার সন্তানের আরোগ্যে দেশের বিভিন্ন ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান, দূতাবাসেও ছুটে গেছেন। ঢাকায় ফ্রান্স দূতাবাস সহযোগিতা দিতে ইন্টারনেটের মাধ্যমে বিশ্বের চিকিৎসা বিজ্ঞানীদের কাছে রোগের ওষুধ কি জানতে চেয়ে অনুরোধ করেন। এই অনুরোধের উত্তরে তোফাজ্জেল হতাশ হয়ে পড়েন। শত শত চিকিৎসক ইন্টারনেটে জানিয়েছেন, এখনও এই রোগের কোন ওষুধ আবিস্কার হয়নি। এই রোগটি ক্যান্সারের চেয়েও ভয়াবহ বলে একজন শিশু বিশেষজ্ঞ জানিয়েছেন। আক্রান্তের শরীরে সব অংশের মাংসপেশী আস্তে আস্তে জমাট বেঁধে যাবে। চলাফেরা বন্ধের সাথে সাথে কথা বলার শক্তিও হারিয়ে যাবে। মাংস জমাট হওয়ার কারণে ও কোন ওষুধ আবিস্কার না হওয়ায় এ রোগমুক্ত করা সম্ভব নয়। চিকিৎসায় কোন সুফল মিলবেনা। বাড়বে শুধুই যন্ত্রনা। আক্রান্তের কয়েক বছরের মধ্যেই রোগি মারা যাবে। শিশু বিশেষজ্ঞগণ এও জানিয়েছেন, বাবা মার জেনেটিক ডিজঅর্ডারের কারণে সন্তানদের মধ্যে সাধারণত এই রোগ দেখা দেয়। তবে তোফাজ্জেল হোসেনকে আশার বানী শুনিয়েছেন ভারতের ‘‘ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অব হোমিওপ্যাথি’ হাসপাতালের চিকিৎসকগণ। তারা জানিয়েছেন, দীর্ঘ মেয়াদের চিকিৎসায় এ রোগ সারিয়ে তোলা সম্ভব। যদি সেখানে ভর্তি করা যায়। একটু আশার পথ দেখলেও অর্থ সংকটের কারণে সন্তানদের চিকিৎসা পথ না পেয়ে বাধ্য হয়ে জেলা প্রশাসকের কাছে তোফাজ্জেলের আবেদন হয় আক্রান্ত ছেলেদের মৃত্যুর অনুমতি অথবা চিকিৎসার দায়িত নেয়া হোক।
‘ছেলের চিকিৎসা করাতে সঞ্চিত সব অর্থই শেষ হয়ে গেছে। এরপরও আত্মীয়-¯^জন ও বন্ধুদের কাছ থেকে টাকা ঋণ নিয়েও চিকিৎসা করানো হয়েছে। এখন একদম নিঃ¯^। তিনি বিএনপির সরকারের সময় তৎকালীন প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে স্থানীয় সংসদ সদস্যর মাধ্যমে লিখিত আবেদন করেছিলেন চিকিৎসার সাহায্য চেয়ে। কিন্তু কোন সাহায্য মেলেনি। তবে বর্তমান এমপি ফরহাদ হোসেন তোফাজ্জেলকে ৩০ হাজার টাকা অর্থ সহযোগিতা দিয়েছেন বলে জানান।
তোফাজ্জোলের স্ত্রী শিরিনা বেগম জানান- প্রতিদিন নিয়ম করে ছেলেদের বিছানা থেকে তোলা, গোসল করানো। কোলে করে বাথরুমে নিয়ে যাওয়া আর সহ্য করতে পারিছেন না। তিনি ছেলের রোগটি নিজের শরীরে কামনা করে তাদের রোগমুক্তি প্রাথনা করেছেন।
আবেদনের প্রেক্ষিতে মেহেরপুরের স্থানীয় সরকারের উপ-পরিচালক খাইরুল হাসান (দায়িত্ব প্রাপ্ত জেলা প্রশাসক) তিন সন্তানকে দেখতে গিয়ে বলেন, তিন সন্তানের মৃত্যু চেয়ে আবেদন পেয়ে এখানে ছুটে এসেছি, তোফাজ্জেলের পরিবারের সকলে ডুফিনি মাসুকলার ডিসট্রোফি রোগে আক্রান্ত। তিনি সন্তাদের রোগ মুক্তির জন্য অনেক চেষ্টা করেছেন। এখন তিনি তার সন্তাদের আর চিকিৎসা করাতে পারছেন না। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাদের চিকিৎসা ব্যায়ের জন্য প্রধানমন্ত্রীর বরাবর জানানো হবে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful