Templates by BIGtheme NET
Home / ফিচার / মেহেরপুরে বিপনীগুলোতে জমে উঠেছে ঈদের কেনাকাটা ।। মেয়েদের পছন্দ লেহেঙ্গা ও ছেলেদের শীর্ষে পাঞ্জাবি

মেহেরপুরে বিপনীগুলোতে জমে উঠেছে ঈদের কেনাকাটা ।। মেয়েদের পছন্দ লেহেঙ্গা ও ছেলেদের শীর্ষে পাঞ্জাবি

11মুজাহিদ মুন্না, ২১ জুন:
মেহেরপুরে জমে উঠেছে ঈদের বাজার। তবে প্রতিবছরের মত এবারও কেনাকাটায় ভারতীয় সিরিয়ালের নামের পোশাক প্রাধান্য দিচ্ছেন ক্রেতারা। ঈদ ঘনিয়ে আসার সাথে সাথে ভিড় বেড়েছে মেহেরপুরের মর্কেটগুলিতে। গতবারের তুলনায় এবার দাম একটু বেশি। তবে দামকে উপেক্ষা করে পছন্দের পণ্য কিনতে ক্রেতারা ছুটছেন এক মার্কেট থেকে আরেক মার্কেটে। কেনাকাটা চলছে গভীর রাত পর্যন্ত। বেচাকেনা জমে ওঠায় দারুণ খুশি ব্যবসায়ীরা। রোজার বাকি দিনগুলিতেও যদি এভাবে বেচাকেনা করতে পারবে এমনটা প্রত্যাশা করছে ব্যাবসায়ীরা। এবারও দোকান গুলিতে পোশাকে স্টার জলসা ও হিন্দি সিরিয়ালের প্রধান চরিত্রগুলোর দাপট দেখা যাচ্ছে। তবে এবার ছেলেদের পছন্দের শীর্ষে পাঞ্জাবি আর মেয়েদের লেহেঙ্গা। ভারতীয় পোশাকের মধ্যে কিরণমালা, কটকটি, অ্যারাবিয়ান হিপ, লেহেঙ্গা-আনটিস দিলু ফোর টাচ ফ্রক বা লং ড্রেস রয়েছে। সাথে ভিন্ন ধরনের কামিজসহ বিভিন্ন পোশাক থাকলেও মেয়েদের পছন্দের শীর্ষে রয়েছে লেহেঙ্গা ‘কিরণমালা’, ছেলেদের ‘মোদি’ পাঞ্জাবি আর মহিলাদের লেহেঙ্গা, জামদানি ও টাঙ্গাইল শাড়ি।
44মেহেরপুর শহরের বড়বাজারে আহাম্মদ আলী সুপার মার্কেট, হুদাপ্লাজা, জামান বাজার, আগরওয়ালা, রাজ ফ্যাশান, হোটেল বাজারে রিপন টাওয়ার, জামান শপিং কমপ্লেক্স, মানিক টাওয়ারসহ কোর্ট রোডে অবস্থিত বিভিন্ন মর্কেট এখন ক্রেতাদের ভিলে মুখোরিত হয়ে উঠেছে।
এ সকল মার্কেট গুলিতে সকাল থেকে শুরু করে গভীর রাত পর্যন্ত চলছে বেচাকেনা।
এদিকে ভিড় বেড়েছে সিট কাপড়ের দোকান গুলোতেও। সুতি, কাতান, জর্জেট ও লিলেনের কাপড় কিনে পছন্দমতো ডিজাইনে পোশাক বানাতে তরুণ-তরুণীরা ছুটছেন লেইসের দোকানগুলোয়। লং কামিজ সেলাইয়ের জন্য ক্রেতারা বেশি কিনছেন বড় পাড় স্টাইলের
লেইস।
মেহেরপুর বড় বাজারের নিউ ফ্যাশানের স্বত্বাধিকারী হাবিবুর রহমান ডিকেন বলেন, এবার দামি পোশাকের বেশ চাহিদা দেখা যাচ্ছে। বাজারও ভালো। ঈদ সামনে রেখে তিনি এবার যে পরিমান পোশাক দোকানে এনেছিলেন তা প্রায় শেষ।
33মেহেরপুর বড় বাজারে ঈদের কেনাকাটা করতে আসা মেহেরপুর সদর উপজেলার গোভীরপুর গ্রামের কামরুল ইসলাম বলেন, বাজরে এসছি ঈদের কেনাকাটা করতে বাজারে ভিন্নধরনের পোশাকের সমরাহ দেখছি কিন্তু যে পরিমানে দাম তাকে করে শেষ পর্যন্ত মার্কেট করতে পারব কিনা সেটা নিয়ে ভাবছি।
