Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / মেহেরপুরে জমে উঠেছে ঈদের বাজার ।। দাম শুনে হতাশ নিম্ম ও মধ্যম আয়ের ক্রেতারা

মেহেরপুরে জমে উঠেছে ঈদের বাজার ।। দাম শুনে হতাশ নিম্ম ও মধ্যম আয়ের ক্রেতারা

b-5-tileমেহেরপুর নিউজ ২৪ ডট কম,১৫ জুলাই:
মেহেরপুরে জমে উঠেছে ঈদের বাজার। রোযার প্রথম ১০ দিনে বাজারে ক্রেতাদের দেখা না মিললেও এখন দেখা যাচ্ছে ক্রেতাদের উপচেপড়া ভিড়। রকমারী পণ্যে ক্রেতারা আকৃষ্ট হলেও চড়া দাম শুনে হতাশ হচ্ছে ক্রেতারা। মেহেরপুর শহরের বড়বাজার ও হোটেল বাজারের বিভিন্ন দোকান ঘুরে প্রতিবেদন তৈরি করেছেন আমাদরে স্টাফ রিপোর্টার মুজাহিদ মুন্না
রমযানের শুরুতে মেহেরপুরের বাজারে ক্রেতাদের দেখা না মিললেও গত কয়েকদিনে বেড়েছে ক্রেতাদের ভিড়। পোষাকের মানে ভিন্নতা না থাকলেও ডিজাইনের ভিন্নতায় দাম হাকানো হচ্ছে আকাশচুম্বি। ফলে বেশি সমস্যায় পড়েছে নিম্ম ও মধ্যবিত্ত আয়ের মানুষেরা। বরাবরের মতো এবারও দেশী পোষাক উপেক্ষা করে ভারতীয় পোষাকে ছেয়ে গেছে বাজার। রেবন সিল্ক, ডুপিয়ান সিল্ক, চেন্নাই কাতান, অ্যান্ডি সিল্ক, তেরে চুমকি, পক্সিখরাজ, রেনডি সিল্ক বেশি বিক্রি হচ্ছে। হরেক নামের পোশাকের পসরা সাজিয়ে বসেছে দোকানিরা। আর প্রতি বছরের মত এবারও b-8বেড়েছে পোষাকের দাম। তবে নেই মানের কোন ভিন্নতা। একই পোষাক ভিন্ন ভিন্ন ডিজাইনে বাজারে ছেড়ে হাকানো হচ্ছে চড়া দাম। উচ্চবিত্তরা এই ভিন্নতায় আকৃষ্ট হলেও নিম্ম ও মধ্যবিত্তরা রীতিমত হিমশিম খাচ্ছেন। অনেকে বাজার থেকে নিরাশ হয়ে ফিরে যাচ্ছেন। তবে প্রতিবছরের ন্যায় এবারও ভারতীয় সিরিয়ালের নায়ক নায়িকাদের নামকরণের পোষাকের কদর বেশী। নায়িকা পাখির নামকরণে থ্রি-পিচের দাম ডিজাইন ভেদে তিন থেকে চার হাজার টাকা দামে বিক্রি হচ্ছে। অপরদিকে বেচাকেনা নিশ্চিন্তে করার লক্ষ্যে কয়েকস্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করেছে পুলিশ প্রশাসন।
মেহেরপুর শহরের বড়বাজার এলাকার ক্রেতা আফরোজা খাতুন জানান, গতবছরের তুলনায় এবছর পোষাকের দাম অনেক বেশী। ফলে পরিবারের লোকজনের চাহিদামত পোষাক কিনতে রীতিমত হিমশিম খেতে হচ্ছে।
b-2শহরের হোটেল বাজার এলাকার আশরাফুল আলম জানান, গতবছরের পোষাক রং ঢং পাল্টিয়ে দাম করা হয়েছে দ্বিগুন। যে পোশাক গত বছর কিনেছিলাম ১হাজার টাকায় সে পোশাক এবার কিনতে হচ্ছে দেড় থেকে ২ হাজার টাকায়।
বড়বাজার এলাকার রাজা গার্মেন্টসের মালিক আব্দুল কাদের জানান,
যে পোষাক সাধারনত বিক্রি হচ্ছে সেগুলোর অধিকাংশই দেশের বাইরে থেকে আমদানী করা। ফলে ভ্যাট-ট্যাক্স এর কারণে পোষাকের দাম বেশী । তিনি বলেন বেশী দামে কেনার কারনে বিক্রি করতেও হচ্ছে বেশী দামে। তবে ক্রেতাদের চাহিদা অনুযায়ী সকল প্রকারের পোষাকরে সমারোহ বাজারে আছে।
পোষাক নির্মাতা কারখানার মালিক রেজাউল হক বুলেট জানান, ভারতীয় b-6চ্যানেল দেখে পোষাক পছন্দ করার প্রবনতা দেখা দিয়েছে। বিদেশী পোষাকের প্রতি ক্রেতাদের নেশায় পরিনত হয়েছে। তবে কাপড় ও প্রয়োজনীয় উপাদান আমরা যদি ভাল মানের তৈরী করতে পারি তাহলে ভাল পোষাক আমরাও তৈরী করতে পারব।
মেহেরপুর বড়বাজার ব্যাবসায়ী সমিতির  সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান দিপু জানান,জিনিসপত্রের দাম সন্তোষজনক। বাজারে কোন রকম সমস্যা নেই। প্রশাসনের সঙ্গে আমাদের সার্বক্ষনিক যোগাযোগ আছে। নিরাপত্তা ব্যবস্থা বর্তমানে ভাল।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.