Templates by BIGtheme NET
Home / ইতিহাস ও ঐতিহ্য / মেহেরপুরে নবান্ন উৎসব উপলক্ষে পিঠা উৎসবে ফিরে এলো বাঙালির হাজার বছরের ঐতিহ্য

মেহেরপুরে নবান্ন উৎসব উপলক্ষে পিঠা উৎসবে ফিরে এলো বাঙালির হাজার বছরের ঐতিহ্য

মুজাহিদ মুন্না, ১৫ নভেম্বর:
হেমন্ত মানেই হিম হিম কুয়াসা। কৃষকের গোলায় নতুন ধান। কৃষাণির ব্যস্ততা। নতুন চালের পিঠার ঘ্রানে আমোদিত চারদিক পুরো গ্রাম জুড়ে উৎসবের আমেজ। এমনই এক সন্ধ্যা দেখা গেলো এবার পৌর কমিউনিটি সেন্টারে।

বুধবার রাতে হেমন্তের এই দিনে নবান্ন উৎসব উপলক্ষে আয়োজন করা হয় নবান্নের পিঠা উৎসব মেলা।

মেহেরপুর জেলা প্রশাসন ও পৌরসভার যৌথভাবে নবান্ন উৎসব এ পিঠা উৎসব আয়োজন করেন। একই সাথে নবান্ন উৎসব উপলক্ষে গ্রাম বাংলার গানে গানে সাজানো হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। পরে পিঠা উৎসবে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। জেলা প্রশাসক পরিমল সিংহ প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে পিঠা উৎসব অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন।
নবান্ন উৎসবের সাথে মিশে আছে বাঙালির হাজার বছরের ইতিহাস, ঐহিত্য ও সংস্কৃতি। প্রাচীনকাল থেকেই বাঙালিয়ানার পরিচয় পাওয়া যায় এই নবান্ন উৎসবকে কেন্দ্র করে। অগ্রহায়ণের শুরু থেকেই আমাদের গ্রামবাংলায় চলে নানা উৎসব-আয়োজন। নতুন ধান কাটা আর সেই সাথে প্রথম ধানের অন্ন খাওয়াকে কেন্দ্র করে পালিত হয় এই উৎসব। বাঙালির বারো মাসে তেরো পার্বণ- এ যেন সত্যি হৃদয়ের বন্ধনকে আরো গাঢ় করার উৎসব। হেমন্ত এলেই দিগন্তজোড়া প্রকৃতি ছেয়ে যায় হলুদ-সবুজ রঙে। এই শোভা দেখে কৃষকের মন আনন্দে নেচে ওঠে। কারণ কৃষকের ঘর ভরে ওঠে গোলাভরা ধানে। স্মরণাতীতকাল থেকে বাঙালি জীবনে অগ্রহায়ণে কৃষকের নতুন বার্তা নিয়ে নিয়ে আগমন ঘটে এ ঋতুর। নবান্ন হচ্ছে হেমন্তের প্রাণ। নুতন ধানের চাল দিয়ে তেরি করা হয় পিঠা, পায়েস, ক্ষীরসহ হরেক রকম খাবার।

এবছর এ উপলক্ষে আয়োজন করা হয়। পিঠা উৎসবের গ্রামের গন্ডী পেরিয়ে মেহেরপুর শহরের এ আয়োজন সকলের দৃষ্টি  কেড়েছে। উৎসব উপলক্ষে ১২টি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান হরেক রকম পিঠা তৈরী করে প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহন করেন।

প্রতিযোগিতায় সরকারী কলেজ প্রথম, জাতীয় মহিলা সংস্থা দ্বিতীয় ও সরকারী মহিলা কলেজ এবং পল্লী পিঠা ঘর যৌথভাবে তৃতীয় হন। শেষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও পুরস্কার বিতরণ করা হয়। জেলা প্রশাসক পত্নী স্মৃতি রানী সিনহা, স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক পত্নী নাদিরা আহামেদ, মেহেরপুর পৌর মেয়র পত্নী আরিফা আখতার রুশি, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পত্নী আফসনা রোজ পুরস্কার বিতরণ করেন।

এসময় অন্যদের মধ্যে স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক খাইরুল হাসান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব)  শেখ ফরিদ আহামেদ, সহকারী কমিশনার মোহাম্মদ মামুন, পৌর সচিব তফিকুল ইসলাম, প্যানেল মেয়র শাহীনুর রহমান রিটন,  জেলা শিল্পকলা একাডেমীর সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান সেখানে উপস্থিত ছিলেন।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.