ঈদের বাজার করতে আসা মেহেরপুর সরকারী কলেজের ইংরেজী (অনার্স) বিভাগের শোভা রহমান বলেন, নতুন বিয়ে করেছি বিয়ের পর প্রথম ঈদ শশুরের জন্য একটা পাঞ্জাবি ও শাশুড়ির জন্য শাড়ী কিনেছি। নিজের জন্য এখনও কিছু কেনা হয়নি । পোশাকের যে পরিমানে দাম হাকাচ্ছে কি করব বুঝত পারছি না। বিভিন্ন দোকানে দোকানে ঘুরছি প্রতিটা দোকেনেই প্রচুর কালেকশন আছে কিন্তু পোশাকের মানের চাইতে দাব কয়েকগুন বেশি বলে তিনি জানান।
55অমি ফ্যাশানের স্বত্বাধিকার সানোয়ার হোসেন সেন্টু বলেন, এবার ঈদে এবার দামি পোশাকের বেশ চাহিদা দেখা যাচ্ছে। বাজারও ভালো। চীন থেকে শিশু ও মহিলাদের পোশাক এসেছে আবার তেমনি মহিলাদের পোশাকে ভারতীয় আধিপত্য আছে একই সাথে কদর বেড়েছে দেশীয় পোশাকের।
স্কুল শিক্ষকা শিউলি আক্তার বলেন, বাজারে রকমারি বা বাহারি পোশাকের সমাহার ঘটেছে। তবে দাম একটু বেশি। মেয়েদের পোশাকে কিরণমালা ছাড়াও লং কামিজ ও পালাজ্জো এবার বেশি বিক্রি হচ্ছে। পাশাপাশি শেরওয়ানি-কোটিসহ কামিজের বিক্রি ভালো। তিনি জানান, দেশী লং কামিজ এক হাজার ৬০০ থেকে আড়াই হাজার, ভারতীয় তিন হাজার থেকে আট হাজার এবং ভালো জর্জেটের কামিজ পাঁচ হাজার থেকে ১৪ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে। পাল্লাজো কামিজসহ বিক্রি হচ্ছে চার হাজার থেকে সাত হাজার টাকায়।
এদিকে এবার মেহেরপুরের ছেলেদের ঈদ পোশাকে এক্সপোর্টের পোশাকের ব্যাপক চাহিদা লক্ষ করা যাচ্ছে। শহরের এক্সপোর্টের পোশাকের দোকানগুলোতে তরুণ ছেলেদের ভিড় লক্ষ করা যাচ্ছে।
22শহরের হোটেলবাজারে জামান শপিং কমপ্লেক্সে এক্সপোর্ট কালেকশন নামক দোকানের স্বত্বাধিকার মিনারুল ইসলাম বলেন, কয়েকবছর ধরে মেহেরপুরের তরুণদের মাঝে এক্সপোর্টের ব্যাপক চাহিদা লক্ষ করা যাচ্ছে। তাই এবার ঈকে সামনে রেখে শহরের বড়বাজার এলাকায় আরো একটি দোকান চালু করতে যাচ্ছি। হটাৎ এক্সপোর্টের চাহিদা কেন বাড়ল এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন দামের তুলোনায় পোশাকের মান অনেক ভালো হওয়ায় মেহেরপুরে এক্সপোর্টের চাহিদা বেড়েছে বলে তিনি জানান।
বড় বাজার ব্যাসসায়ী সমিতির সভাপিত ও জামান বাজারের স্বত্বাধিকার মনিরুজ্জামান দিপু বলেন, এবার বাজারে পোশাকের ব্যাপক চাহিদা আছে। প্রতিটা দোকানেই গতবারের তুলনায় অনেক বেশি ভিড় লক্ষ করা যাচ্ছে। আশা করছি বাকি দিন গুলোতেই বাজার এমন থাকবে। এসময় তিনি বাজারে নিরাপত্তার বিষয়ে সন্তস প্রখাম করেন। তবে তিনি ক্রেতাদের বেশি দামের অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে বলেন ব্যাবসায়ীরা বেশি দামে কিনছে তাছাড়া বাজারে সকল পন্যরদাম বেশি ব্যাবসায়ীরা বেশি দাম হাকাচ্ছে না।
নিরাপত্তার বিষয়ে মেহেরপুর পুলিশ সুপার হামিদুল আলম বলেন, ঈদকে সামনে রেখে মানুষজন যাতে নিরবিগ্নে তাদের কেনাকাটা করতে পারে তাই পুলিশের চার স্তরে নিরাপত্তা বলয় তৈরি করা হয়েছে। তাছাড়াও সাদা পোশাকে পুলিশের একাধিক টিম বাজারে আছে। ঈদের কেনাকাটা করতে ক্রেওতাদের কোন সমস্য হবে না।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.