Templates by BIGtheme NET
Home / আইন-আদালত / মেহেরপুরে ধর্ষন করে অন্ত:সত্ত্বার অভিযোগে সালিস :: দুই জনের ৬ লাখে মাফ, একজনের সঙ্গে বিয়ে

মেহেরপুরে ধর্ষন করে অন্ত:সত্ত্বার অভিযোগে সালিস :: দুই জনের ৬ লাখে মাফ, একজনের সঙ্গে বিয়ে

মেহেরপুর নিউজ,২১ সেপ্টেম্বর:

মেহেরপুর সদরের একটি গ্রামে প্রতিবন্ধী বিধবাকে ধর্ষন করে অন্ত:সত্তার করার অভিযোগ তুলে দুই জনকে ৬ লাখ টাকার আর্থিক জরিমানা ও একজনের সাথে বিয়ে করতে হবে এমন আদেশ দিয়েছেন স্থানীয় মাতবররা। বর্তমানে ওই মহিলাটি সাত মাসের অন্ত:সত্ত্বা। তার দুটি সন্তান রয়েছে।

গত শনিবার বিকালে উপজেলার কুতুবপুর ইউনিয়নের শোলমারী গ্রামের বাজারে এ সালিসের ঘটনা ঘটে। সালিস শেষে গ্রামের মৃত জমির উদ্দিনের ছেলে হাশেম আলীর ৩ লাখ ৫০ হাজার, হারেজ উদ্দিনের ছেলে বাবুল সরদারের ২ লাখ ৫০ হাজার এবং ইমাদুল নামের অপর একজনকে বিয়ে করার আদেশ দেওয়া হয়েছে। বিচারের দিন থেকে আগামী ২৫ দিনের মধ্যে অর্থ পরিশোধ ও বিবাহ সম্পন্ন করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। নিজের হাতে আইন তুলে নিলে পওে বিচারকরা বলেছেন অন্যাথায় আদালতের মাধ্যমে তাদের বিচার করা হবে। তবে দন্ডপ্রাপ্তরা সাংবাদিকদের কাছে নিজেদের নির্দোষ দাবি করেছেন।

আর এ ধরণের সালিস করে এলাকায় তুমুল আলোচনা সমালোচনা সৃষ্টি করেছেন বর্তমান ইউপি সদস্য আখতার হোসেন, সাবেক ইউপি সদস্য মোতালেব হোসেন, ফকির মহাম্মদ, সাবেক ইউপি সদস্য ও ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি গোলাম মোস্তফা, সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান কালু, ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি আরিফুর রহমান, সুবেহ সাদিক বিশ্বাস, সেলিম রেজা, মন্টু, সোহেলসহ কয়েকজন ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীরা।

বিষয়টি জানার পর গতকাল বুধবার সকালে শোলমারী গ্রাম পরিদর্শন করে জানা যায় ঘটনাটি অনেকেই মেনে নিতে পারেননি। গ্রামবাসীরা এ ধরণের বিচারের তীব্র বিরোধীতাসহ ওই মাতবরদের বিচারের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন। এদিকে সাত মাসের অন্ত:সত্বা ওই বিধবার সাথে কথা বললে তাকে মানসিক প্রতিবন্ধী হিসেবে মনে হয়েছে। কখন সে বলে তার বয়স ৭০ আবার কখনো সে বলে ৬০ হবে। কিন্তু তার বয়স হবে ৩০ । অভিযুক্ত তিন জনের মধ্যে কার সন্তান তার পেটে বড় হচ্ছে তাও স্পষ্ট করে সে বলতে পারে না। প্রভাবশালীদের চাপে সে ঘুরে ফিরে ওই তিনজনকেই দায়ী করছেন এমন অভিযোগ রয়েছে। তবে এলাকাবাসীর ধারণা ওই মহিলার পেটে আদৌ কার সন্তান বড় হচ্ছে তা একমাত্র মেডিক্যাল পরীক্ষাই বলতে পারবে।

গ্রাম ঘুরে সালিশ দেখা প্রত্যক্ষদশী দের কাছে থেকে জানা যায়, প্রতিবন্ধী ওই বিধবার ভাইয়ের মৌখিক অভিযোগের ভিত্তিতে গ্রামের মাতবররা শোলমারী বাজারে সালিস পরিচালনা করেন। এসময় বিধবা তিনজনকে অভিযুক্ত করেন। বিধবা বিচারের সময় বলেন, হাশেম আলীর কাছে সে রমযান মাসে ফিতরা চাইতে গেলে হাশেম আলী তাকে জোর পূর্বক ধর্ষন করেছে। এসময় একজন বলেন, রোযা হলো তিন মাস আগে। তোমার পেটে সন্তানের বয়স সাত মাস তাহলে কিভাবে সম্ভব? তখন সে বাকি আরো অন্য দুজনের নাম করে । শুধুমাত্র এই স্বীকারোক্তী অনুযায়ী বিচারকরা তাদের দোষী সাব্যস্থ করে হাশেম আলীর ৩ লাখ ৫০ হাজার, বাবলু সরদারের ২ লাখ ৫০ হাজার এবং অপর অভিযুক্ত ইমাদুলের সাথে ওই বিধবার বিয়ের সিদ্ধান্ত নিয়ে ১০০ টাকার নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে (সাদা) অভিযুক্তদের স্বাক্ষর করে নেন। তবে বিচারকরা সকলেই ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মী হওয়ায় দন্ডিতরা কিছু বলার সাহস পায়নি বলে স্থানীয়রা অভিযোগ করেন।

দন্ডিত হাশেম আলীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ওই সালিসের পর থেকে লজ্জায় বাইওে বের হতে পারেননি। তাঁর বাড়িতে গিয়ে কথা বলতে চাইলে তিনি বলেন, মেয়েটি গর্ভবর্তী হওয়ায় কয়েকদিন ধরে কানাঘুষা চলছে বাবলু সরদারকে জড়িয়ে। তারা গর্ভপাত করার চেষ্টা চালাচ্ছিল। এসময় আমি বলছিলাম মেয়েটাও এদিক ওদিক ঘুরে বেড়ায়, মেয়েটারও দোষ আছে। এই কথা বলাই আমার কাল হয়েছে। সেদিন থেকেই তারা আমার নাম জড়িয়ে দেয়। পরে বিচারের দিন শুনছি মেয়েটা নাকি আমার নামও করেছে এবং শনিবার বিকালে সালিশে থাকতে হবে। এর পর তারা একতরফা বিচার করে আমার জরিমানা করলো। প্রথমে বলেছিল দুই বিঘা জমি লিখে দিতে হবে। পরে সাড়ে তিন লাখ টাকা জরিমানা করে। হুমকির মুখে আমি মুখ বুজে তাদের বিচার মেনে নিয়েছে। তিনি অভিযোগ করে বলেন, সম্পূর্ন অন্যায়ভাবে আমার জরিমানা করা হয়েছে। আমি এর সুষ্ঠ বিচার চাই।

হাশেম আলীর স্ত্রী রেহেনা খাতুন বলেন, ওই বিধবা ফেতরা চাইতে আসেনি। তার মা একটি জামা চেয়েছিল। তাই ছেলেকে বলে তাকে একটি জামা দেওয়া হয়েছে। তার স্বামী এ ধরণের অপকর্ম করতে পারে না। বিবাহযোগ্য দুটি সন্তান রয়েছে। তাদেরকে সমাজে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য আ.লীগের নেতারা এই বিচার করেছে।

অভিযুক্ত বাবুল সরদার বলেন, সমাজে ক্ষমতাসীনদের ভয়ে বিচার মেনে নেতে হয়েছে। অথচ আমি দোষী নয়। বসতবাড়ি বিক্রি করে সালিসের টাকা পরিশোধ করে ভাড়া বাড়িতে থাকতে হবে। এছাড়া কোন উপায় নাই। মাতবরদের বিরুদ্ধে কথা বলার ক্ষমতা নাই। তবে সুষ্ঠ বিচার হলে আমি নির্দোষ প্রমানিত হবো।

বাবলু সরদারের স্ত্রী আশেরা খাতুন বলেন, ২০ বছর ধরে স্বামীর সাথে সংসার করছি। আমার স্বামীকে এ ধরণের কাজ করতে পারে না। তাকে ফাঁসানো হয়েছে।

অপর দন্ডিত ইমাদুল বাজার করতে যাওয়ায তাকে পাওয়া যায়নি। কথা হয় তার স্ত্রী তরজিনা বেগমের সাথে । তিনি বলেন, আমরা গরিব মানুষ। পরের জমিতে বাস করি। নগট টাকা দেওয়ার ক্ষমতা নাই বলে আমার স্বামীকে বিয়ে করতে হবে বলে বিচার করেছে মাতবররা। এর সুষ্ঠ বিচার কোথায় গেলে পাব জানিনা। আপনাদের (সাংবাদিকদের) কাছেই বিচার চাই।

মাতবর ও সাবেক ইউপি সদস্য মোতালেব হোসেন বলেন, ধর্ষিত বিধবার ভাই আদালতে মামলা করতে গিয়ে সেখানে না করে ঘুরে এসে তাদের কাছে বিচার দেয়। যে কারণে গ্রামের কয়েকশ লোক বসে তাদের বিচার করা হয়েছে। এটা কি অন্যায় করা হয়েছে? উল্টো প্রশ্ন করেন তিনি। তিনি বলেন, মেয়েটি নিজে স্বীকার করেছে ওই তিন জন দোষী তাই তাদের মধ্যে যে দুজনক টাকা দিতে পারবে তাদের জরিমানা করা হয়েছে। আর যে পারবে না তাকে বিয়ে করতে হবে বলে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কারণ পেটে থাকা সন্তানটিকেতো সমাজে পরিচয় দিয়ে মানুষ হতে হবে। আইনগত ভাবে না গিয়ে নিজেরা আইন কেন হাতে তুলে নিলেন, এই প্রশ্নের জবাবে মোতালেব হোসেন বলেন, গরিব মানুষ মামলা চালানোর খরচ তার নাই। তাই সামাজিকভাবে বিচার করা হয়েছে।

অপর মাতবর ও কুতুবপুর ইউনিয়নের বর্তমান ২ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য আখতার হোসেন  বলেন, আসামি ও বিধবা মহিলা উভয় পক্ষের মতামতের ভিত্তিতে সালিসে বিচার করা হয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সাবেক এক ইউপি সদস্য অভিযোগ করে বলেন, এভাবে বিচার করার ক্ষমতা সমাজের কোন ব্যক্তি বা মোড়লরা করতে পারে না। হাশেম আলীরা বিএনপির কর্মী বলে রাজনৈতিক হয়রানীর শিকার হয়েছে। এই মোড়লদের বিচারের আওতায় আনার দাবি করেন তিনি।

স্থানীয় একজন অভিযোগ করে জানান, গ্রামে একটি ছাগল চুরি হলেও ওই মাতবররা পুলিশকে জানান। অথচ এত বড় একটি ঘটনা তারা ধামাচাপা দিয়েছেন।

এ ব্যাপারে মেহেরপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রবিউল ইসলাম  বলেন, ঘটনাটি তাদের জানা নেই। তবে মাতবররা এ ধরণের বিচার করতে পারেন না। কেউ অভিযোগ করলে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful