Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / মেহেরপুরে এবছর বেগুনের বাম্পার ফলন ॥ কেজি প্রতি বেগুনের দাম ৩ থেকে ৪ টাকা ॥ দাম না পেয়ে চাষীরা হতাশার মহাসাগরে হাবুডুবু খাচ্ছে॥ লাভবান হচ্ছে ফড়িয়ারা

মেহেরপুরে এবছর বেগুনের বাম্পার ফলন ॥ কেজি প্রতি বেগুনের দাম ৩ থেকে ৪ টাকা ॥ দাম না পেয়ে চাষীরা হতাশার মহাসাগরে হাবুডুবু খাচ্ছে॥ লাভবান হচ্ছে ফড়িয়ারা

বিশেষ প্রতিনিধি:
সবজি সমৃদ্ধ মেহেরপুর জেলার সবজি চাষের অন্যতম অর্থকরি সবজি বেগুন। এবার বেগুন চাষে জেলার বেগুন চাষীরা বাম্পার ফলন ফলালেও দাম না পেয়ে চাষীরা হতাশার মহাসাগরে হাবুডুবু খাচ্ছে। বর্তমানে মেহেরপুর বাজারে কেজি প্রতি বেগুনের দাম ৩ থেকে ৪ টাকা। দাম না পাওয়ায় চাষীরা জমি থেকে বেগুন তোলা ছেড়ে দিয়েছে বললেই চলে। ফলে জমিতে বেগুন নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।
মেহেরপুরের সবজী চাষীদের অভিযোগ সঠিক বাজার ব্যবস্থা না থাকায় চাষীরা কোন ফসলের ন্যায্য মূল্য পাচ্ছেনা। চাষীদের ঘাম ঝরানোর উৎপাদিত ফসলের লাভের অংশ লুটে খাচ্ছে মধ্যসত্বভোগীরা।
মেহেরপুর জেলা কৃষি সমপ্রসারন অধিদপ্তর জানিয়েছে, জেলায় এবার সাড়ে ৩ হাজার হেক্টর জমিতে বিভিন্ন ধরনের সবজি চাষ হয়েছে। তার মধ্যে বেগুনের চাষ হয়েছে ৩৫০ হেক্টর জমিতে। প্রতিবিঘা জমিতে বেগুন চাষ করতে চাষীদের খরচ হয়েছে ১০/১২ হাজার টাকা। এই টাকা খরচ করে চাষীরা ফলনও পেয়েছে আশানুরুপ। কিন্তু কষ্টার্জিত বেগুন তুলে যখন বাজারে নিয়ে যাচ্ছে তখন আর খরিদ্দার কাস্টমার পাচ্ছে না চাষীরা। ৩ থেকে ৪ টাকা দরে বাজারে বেগুন বিক্রি করে চাষীদের তোলা খরচ হচ্ছে না। অনেকে স্থানীয় বাজার ছেড়ে ঢাকা, বরিশাল অথবা চট্রগ্রামে বেগুন তুলে ট্রাক ভাড়া করে নিয়ে গিয়ে বেগুন বিক্রি করে গাড়ী ভাড়া তুলতে পারছেনা।
বেগুন চাষী জমসেদ আলী বলেন,বেগুন আমরা উৎপাদন করছি ঠিকই কিন্তু বেগুন যে পরিমানে উৎপাদন করছি সেই পরিমান দাম পাচ্ছিনা। আমরা যদি ৫ টাকা কেজি পেতাম তাও লাভবান হতাম। এখন এই বেগুন ১ দেড় টাকা কেজি দরে বিক্রি করতে হচ্ছে পাইকারী মুকামে। বাজার দরের ব্যাপারে যদি জেলা প্রশাসক বা কৃষি অধিদপ্তর কোন উদ্যেগ নিতো তাহলে চাষীরা উপকৃত হতো।
বেগুন চাষী একরামুল বলেন,একবিঘা জমিতে বেগুন চাষ করতে কীটনাশক ও সার মিলিয়ে ১০/১২ হাজার টাকা খরচ হয়। কিন্তু বর্তমান বাজারে ৩ টাকা ৪ টাকা কেজি বেগুন বিক্রি করে আমাদের লাভ দুরের কথা খরচ উঠছেনা।
চাষী আকছেদ আলী বলেন, ৮ থেকে ৯ বছর যাবৎ বেগুন চাষ করছি। প্রতিবছর জেলার শতকরা ৮০ থেকে ৯০ ভাগ মানুষ বেগুন চাষ করে লাভবান হয়ে আসছিলো। কিন্তু এই বছর লাভবানতো দুরের কথা যে কোন মার্কেটে বিক্রি করতে গিয়ে খাওয়ার পয়সা ঘুরছেনা, গাড়িভাড়া মিটছেনা বরঞ্চ গাড়ি সহ মাল ফেলে পালিয়ে বাঁচছে বেগুন চাষীরা।
চাষী রহিম মিয়া বলেন, বেগুন বাজারে নিয়ে ২ টাকা দেড় টাকা কেজি দরে বিক্রি করছি। যারা বেগুন কিনে খাচ্ছে তারা ৮/১০ টাকা দিয়ে কিনে খাচ্ছে। কিন্তু আমরা দাম পাচ্ছিনা। এতে ফড়িয়ারা লাভ করছে কিন্তু কিন্তু চাষীদের পুজি হারিয়ে যাচ্ছে।
চাষী ডাবলু বলেন,বেগুন লাগিয়ে যেভাবে খরচ করেছি আর যে পরিমান ফলন এসছে একবারই বিঘাপ্রতি ২০/২৫ মন হবে। কিন্তু বেশী ফলন পেয়ে কি হবে। খরচই উঠছেনা। এখনই জমি ছেড়ে বাড়ি চলে যেতে হবে। এছাড়া আমাদের কোন পথ নাই।
মেহেরপুর জেলা কৃষি সমপ্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোঃ মনিরুজ্জামান বলেন, মেহেরপুরের চাষীরা অনেক আগে থেকেই আধুনিক কৃষি প্রযুক্তি ব্যবহার করে আসছে। উন্নতমানের বীজ ব্যবহার করে বেগুন চাষ করছে। এবার ৩৫০ হেক্টর জমিতে বেগুন চাষ হয়েছে। এই বেগুন তারা হেক্টর প্রতি ২০ টনেরও বেশী উৎপাদন করতে সক্ষম হয়েছে। মার্কেটিং ফ্যাসিলিটি না থাকায় তারা এক দেড় টাকা কেজি বেগুন বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছে। এতে তাদের মধ্যে হতাশা দেখা দিচ্ছে। ফলে তারা আধুনিক পদ্ধতিতে চাষাবাদে উৎসাহ হারিয়ে ফেলছে। চাষীদের এই উৎপাদিত বেগুন দেশের বড় বড় শহরে প্রেরণ করে সরকারী উদ্যোগে বিক্রির ব্যবস্থা করতে পারলে তারা ন্যায্য মূল্য পেতো পাশাপাশি এই এলাকার কৃষি ব্যবস্থার উন্নতি হতো বলে তিনি সাংবাদিকদের বলেন।
জেলার শত শত চাষী এবার বেগুনের চাষ করে আর্থিকভাবে চরম ক্ষতির সম্মুখিন হয়ে পড়েছে। সদাসয় সরকারের এই দিকে জরুরীভাবে দৃষ্টি দিয়ে মার্কেটিং সিস্টেমটা একটু ডেভলোপ করলে চাষীরা আর্থিক ক্ষতি থেকে বাচতে পারবে। অন্যথায় আগামীতে এর আবাদ অনেক কমে যাবে বলে মনে করছে জেলার সবজী বিশেষজ্ঞরা।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.