Templates by BIGtheme NET
Home / বর্তমান পরিপ্রেক্ষিত / মেহেরপুরে জেলা কারাগারে হাজতির আত্মহত্যা !

মেহেরপুরে জেলা কারাগারে হাজতির আত্মহত্যা !

11001মেহেরপুর নিউজ, ১৬ অক্টোবর:
মেহেরপুর জেলা কারাগারে জামিরুল ইসলাম নামের এক হাজতি আত্মহত্যা করেছে। তবে তার পরিবারের দাবি তাকে হত্যা করা হয়েছে। সোমবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে।
নিহত জামিরুল ইসলাম জেলার গাংনী উপজেলার বালিয়াঘাট গ্রামের সলেমান আলীর ছেলে। তার বিরুদ্ধে গাংনী থানায় অস্ত্র, হত্যা ও মাদকের তিনটি মামলা রয়েছে। সবশেষ সে মাদকের মামলায় কারাগারে হাজত বাস করছিল। তার হাজতি নম্বর ছিল ১৭৭৭/১৬। সে কারাগারের ভৈরব-৪ ওয়ার্ডে বন্দি ছিল।
জানা গেছে, মাদক মামলার আসামী জামিরুল ইসলাম গত ২তারিখ ইয়াবাসহ গোয়েন্দা পুলিশের হাতে আটক হয়। পরদিন তাকে গাংনী থানা থেকে জেলা কারাগারে হস্তান্তর করা হয়। ঘটনার দিন সকাল ১১টার দিকে তার স্ত্রী শাহিনা খাতুন সোমবার সকালে জেলা কারাগারে দেখা করতে যায়। এসময় জামিরুল ইসলাম তার স্ত্রীকে বাড়ির জমি বিক্রি করে জামিনের করার কথা বলে। এতে তার স্ত্রী তার বিরোধীতা করে। পরে দুপুরে তাকে কারাগারের ২য় তলার চিলেকোঠার সিঁড়িতে গলায় গামছা দিয়ে ফাঁস লাগানো অবস্থায় উদ্ধার করে মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে কারাগার কতৃপক্ষ। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক পরীক্ষা করে তাকে মৃত ঘোষনা করেন।
নিহতের স্ত্রী শাহিনা খাতুন বলেন, তার সাথে জামিন করা নিয়ে বিরোধীতা হয়েছে। তবে সামান্য এ ভুলবোঝাবুঝির জন্য সে আত্মহত্যা করার লোক নয় বলে তার স্ত্রীন জানান। তবে এর বিচার দাবি করে তিনি বলেন, গরিব মানুষ মামলা চালানো অর্থ তাদের হাতে নেয়। তার স্ত্রী আরো বলেন, তার বিরুদ্ধে তিনটি মামলা রয়েছে। এর মধ্যে একটি হত্যা ও একটি অস্ত্র মামলায় সে জামিনে ছিল। সবশেষ ইয়াবাসহ গত ২ অক্টোবর পুলিশের হাতে আটক হয়ে হাজত বাস করছিল।
নিহতের মা বানিয়ারা খাতুন অভিযোগ করে বলেন, আমার ছেলে একা একা মরার ছেলে না। তাকে জেলখানার লোকজন মেরে ফেলেছে । আমি এর বিচার চাই।
মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালের তত্তাবধায়ক ডা. মিজানুর রহমান জানান, হাসপাতালে ভর্তি করার পরপরই চিকিৎসক তাকে পরীক্ষা নিরীক্ষা করে মৃত ঘোষনা করেন। তবে এটি হত্যা নাকি আত্মহত্যা ময়নাদন্তের প্রতিবেদন ছাড়া বলা যাচ্ছে না।
এ ব্যাপারে মেহেরপুর জেলা কারাগারের জেলর শেখ আখতার হোসেন বলেন, দুপুরে আসামী গণনা করার সময় তাকে না পেয়ে খোজখুজি করতে গিয়ে গলায় গামছা দিয়ে ফাঁস লাগানো অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। তখন আনুমানিক ১২টা ২০ বাজবে। সাথে সাথে তাকে উদ্ধার করে মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তিনি আরো জানান, তার স্ত্রী তার সাথে বেলা ১১ টার দিকে দেখা করতে আসছিলেন। জামিনের বিষয় নিয়ে ভুলবোঝাবুঝি থেকে সে আত্মহত্যা করে থাকতে পারে বলে তার ধারনা। তবে পরিবারের অভিযোগ সম্পর্কে তিনি বলেন, ময়না তদন্তের প্রতিবেদন হাতে আসলেই আসল বিষয় পরিস্কার হওয়া যাবে বলে তিনি দাবি করেন।
মেহেরপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকবাল বাহার চৌধুরী বলেন, এ ঘটনায় একটি অপমৃত্যু ( ইউডি) মামলা হয়েছে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.