Templates by BIGtheme NET
Home / আইন-আদালত / মেহেরপুরে কাজীর সহকারীর ক্ষমা প্রার্থনা, তবুও ৭দিন জেল

মেহেরপুরে কাজীর সহকারীর ক্ষমা প্রার্থনা, তবুও ৭দিন জেল

66মেহেরপুর নিউজ, ২৯ ডিসেম্বর:
মেহেরপুরে বাল্য বিবাহ রেজিষ্ট্রি করায় কাজীর সহকারী মসলেম উদ্দিন (৬০) এর ৭ দিন জেল দিয়েছে ভ্রাম্যমান আদালত। এ সময় তিনি করজোড়ে ক্ষমাপ্রার্থনা করেও ক্ষমা পাননি। দন্ডিত মসলেম উদ্দিন সদর উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতির দায়িত্বে রয়েছেন।
মঙ্গলবার দুপুরে মেহেরপুরের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ও জেলা প্রশাসনের এনডিসি মোহাম্মদ নুর এ আলম এ আদালত পরিচালনা করেন।
ভ্রাম্যমান আদালত সূত্রে জানা গেছে, ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্রে জানা গেছে, মাসখানেক আগে মেহেরপুর শহরের শেখ পাড়ার শফিকুল ইসলামের ছেলে আব্দুল সালামের সাথে খান পাড়ার সামিরুল ইসলামের মেয়ে মেহেরপুর সরকারী বালিকা বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্রী কনিকা খাতুন (১৬) এর সাথে রেজিস্ট্রির মাধ্যমে বিবাহ সম্পন্ন হয়। গত শুক্রবার কনের বাড়িতে অনুষ্ঠানের মাধ্যমে কনেকে শশুর বাড়িতে নেয়ার অনুষ্ঠান হওয়ার কথাছিলো। এমন খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো: শাহীনুজ্জামানের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালতের একটি টিম কনের বাড়ি এবং বরের বাড়িতে অভিযান চালায়। এ সময় কনের মা সুফিয়া বেগম এবং বর আব্দুল সালামকে আটক করে বাল্য বিবাহ নিরোধ আইন মোতাবেক সুফিয়া বেগমের ৭দিন এবং আব্দুল সালামের ১৫দিন কারাদণ্ডাদেশ দেয়া হয়। এরপর ওই বিবাহ রেজিস্ট্রি করার অপরাধে শহরে কাথুলী সড়কের বেড়পাড়ায় কাজী অফিসার অভিযান চালায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের টিমটি। সংবাদ পেয়ে আগে থেকেই কাজী পিয়ারুল ইসলাম ও তার সহকারী মসলেম উদ্দিন পালিয়ে গেলে ওই অফিসের সকল রেজিস্ট্রি বই জব্দ করে ভ্রাম্যমাণ আদালত।
পরে কাজীর সহকারী মসলেম উদ্দিনকে কয়েক দফা তার বাড়িতে অভিযান চালিয়ে আটক করতে গেলে সে পলাতক থাকে। অবশেষে আজ মঙ্গলবার মসলেম উদ্দিন জেলা প্রশাসকের কাছে আত্মসমর্পন করে করজোড়ে ক্ষমা প্রার্থীনা করেন। পরে জেলা প্রশাসক তাকে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোহাম্মদ নুর এ আলমের আদালতে প্রেরণ করলে বিচারক তাকে ৭দিনের জেল দেন।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.