Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / মেহেরপুরে পল্লী বিদ্যুৎ যায় না,মাঝে মাঝে আসে।। চাহিদার ২৫ শতাংশ দিয়ে চলছে মেহেরপুর পল্লী বিদ্যুৎ

মেহেরপুরে পল্লী বিদ্যুৎ যায় না,মাঝে মাঝে আসে।। চাহিদার ২৫ শতাংশ দিয়ে চলছে মেহেরপুর পল্লী বিদ্যুৎ

ইয়াদুল মোমিন
মেহেরপুরে পল্লী বিদ্যুতের সীমাহীন লোড শেডিংয়ে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। আসন্ন এইচএসসি পরীক্ষা আর এসময়ে ঠিকমত বিদ্যুৎ না পেয়ে শিক্ষার্থীরা পড়েছে বিপাকে। ভ্যাপসা গরমে মোমবাতি অথবা হারিকেনের আলোয় সেরে নিতে হচ্ছে শেষ সময়ের প্রস্তুতি। এ নিয়ে তাদের অভিভাবকরাও দিন পার করছে দুশ্চিন্তায়। অন্যদিকে চলতি বোরো আবাদও হুমকির সম্মুখিন। চাহিদা মতো বিদ্যুতৎ না পাওয়ায় মেহেরপুর জেলার চাষীসহ সকল স্তরের জনগনের মধ্যে চাপা উত্তেজনা বিরাজ করছে। সময় মতো ব্যবস্থা না নিলে বড় ধরনের আন্দোলনের মুখে পড়তে পারে মেহেরপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি। এ ধরনের গুঞ্জন এখন জেলার সর্বস্তরের মানুষের মাঝে।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার গাড়াডোব গ্রামের কয়েকজন জানান, গত রোববার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির পক্ষে রাত ১২ টা থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত সেচ কাজ করার জন্য প্রচারাভিযান চালানোর সময় গাড়াডোব গ্রামে তাড়া খেয়ে পালিয়ে বাঁচে এক মাইক প্রচার কর্মী।
মেহেরপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জুনিয়র প্রকৌশলী গৌতম কুমার সরকার মেহেরপুর নিউজ কে বলেন,মেহেরপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ৩টি সাব স্টেশনের মাধ্যমে গ্রাহকদের বিদ্যুৎ সেবা দিয়ে থাকে । বর্তমানে মেহেরপুর পললী বিদ্যুৎ সমিতির পৃতিদিনের বিদ্যুৎ চাহিদা হচ্ছে ২৬/২৭ মেগাওয়াট কিন্ত চাহিদার তুলনায় আমরা বিদ্যুৎ পাচ্ছি ৫ থেকে ৭ মেগাওয়াট। কোন ক্রমে ৭ মেগাওয়াটের বেশী বিদ্যুৎ ব্যবহার করলেই কুষ্টিয়া থেকে আমাদের লাইন বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে। তিনি আরও বলেন আমরা সব সময় গ্রাহকের চাহিদা অনুযায়ী সেবা দেয়ার চেষ্টা করি কিন্ত বিদ্যুৎ উৎপাদন যেখানে কম সেখানে আমাদের কিছুই করার থাকেনা।
বিদ্যূতের ভোগান্তির কবলে পড়া বোরো চাষী মেহেরপুর সদর উপজেলার শোলমারী গ্রামের কুতুবউদ্দিনকে কতটুকু বিদ্যুৎ পাচ্ছেন এ প্রশ্ন করা হলে তিনি দু:খ করে বলেন, গ্রামাঞ্চলে বিদ্যূৎ যায় না ,মাঝে মাঝে আসে। বিদ্যুৎ চালিত পাম্পের মাধ্যমে সেচ দিয়ে বোরো আবাদ করতে যেয়ে রীতিমত হিমশিম খাচ্ছি। বর্তমানে দিনে গড়ে ৪ থেকে ৫ ঘন্টা বিদ্যুৎ পাই। এমনিতেই চৈত্রের খরতাপে মাঠ শুকিয়ে খা খা করছে আর একদিকে বিদুত্যের ভেলকিবাজি সব মিলিয়ে বোরো আবাদ ঘরে তুলতে পারব কিনা শংকায় দিন কাটাচ্ছি।
বিদ্যূতের ভোগান্তি থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য ডিজেল চালিত সেচ পাম্পের মাধ্যমে চাষ করে মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার সাহারবাটি গ্রামের খোদা বক্সের ছেলে জাকিরুল ইসলাম জানান, তিনি সবজি,ধান সহ মোট ২০/২২/ বিঘা জমিতে কৃষিকাজ করেন। ডিজেল চালিত ইঞ্জিনের মাধ্যমে সেচকাজ করে চাষাবাদ করেন ফলে বিদ্যুতের সমসায় তাকে পড়তে হয়না। তবে ডিজেল চালিত পাম্পের মাধ্যমে সেচ কাজ সম্পন্ন করায় চাষাবাদে খরচের পরিমান অনেক বেশী হয়ে যাচ্ছে। ফলন শেষে খরচ উঠবে কিনা সংশয়ে আছি।
মেহেরপুর কৃষি সমপ্রসারন অধিদপ্তর সুত্রে জানা যায়, মেহেরপুরের ৩ উপজেলায় এবার ২৫ হাজার ৮শত ৬০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ করেছে চাষীরা। বিদ্যুৎচালিত পাম্পের মধ্যে ৩১টি গভীর, ১হাজার ৩শ ১৯টি অগভীর এবং ৪টি এলএলপি নলকুপের মাধ্যমে সেচ কাজ সম্পাদন করা হচ্ছে। অফিস সূত্রে আরও জানা যায়,আবহাওয়া অনুকুলে এবং বিদ্যূৎ সরবরাহ ভালো থাকলে মেহেরপুর জেলায় এবার ধান চাষে বিপ্লব হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
মেহেরপুর সদর উপজেলার উজলপুর গ্রামের পাম্প মালিক ইসরাইল হোসেন বলেন, আমাদের পাম্পের অধীন ২৫০ বিঘা রোরো আবাদ হচ্ছে। দিনে ২/৩ ঘন্টা বিদ্যুৎ পাওয়ায় আমরা ঠিকমতো চাষীদের জমিতে সেচ দিতে পারছিনা। মাঝে মাঝে চাষীরা আমাদের কাছে বিক্ষোভও করছে। অনতি বিলম্বে বিদ্যুৎ সমস্যার সুষ্ট সমাধান করার জন্য কর্তৃপক্ষকে তিনি আবেদন জানান।
মেহেরপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির পরিচালক আলামিন হোসেন বলেন, আমরা চাহিদার তুলনায় ২৫ শতাংশ বিদ্যুৎ পাচ্ছি, ফলে গ্রাহকদের চাহিদা মতো বিদ্যুৎ সরবরাহ করা আমাদের পক্ষে সম্ভব হচ্ছে না। আমরা বিভিন্ন মাধ্যম দিয়ে খবর পাচ্ছি জনগনের দুর্দশার কথা। যেহেতু মেহেরপুর কৃষিভিত্তিক অঞ্চল একারণে আমরা খুব শিঘ্রই সদস্য সেবা উপ-কমিটির একটি জরুরী সভা ডেকে গ্রাহকদের চাহিদা মতো বিদ্যুতের দাবী দাওয়া বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের কাছে পেশ করবো। সর্বোপরি আমরা গ্রাহকদের সচেতনতার লক্ষে কাজ করে যাচ্ছি। বিশেষ করে বিকাল ৫টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত যাতে কেউ সেচ কাজ না করে এ ব্যাপারে বিভিন্ন গ্রামে গ্রামে সচেতনতামুলক সভা করছি। মুল কথা হচ্ছে আমাদের এলাকার চাষীরা পুরোনো আমল থেকে বিকাল থেকে রাত রাতে সেচ কাজে অভ্যস্ত হওয়ায় তারা আমাদের কথাগুলো মানতে পারছে না।
এ ব্যাপারে কথা হয় মেহেরপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার নুর-উর-রহমান এর সাথে তিনি জানান,সরকারের বিদ্যূৎ বন্টনের হিস্যা অনুযায়ী আমাদের চাহিদার ২৫ শতাংশ বিদ্যুৎ পাচ্ছি। সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী বোরো মৌসুমে রাত ১১টা থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত নিরবিছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের কথা থাকলেও আমাদের সেটা তারা দিচ্ছে না। এর ফলে আমরা গ্রাহকদের চাহিদা পুরণ করতে হিমশিম খাচ্ছি। তারপরও সার্বক্ষনিক যোগাযোগ করে যাচ্ছি যাতে করে এ সমস্যার সমাধান পাওয়া যায়।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful