Templates by BIGtheme NET
Home / জাতীয় ও আন্তর্জাতিক / মেহেরপুরে নির্ঘুম রাত কাটছে দর্জিদের

মেহেরপুরে নির্ঘুম রাত কাটছে দর্জিদের

11মুজাহিদ মুন্না, ০১ জুলাই:
পবিত্র ঈদ উল ফিতরকে সামনে রেখে এখন ব্যাস্ত সময় পার করছে পোশাক তৈরির কারিগরা (দর্জি)। মেহেরপুর শহর ও গ্রাম অঞ্চলে দর্জিপাড়া সরগরম হয়ে উঠেছে রমজানের শেষ সময়ে। প্রতিটা দর্জির দোকান গুলিতে মেশিনের শব্দ যেন জানান দিচ্ছে ঈদ এসে গেছে। ঈদের আগ মুহুর্ত পর্যন্ত চলবে এই চির চেনা ব্যস্ততা। এখন আর কোন টেইলার্সে নতুন করে পোশাক অর্ডার নেওযা হচ্ছেনা। ঈদের আগে ডেলিভারি দেওয়া সম্ভব হবে না বরে। রমজানের শুরু থেকেই তাদের এ ব্যাস্ততা আছে তবে শেষ মুহুর্তে এসে যেন দম ফেলার সময় নাই। মেহেরপুরের প্রতিটা টেইলর্সের কারিগরা তাই এখন নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছে। শহরের কোর্ট রোড থেকে শুরু করে কাথুলী রোড পর্যন্ত সব টেলাইর্সেরকারিগরা এখন ব্যাস্ত ঈদে সকলের গায়ে নতুন পোশাক তুলে দেওয়ার জন্য।
সরজমিনে ঘুরে দেখা গেছে মেহেরপুর শহরের বড় বাজারে স্টুডেন্ট টেইলার্স, ডলফিন টেইলার্স, কুষ্টিয়া টেইলার্স, কাথুলী রোডে শাপলা টেইলার্স, হোটেল বাজারে সহিদ টেইলার্স, শিউলি টেইলার্স, নীড্স টেইলার্স, বাবুল টেইলার্স, সানমুন টেইলার্স, বাসষ্টান্ডে ঋতু টেইলার্স, লর্ড মার্কেটে শিউলি টেইলার্সসহ জেলার শতাধিক টেইলার্সের তিন শতাধিক দর্জি কারিগরা দিন-রাত কাজ করে যাচ্ছে।
22বিভিন্ন বাজারে দেখা যায়, দর্জিপাড়ার সবাই যে যায় কারিগরা যার যা দায়িত্ব এর মধ্যে সে সেই কাজে ব্যাস্ত। যেমন, বোতাম লাগানো, বোতামের ঘর সেলাই করা, কাপড় কাটায় ব্যস্ত দর্জি মাষ্টার, কারও গলায় ফিতা, হাতে কাঁচি, কেউ সেলাই করছে, টেইলার্সে টাঙানো আছে তৈরি পোশাকের স্তুপ। কোন অপ্রয়োজনীয় কথা নেই করো মুখে শুধু কাজ আর কাজ। দর্জি মাষ্টার যার যা মাপ সে অনুযায়ী সালোয়ার, কামিজ, শার্ট, প্যান্ট তৈরি কাপঢ় কেটে দিচ্ছেন আর কারিগরা সেলাই করে যাচ্ছেন।
মেহেরপুর শহরের হোটেল বাজারে নীডস টেইলার্সের মালিক শফিকুল ইসলাম বলেন, প্রচুর পোশাক তৈরির অর্ডার পেয়েছি, দিন রাত কাজ করছি ঈদের আগেই সকল পোশাক ডেলিভারি দিতে হবে। তবে তিনি কারিগর সংকটের কথা স্বীকার করে বলেন যে পরিমান পোশাক অর্ডার পেয়েছি তাতে করে আমার এখানে যদি আরো তিনজন কারিগর থাকত তবে সহজে পোশাক ডেলিভারি দিতে পারতাম। তিনি আরো বলেন, আমরা নতুন পোশাক না পরতে পারলেও সকলের গায়ে নতুন পোশাক তুলে দেওযার মাঝে আমরা ঈদের আনন্দ খুজে পাই।
নীড্স টেইলার্সে পোশাক তৈরি করতে আশা এক স্কুল শিক্ষক ইকবল হোসেন বলেন, বাজারে কেনা পোশাকের পরে কোন মজা পাই না তাছাড়া অফিস আদালতে গেলে সেই পোশাক পরে সব সময় যাওয়ায় যায় না তাই খরচ একটু বেশি হলেও তৈরি পোশাক ব্যাবহার করি। তবে তিনি অভিযোগ করে বলেন, পোশাক তৈরির মজুরি দিনদিন বেড়েই চলেছে। এত টাকা খরচ করে পোশাক তৈরি করতে হিমসিম খাচ্ছি।
মেহেরপুর সরকারী মহিলা কলেজের ছাত্রী আফসানা বিশ্বাস তিথি বলেন, বাজারে অনেক পোশক আছে তবে পোশাকের কোন ভিন্নতা নেই। তাই নিজের মত করে একটু ভিন্ন ভাবে এবারে ঈদে তৈরি পোশাক নিয়েছি।
পোশাক তৈরির কারিগর আলমগীর হোসেন জানান, দিন রাত কাজ করে যাচ্ছি। সকলকে পোশাকের মান ঠিক রেখে তবেই পোশাক ডেলিভারি দিতে হবে। এখন আর নতুন করে অর্ডার নেওয়া হচ্ছেনা। কারন আমরা বেশি অর্ডারের চাইতে পোশাকে মান ঠিক রাখা টায় আমাদের কাছে বড় চ্যালেঞ্জ।
মেহেরপুর শহরের হোটেল বাজারের সহিদ টেইলার্সের মালিক সহিদুল ইসলাম বলেন, ভাই অনেক ব্যাস্তার মধ্যে দিয়ে দিন কাটছে। আপনার সাথে কথা বলার সময়ও নাই। প্রচুর কাজের অর্ডার নিয়ে ফেলেছি। সেগুলো ডেলিভারি দিতে হবে। তবে তিনি কারিগর সঙ্কট কথা স্বীকার করে বলেন। বাজারে কারিগর সঙ্কট আছে আবার যারা কাজ করছে তাদের উচ্চ মজুরি দিতে হচ্ছে কিন্তু সেই হিসাবে পোশাক তৈরির মূল্য বাড়েনি। তাই আমাদের লাভ হচ্ছেনা খুব বেশি তবে সকলের গায়ে নতুন পোশাক তুলে দেবার মধ্যে অন্য রকম আনন্দ আছে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful